রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি: ক্যামেরনকে সু চি

প্রকাশিত: ৮:৩৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯

যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বৃহস্পতিবার নিজের স্মৃতিকথা প্রকাশ করেছেন। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামের এই স্মৃতিকথায় ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থাকার সময়ে নিজের ব্যক্তিগত ও পেশাগত জীবনের বিভিন্ন প্রসঙ্গও উঠে এসেছে। ওই স্মৃতিকথায় ক্যামেরন জানিয়েছেন, ‘মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি তাকে বলেছিলেন, রোহিঙ্গারা সত্যিকার বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল সু চি`র ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থাকার সময়ে ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি’র।

স্মৃতিকথায় ডেভিড ক্যামেরন লিখেছেন, “২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি লন্ডন সফরে আসলে সবার নজর ছিল মিয়ানমারের মুসলমান রোহিঙ্গাদের ওপর, বৌদ্ধ অধ্যুষিত রাখাইন থেকে তাদের বাস্তুচ্যুত করা হয়েছিল। সেখানে ধর্ষণ, হত্যা আর জাতিগত নিধনযজ্ঞও সংঘটিত হয়েছিল। আমি তাকে বলেছিলাম বিশ্ব এটা প্রত্যক্ষ করছে। তিনি উত্তরে বলেছিলেন, ‘তারা সত্যিকার বার্মিজ নয়। তারা বাংলাদেশি’।”  মিয়ানমারে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় সু চি’র ভূমিকায় নিজের হতাশার কথা আড়াল করেননি ক্যামেরন। সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, এই হতাশা বার্মা (মিয়ানমার) থেকে আসছিল।

দীর্ঘ সময় সামরিক স্বৈরতন্ত্র থেকে গণতন্ত্রের পথে উত্তরণের প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের পর এক বছর আগে (২০১২ সালে) আমি মিয়ানমার সফর করেছিলাম। ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা পাওয়ার পর থেকে কোনও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী দেশটিতে সফরে যাননি। ক্যামেরন লিখেছেন, আমি গণতন্ত্রপন্থী প্রচারক অং সান সু চি’র সঙ্গে সাক্ষাৎ করি, যিনি খুব তাড়াতাড়ি প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হতে যাচ্ছেন আর অসাধারণ এক গল্প প্রতিফলিত হতে যাচ্ছে: ১৫ বছরের গৃহবন্দিত্ব থেকে নিজ দেশকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে পরিবর্তন করতে যাচ্ছেন। তবে মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি ব্যাহত হয় রোহিঙ্গা সংকটের কারণে। ব্রেক্সিট গণভোট ইস্যুতে ২০১৬ সালে পদত্যাগ করেন ডেভিড ক্যামেরন।

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন