মুরসির ইন্তেকাল ; অসুস্থ অবস্থায় জোর করে আদালতে আনা হয়েছিলো তাকে

প্রকাশিত: ১১:৩৪ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০১৯

মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদ মুরসি ইন্তেকাল করেছেন। আজ (১৭ জুন) আদালতে বিচার চলাকালীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

৬৭ বছর বয়সী মিশরের এই জনপ্রিয় নেতাকে জোর করে অন্যায় অভিযোগে কারাগারে আটকে রাখার অভিযোগ রয়েছে মিশরের অগনতন্ত্রিক সামরিক শাসক আবদেল ফাত্তাহ আল সিসির ওপর।

জানা গেছে, আদালতে অসুস্থ অবস্থায় মুহাম্মদ মুরসিকে উপস্থিত করা হয়েছিলো। তিনি অসুস্থবোধ করেছেন বলার পরও তার বিচারকার্য পরিচালনার নামে তার মানবিক অধিকার হরণ করারও সংবাদ দিয়েছে অনেক গণমাধ্যম।

এদিকে কারাগারে তাকে সার্বিক সুবিধা ও চিকিৎসা প্রদানেও গড়িমসি ছিলো কারা কর্তৃপক্ষের। অনেকেই মুহাম্মাদ মুরসির ইন্তেকালের সাথে তুলনা করছেন ফিলিস্তিনের সাবেক প্রেসিডেন্ট ইয়াসির আরাফাতের মৃত্যুর সাথে।

কারাগারে অত্যাচার চালিয়ে কারও মতে বিষ প্রয়োগ করে অনেকটা “কোল্ড ব্লাডেট মার্ডার” করা হয়েছে মুরসিকে এমন অভিযোগও রয়েছে তার সমর্থকদের পক্ষ থেকে।

মুরসির ইন্তেকালে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান শোক প্রকাশ করে বার্তা দিয়েছেন

প্রসঙ্গত : ২০১১ সালে আরব বসন্তের জেরে মিসরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারকের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠে বিশাল গণঅভ্যুত্থান। এতে পদচ্যুত হন হোসনি মোবারক।

এরপর মিসরের প্রথম অবাধ ও গণতান্ত্রিক নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন মুসলিম ব্রাদারহুডের প্রধান জনপ্রিয় নেতা মুহাম্মদ মুরসি।

কিন্তু ২০১৩ সালে ষড়যন্ত্রের সুযোগ নিয়ে তাকে ক্ষমতাচ্যুত করে মিসরীয় সেনাবাহিনী। পরে প্রেসিডেন্টের আসনে বসেন মুরসির হাতে সেনাপ্রধান হওয়া আবদেল ফাত্তাহ আল সিসি।

এরপর ২০১৩ সালে মুরসির নেতৃত্বাধীন মুসলিম ব্রাদারহুড নিষিদ্ধ করা হয়। এর হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয় এবং বিভিন্ন অভিযোগে অনেককে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়।

মুরসির বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি অর্থের বিনিময়ে কাতারের কাছে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও নথি পাচার করেছেন।

তবে তিনি এ অভিযোগ অস্বিকার করেছেন।

মন্তব্য করুন