চারিদিকে ঐক্যের সূর; ঐক্য কি সম্ভব ?

প্রকাশিত: ৭:০১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০১৯

মতামত: চারিদিকে ঐক্যের সূর। তবে আদৌ কি ঐক্য সম্ভব? বাংলাদেশ তওবার ডাকের মাধ্যমে রাজনীতিতে আসেন হযরত মোহাম্মাদুল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর রহমতুল্লাহি আলাইহি। তওবার রাজনীতির সেই সূচনা লগ্ন থেকেই রাজনৈতিক মতভেদ শুরু হয় ওলামায়ে কেরামের মাঝে, যা আজও চলমান। তবে বর্তমান সময়ের রাজনৈতিক মতভেদ স্বার্থসিদ্ধির সঙ্গে জড়িত।

বাংলাদেশ ইসলামী রাজনীতিকদের ঐক্যের দিকে এখন শুধুই সময় নষ্ট করার মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে যেভাবে ওলামায়ে কেরামের মাঝে ঐক্যের সূর বেজে উঠেছে, ২০০০ সালেও ঠিক একইভাবে সূর বেজে উঠেছিল, বরং আরও গুরুত্ব সহকারে। ফলাফল- ওলামায়ে কেরামের ত্যাগ ও চোখের পানির ফল উঠেছিল গণতন্ত্রবাদী শক্তির ঘরে!

পরবর্তী সময়ে ওলামায়ে কেরাম বুঝতে পারেন সে সিদ্ধান্ত ভুল ছিল। কিন্তু সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার একই প্লাটফর্মে আসার মতো পথও তৈরি হয়নি। যদিও প্রত্যেক মঞ্চ থেকে বলা হয়েছিল আমরা ঐক্য চাই। এখনও সবাই বলে আমরা চাই। বাকি সবার অবস্থা এমন- ঐক্য চাই তবে আমার নেতৃত্বে হতে হবে। হঢাঁ ভাবটা এমনই। এরকম কেউ বলে না যে, যে কেউ ঐক্যের ডাক দিলেই আমি তার সঙ্গে যাব।

আমার নেতৃত্ব প্রয়োজন। আমার নেতৃত্বে ঐক্য হলে হবে, নাহয় নয়। সবার ঐক্যের ডাকের অবস্থা অনেকটা এমনই। এ ধরনের মানসিকতার কারণেই ঐক্য সম্ভব নয়। ওলামায়ে কেরামের মাঝে যে ধরণের মতভেদ রয়েছে, তা কখনই ঐক্যের পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না। তবুও ঐক্য হচ্ছে না! অথচ ওলামায়ে কেরামের মাঝে বড় কোনো সমস্যা নেই। তবুও হচ্ছে না! কিন্তু কেন? কারণ একটাই- চেয়ার আমার দখলে থাকবে। এই মানসিকতা থেকে বের হতে না পারলে ঐক্যের সূর বাজিয়ে কোনো ফায়দা হবে না।

আরও পড়ুন :

ইসলামী দলগুলোকে নির্বাচনী ঐক্যের আহবান মাও. মামুনুল হকের

মাও. মামুনুল হকের ঐক্য আহ্বান; শেখ ফজলুল করীম মারুফের বিশ্লেষণ

তা ছাড়াও বাংলাদেশে ইসলামবিরোধী শক্তিগুলো কখনই চাইবে না ওলামায়ে কেরামের ঐক্যের প্লাটফর্ম গড়ে উঠুক। নানা কৌশলে ক্ষমতা ও অর্থের লোভ দেখিয়ে, দুনিয়ালোভী একদল আলেমের মাধ্যমেই ঐক্যের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরী করায়। ফলে ঐক্যের মঞ্চ তৈরী হয়েও আবার তাসের ঘরের মতো ভেঙ্গে পড়ে।

আমি মনে করি বর্তমান সময়ে বড়দের ঐক্য নিয়ে আফসোস না করে, প্রতিনিধিত্বশীল ওলামায়ে কেরামকে একটা সিদ্ধান্তে আসা উচিৎ। সমস্যা হলো, প্রতিনিধিত্বশীল তরুণ ওলামায়ে কেরামের মাঝেও ঐ একই রোগ বাসা বেঁধেছে। কার নেতৃত্বে কে যাবে, উপদেষ্টা কারা হবে ইত্যাদি।

আরও পড়ুন : বিকল্প শক্তি গড়তে আলেমদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া সময়ের দাবি: আইয়ূবী

বড়রা ছোটদেরকে দেয়, ছোটরা বড়দের দেয় না। অতএব বড়দের রাজনৈতিক ঐক্য যে সম্ভব নয় তা মোটামুটি প্রমাণিত। বড়দের আমরা কী দেবো সেটা না ভেবে, আমাদের পরবর্তী প্রজন্মকে আমারা কী দেবো সেটা নিয়ে ভাবা উচিৎ বলে মনে করি। সেই লক্ষ্যে প্রতিনিধিত্বশীল তরুণ ওলামায়ে কেরামে সমন্বয় তারুণ্যনির্ভর একটি প্লাটফর্ম তৈরী করতে হবে। পরবর্তী প্রজন্ম যাতে দলে দলে ভাগ হয়ে না যায়। তারা যেনো ইসলাম বিজয়ের মিশনে সফল হতে পারে, সে পথ আমাদেরকেই দেখাতে হবে।

প্রতিনিধিত্বশীল তরুণ আলেমদের একসঙ্গে বসা দরকার, একসঙ্গে কফি আড্ডা হতে পারে, ট্যুর হতে পারে। কোনো কমিটি কিংবা ইস্যুর প্রয়োজন নেই, প্রয়োজন নেই কমিটিরও। প্রয়োজন কাছাকাছি আসা। একে অপরকে বোঝা। সম্পর্ক গড়া। সকল মতের ঊর্ধ্বে গিয়ে আমাদের মাঝে মাঝে একসঙ্গে বসতে পারলে, বড়রাও হয়তো কিছুটা উপলব্ধি করতে পারবেন আমাদের মনের চাহিদা কী।

বড়দের জন্য ঐক্যের নসিহত করে কোনো ফায়দা হবে বলে মনে করি না। এসব আমাদের থেকে তাঁরা আরও ভালো বোঝেন। এই অল্প বয়সে বড়দের ব্যাপারে বহু লিখেছি, বহু বলেছি, বহু চেষ্টা করেছি, ফলাফল শূণ্য। বারবার ফিরে আসতে হয়েছে হতাশ হয়ে। তবুও এখনও মনেপ্রাণে কামনা বৃহত্তর ঐক্যের। স্বপ্ন দেখি ওলামায়ে কেরামকে একমঞ্চে দেখার। জানি না কোনোদিন সেই স্বপ্ন আর কামনা বাস্তব হবে কি না।

লেখক : বিশ্লেষক, গবেষক, সমাজকর্মী

আরও পড়ুন :

জাতীয় ঐক্যকে আরো শক্তিশালী করার আহ্বান ফখরুলের

যেখানে বিএনপিতেই ভাঙনের সুর, ঐক্যফ্রন্টতো ভাঙবেই: কাদের

হা/

মন্তব্য করুন