একদিন পৃথিবী থেকে মাযহাব ডিলেট হয়ে যাবে; আফসারী

প্রকাশিত: ৪:৩৮ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯

মাওলানা রফিক উল্লাহ আফসারী। বাড়ি নোয়াখালী। একজন কৌতুক বক্তা হিসেবেই তিনি সবার কাছে পরিচিত। তার অধিকাংশ বয়ানেই তিনি হাস্যরস আর অভিনয় প্রদর্শনের মাধ্যমে কোরআন-হাদিসের আলোচনা করেন কৌতুকের ছলে। তার হাসি-কৌতুক থেকে রক্ষা পায় না কোরাআন-হাদিস থেকে শুরু করে নবী রাসুল কেউই। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও ক্লিপ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যেটাতে দেখা যায় তিনি বলছেন, “সেদিন বেশি দূরে নয় সারা বিশ্ব থেকে একদিন মাযহাব ডিলেট হয়ে যাবে।” মাযহাবকে কটাক্ষ্য করে তার এমন বক্তব্যকে কেন্দ্র করে সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে কঠোর সমালোচনা। ফেসবুকের বিভিন্ন ওয়াল ঘেটে দেখা যায়,

বিশিষ্ট আলেম, গবেষক মাওলানা শামসুদ্দোহা আশরাফী তার এমন  বক্তেব্যের জবাবে লেখেন-


আহলে হাদিস ফিতনা। গত দু তিন শতক জুড়ে উপমহাদেশে চলমান এক ভয়ংকর ফেতনা। পুরো আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়ার বিরুদ্ধে যাদের অবস্থান। ৪ মাজহাবের ইমামসহ গোটা মিল্লতে মুসলিমার মান্যবর উলামায়ে কেরামের প্রতি বিদ্বেষ ছড়ানোই যাদের মূল কাজ।

আলহামদুলিল্লাহ, গোটা বিশ্বের আহলে হক উলামায়ে কেরাম শুরু থেকেই তাদের ব্যাপারে সচেতন অবস্থানে আছেন এবং উম্মাহকে সচেতন করে চলেছেন।

কিন্তু আফসোস আমাদের দেশের কিছু অবুঝ দ্বীনি ভাই যাদের মধ্যে কেউ কেউ নামীদামী আলেমও আছেন, যারা এ ফেতনার ব্যাপারে যথাসময়ে বুঝে উঠতে পারেনি। যারফলে নিজেও তাদের খপ্পরে পড়েছেন, ভক্তকুলকে ডুবিয়েছেন।

আহলে হাদিস ফেতনা বাংলাদেশে ব্যাপকতা লাভ করেছে জামাত শিবিরের ভাইদের মাধ্যমে। আর এরজন্য দায়ী তাদের মান্যবর আলেম সমাজ। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য মাও. কামালুদ্দীন, মুফতি কাজী ইবরাহীম, মাও.তারেক মনোয়ার, মাও.আফসারীসহ অনেকেই। যারা বুঝে না বুঝে এফেতনায় নিজেরাও জড়িয়ে পড়েছে অন্যদেরও জড়িয়েছে।

অবশ্য গত কিছুদিন যাবত তারা এফেতনা সম্পর্কে মুখ খুলতে শুরু করেছে। অবশ্য এটা ভিন্ন কারণে। আহলে হাদিসদের গুরু শেখ মতিউর রহমান মাদানী তাদের দল, দলের প্রতিষ্ঠাতাকে নিয়ে মন্তব্য করায় এ অবস্থা। অথচ যখন দলের বিরুদ্ধে বলেনি তখন এরাই ছিল তাদের সবচেয়ে বড় সহযোগী।
আফসোস!!



এছাড়াও লেখক ও গবেষক মাওলানা আতাউল কারীম মাকসুদ তার ফেসবুক ওয়ালে লিখেন-

মাওলানা রফিকুল ইসলাম আফসারি—

অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি, কৌতুক, হাস্যরস ইত্যাদি দিয়েই তিনি বয়ান করেন৷ এবার বেরুলো তার আসল পরিচয়৷ উন্মোচিত হলো, তার মুখোশ৷ ছদ্মাবরনে আরও অনেকগুলো অথর্ব আজ বয়ানের মসনদ দখল করে রেখেছে!! তাদেরকে চিহিৃত করে জাতিকে রক্ষা করা আমাদের অন্যতম দায়িত্ব৷

শুনেছি, নোয়াখালি কোন্ আলিয়া মাদরাসার নাকি মুহাদ্দিস? এই বুঝি মুহাদ্দিসের অবস্থা!!
মাআ’জাল্লাহ৷

মাজহাবের প্রতি কেন তার এত অনিহা? ‘মাজহাব সারা ওয়ার্ল্ড থেকে ডিলেট হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ’ বলে তিনি এমন ব্যাটকালেন কেন?? তিনি কি ভেতরে ভেতরে লা-মাজহাবিদের হয়ে কাজ করছেন? অবাক হবো না, তিনিও যদি তাদের ফাঁদে পা দেন৷ ইতিপূর্বে আরও অনেকেই এভাবে পথ হারিয়ছেন৷ বড় কঠিন একটি মুহুর্ত পার করছি আমরা৷ শত্রুরা আজ মিত্র সেজে বসেছে৷ কুচক্রিরা আজ বন্ধুর বেশে কাজ করছে৷

সরলমনা মুসলিম জাতিকে নিয়ে ছিনিমিনি খেলা বন্ধ করুন, হে লেবাসধারী দুষ্টরা!


উল্লেখ্য যে,  এর আগেও তিনি কিছু উদ্ভট বক্তব্য দিয়ে জনমনে বিভ্রান্তির জন্ম দেন।

তিনি তার একটি বয়ানে আল্লাহকে অবমাননা (শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে) করে বলেন— “আমির হামজার জন্য দোয়া করবি, করবিনি? আমির হামজারে আল্লাহ ১৫০০’শ বছর চিন্তা করে কোরআনের দাওয়াত দেওয়ার জন্য আল্লাহ এই মেঘলাইটরে বানাইছে। আমার কথা মিথ্যা অইলে তোরা জুতা মারিছ। ফেরেশতারা তোমরাও ফটো উঠায়া রাখ।

এছাড়াও তিনি হুবহু কথাটি মিজানুর রহমান আজহারীর ক্ষেত্রেও বলেছেন” এ ছাড়াও নারীদের স্পর্ষকাতর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নিয়েও ব্যঙ্গাত্মক অঙ্গিভঙ্গি করে যুবকদের যৌন সুরসূরী দিয়ে থাকেন। এমনকি তার নিজস্ত্রীও এই ব্যঙ্গ থেকে বাঁচতে পারেননি। জাহান্নামের ভয়াবহ চিত্র শোনলে গা শিউরে ওঠে শ্রোতাদের । অথচ তিনি জাহান্নামের বর্ণনা দেন হরহামেশা অনেকটা হাস্যরস মিশিয়ে।

একইভাবে তিনি কেয়ামতের দৃশ্য ও ফেরেশতাদেরও কৌতুক করতে ছাড়েন নি। দেখা যায়, একটি ওয়াজে বলেন, মহান ফেরেশতা ইসরাফিল হলেন রেফারি আর আদম আ. হলেন মামলার আসামি।

এছাড়াও আরেকটি ওয়াজে দেখা যায়, তিনি হজরত মুসা আ. এর মুখের জড়তা এবং আল্লাহর সঙ্গে তার সংলাপ অভিনয় করে দেখাচ্ছেন। আর শ্রোতার দেদারছে তার অভিনয় দেখে হাসছে।

তিনি ওয়াজের ক্ষেত্রে হাসি-কৌতুক আর মনগড়া কিচ্ছা-কাহিনী বলতে এতটাই এগিয়ে যে, ইউটিউবে তার একাধিক বয়ান ফান্নি সিরিজ আকারে বিভিন্ন চ্যানেল থেকে আপলোড হচ্ছে প্রতিনিয়ত এবং ইউটিউবে তার যেকোনো ওয়াজের কমেন্ট দেখলে সচেতন মানুষ তার দৃষ্টি সম্পর্কে সহজেই ধারনা লাভ করতে পারবে।

অনেকেই মনে করেন, আফসারীর মতো ওয়ায়েজকে সাধারণ শ্রোতাদের এখনই বয়কট করা সময়ের দাবি। যে স্পষ্টত একজন দীন বিকৃৃতকারক।

প্রদত্ত ভিডিও-

https://www.facebook.com/ataulmaksud/videos/656816718074078/

মন্তব্য করুন