শরীয়তপুরের আলাওলপুরে ৭জন আক্রান্ত, একজন মৃত : এলাকায় আতঙ্ক

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি

প্রকাশিত: ১২:২৪ অপরাহ্ণ, মে ২৯, ২০২০

শরীয়তপুরে গোসাইরহাট উপজেলার আলাওলপুর ইউনিয়নে ৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বেশ কয়েকটি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। সর্বশেষ গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ মে) দুজনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। এতে করে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ থেকে রানা (১৯) নামে এক যুবক সম্প্রতি গ্রামে ফিরে স্থানীয় জালালুপুরের টেকপাড় বাজারে এক দোকানে কাজ নেয়। গ্রামে ফিরা ওই কিশোরের করোনা পজিটিভ ছিলো। নারায়ণগঞ্জে থাকতে তার স্যাম্পল পরীক্ষা হয়েছিলো। কিন্তু গ্রামে গিয়ে সে বিষয়টা গোপন রেখে দোকানে কাজ নেয়।

ওই দোকানেরই মালিক মুহা. সিরাজ দেওয়ান (৫২) ঈদের পরেরদিন করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান। এতে সিরাজ দেওয়ানের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে এবং দুই দফায় সংস্পর্ষে আসা পরিবারের সবার স্যাম্পল নেওয়া হয়েছে।

টেকপাড় বাজারের ব্যবসায়ী বাহাউদ্দিন নাসিম জানান, ‘রানা নারায়ণগঞ্জে থাকতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলো। সেখানে থাকতে স্যাম্পল দিয়েছিলো। গ্রামের ফিরার পর তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে কিন্তু সে কাউকে কিছু বলেনি। আমরা বিষয়টা জানতাম না। গতকালকে দুজনের পজিটিভ খবর আসার পর বিষয়টা সবার নজরে আসে। এলকায় এখন আতঙ্ক বিরাজ করছে’।

স্থানীয় বাসিন্দা রাকিব রাইয়ান বলেন, ‘রানার রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর সে লুকিয়েছে বিষয়টা। তার দাবি পজিটিভ মানে যে আক্রান্ত হয়েছে এটা সে জানতো না। কিন্তু তার মোবাইলে মেসেজের মাধ্যমে তাকে রিপোর্ট জানানো হয়েছিলো’।

  • মৃত সিরাজ দেওয়ানের করোনা পজিটিভি ছিলো- এটা মোটামুটি নিশ্চিত বলেও তারা মন্তব্য করেন।

এ ব্যাপারে গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলমগীর হুসাইন জানান, ‘করোনা পজিটিভ আসছে এমন কারো সংস্পর্ষে যারা এসেছেন আমরা তাদেরকে ‘ফাইন্ড আউট’ করে আইসোলেশনে পাঠাচ্ছি। সংস্পর্ষে আসাদের বাড়ি লকডাউন করেছি’।

তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি মৃত ব্যক্তির করোনা পজিটিভ ছিলো কিনা আমরা এখনো নিশ্চিত নই, তবে তার পরিবারের সবার স্যাম্পল নেওয়া হইছে’।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুজনের রিপোর্ট এসেছে উল্লেখ্য করলে তিনি বলেন, ‘আলাওলপুর ইউনিয়নের ৭ জনের রিপোর্ট আমরা পেয়েছি। বাই নেম আমি তো সবাইকে চিনবো না। তবে ওই পরিবারের সবার স্যাম্পল নেওয়া হয়েছে। যে দুজনের রিপোর্ট গতকালকে এসেছে তারা অন্য পরিবারের সদস্য’।

মৃত ব্যক্তি স্থানীয় বাজারের ব্যবসয়ী ছিলো উল্লেখ্য করে পুরো এলাকা লকডাউন হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা সরকারি বিধিনিষেধ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। পুরো এলাকা লকডাউনের যে প্রটোকল ছিলো সেটা এখন নেই। তাই যারা সরাসরি আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্ষে আসছে তাদের ব্যপারে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি’। ‘‘যারা সংস্পর্ষে আসেনি তাদেরকে তো আমরা বন্দি করতে পারি না’’ বলেন তিনি।

তবে আলাওলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উসমান বেপারী জানিয়েছেন, ‘গতকালকে যে দুজনের রিপোর্ট এসেছে তাদের একজন সিরাজ দেওয়ানের মেয়ের জামাই (আলমগীর)। এছাড়াও গতকালকে আরো চারজনের স্যাম্পল নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উসমান বেপারী’।

এ বিষয়ে শরীয়তপুর জেলা সিভিল সার্জন অফিসার ডাঃ এস এম আব্দুল্লাহ -আল -মুরাদ জানান, ‘শরীয়তপুরে এখন পর্যন্ত ১২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে এরমধ্যে ৩ জনা মারা গেছে। এছাড়া ৪৬সুস্থ হয়েছে এবং ৭২জন বর্তমানে আইসোলেশনে আছে’।

আলাওলপুরের টেকপার বাজারে লকডাউন করা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যিনি আক্রান্ত হয়েছেন তাদের সংস্পর্ষে যারা এসেছেন তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হবে এবং তাদের বাড়ি এবং আশপাশ এলাকা তো লকডাউন করা হয়েছে’।

সম্প্রতি মৃত ব্যক্তি স্থানীয় বাজারে ব্যবসা করতে উল্লেখ্য করে ওই বাজার লকডাউন করা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সম্ভাব্য সংস্পর্ষে আসাদের আমরা কোয়ারেন্টাইনে নিতে পারি কিন্তু পুরো এড়িয়া লকডাউন করা যাবে না’।

/এসএস

মন্তব্য করুন