আবরার হত্যাকাণ্ড: উদ্বিগ্ন জাতিসংঘ, ব্রিটেন ও জার্মান

প্রকাশিত: ৮:৪১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৯, ২০১৯

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে এ ঘটনার স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত এবং সুষ্ঠু বিচার চেয়েছে জাতিসংঘ, জার্মান ও ব্রিটেন। এ বিষয় জাতিসংঘ, ব্রিটেন ও জার্মানি আজ পৃথক পৃথক বিবৃতি প্রকাশ করে তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

আজ (বুধবার) রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পো আবরার হত্যা ব্যপারে বলেন, এটি একটি দুঃস্বপ্ন। কোনো অভিভাবকই চান না, তার সন্তান বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে এভাবে মারা যাক। তিনি বলেন, আমরা আহ্বান জানাই বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সহিংসতার যে প্যাটার্ন রয়েছে সেটি বন্ধ করার হোক। কারণ, এটি উদ্বেগজনক। ক্যাম্পাসে তাদের সন্তানরা নিরাপদে আছে এবিষয় বাবা-মায়েরা যেন নিশ্চিত থাকতে পারেন। মানুষেরা যেন সব জায়গায় নিরাপদে থাকে, সেটাও নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে জনগণের মনে ক্ষোভ আছে।  তিনি মনে করেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন যেন এ বিষয়টি তদন্ত করে। এবং এ বিষয়ে তাদের সক্ষমতা কতটুকু, সেটা তারা প্রদর্শন করতে পারে। এ বিষয়ে জাতিসংঘ থেকে একটি বিবৃতিও দেয়া হয়েছে বলেও জানান মিয়া সেপ্পো।

ঢাকায় জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারীর দফতর থেকে বুধবার দুপুরে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অবাধ মতপ্রকাশের অভিযোগে বুয়েটের এক তরুণ শিক্ষার্থী হত্যার ঘটনায় জাতিসংঘ নিন্দা জানাচ্ছে।বছরের পর বছর ধরে অভিযুক্তদের বিচার না করায় বাংলাদেশের ক্যাম্পাসগুলোতে সহিংসতায় অনেকেই প্রাণ দিয়েছেন।

জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পো

এ হত্যাকাণ্ডে বিস্মিত ও মর্মাহত হওয়ার কথা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে ব্রিটেন। আজ (বুধবার) ঢাকাস্থ হাইকমিশন থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে এমন প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‌‘বুয়েটে ঘটে যাওয়া ঘটনায় আমরা বিস্মিত ও মর্মাহত। ব্রিটেন বাকস্বাধীনতা, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রসঙ্গে নিঃশর্তভাবে অঙ্গীকারাবদ্ধ।’

এদিকে, আবরার ফাহাদ হত্যায় শোক জানিয়েছে জার্মানি। পাশাপাশি মত প্রকাশের স্বাধীনতা লঙ্ঘন শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলেও মনে করেছে দেশটি। ঢাকায় অবস্থিত দেশটির দূতাবাস নিজেদের ফেসবুক পেজে এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানায়।

পোস্টে বলা হয়, জার্মান দূতাবাস মনে করে- মতপ্রকাশের স্বাধীনতা গণতন্ত্রের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ মূল্যবোধ, যা বাকস্বাধীনতার স্বতন্ত্র অধিকার দেয়ার পাশাপাশি তা জনসম্মুখে প্রকাশেরও অধিকার দেয়। বিবৃতিতে বলা হয়, জার্মান সরকার নিজ দেশে যেমন এই অধিকারগুলো সমর্থন করে তেমনি সারা পৃথিবীতেও এর বাস্তবায়নে জোর সমর্থন দেয়। আর আমরা বিশ্বাস করি, এ অধিকারগুলোর লঙ্ঘন শাস্তিযোগ্য অপরাধ। বুয়েট ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনায় জার্মান দূতাবাস মর্মাহত উল্লেখ করে বিবৃতিতে আরও বলা হয়, আবরারের পরিবার ও তার সহপাঠী-বন্ধুদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছে দূতাবাস।

/মুহসিন/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন