সিরিয়ায় তুরস্কের সামরিক অভিযান শুরু হয়েছে: এরদোগান

প্রকাশিত: ৯:৫৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৯, ২০১৯

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন, তার দেশের সেনাবাহিনী এবং আঙ্কারা সমর্থিত কথিত ফ্রি সিরিয়ান আর্মি সিরিয়ার উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় সীমান্তে কুর্দি গেরিলা গোষ্ঠী বা ওয়াইপিজির বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করেছে।

আজ বুধবার নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেইজে দেয়া এক বার্তায় প্রেসিডেন্ট এর্দোগান বলেন, ‘আমরা সিরিয়ার আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষা করবো এবং স্থানীয় লোকজনকে সন্ত্রাসীদের কবল থেকে রক্ষা করবো।’

তিনি তার টুইটার বার্তায় বলেন, পিস স্প্রিং অভিযান সন্ত্রাসীদের হুমকি থেকে তুরস্ককে মুক্ত করবে এবং এ অভিযান একটি নিরাপদ অঞ্চল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সব শরণার্থীকে তাদের ঘরে ফিরতে সহায়তা করবে।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল জানিয়েছে, সিরিয়ার উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় আল হাসাকা প্রদেশের রাস আল আইন শহরে কুর্দি গেরিলাদের ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে।

এছাড়া সিরিয়ার সরকার বিরোধী কথিত সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস বা এসডিএফ জানিয়েছে যে তুর্কি জঙ্গিবিমান তাদের শহরে বোমা বর্ষণ করছে এবং এতে মানুষ ভয়ানকভাবে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে।

এর আগে বুধবার ভোরের দিকে সেনাবাহিনীর অগ্রবর্তী দলগুলো তাল আবায়েদ ও রাস আল-আইন শহরের দুটি পয়েন্ট দিয়ে সিরিয়ায় ঢুকে বলে তুরস্কের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে কুর্দি সন্ত্রাসীদের আস্তানা গুঁড়িয়ে দিতে সোমবার সামরিক অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয় এরদোগান সরকার।

সামরিক অভিযানের প্রস্তুতি হিসেবে সিরিয়া সীমান্তে তুরস্কের সাঁজোয়া যান মোতায়েনের ছবি ও ভিডিও প্রকাশিত হয়েছিল। প্রেসিডেন্ট এরদোগানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন বলেন, সন্ত্রাসী আস্তানা গুঁড়িয়ে দিতেই তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে সামরিক অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আঙ্কারা।

ইসমাঈল আযহার/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন