মুফতী ফয়জুল করীম একজন বিপ্লবী মহাপুরুষ : কাউন্সিলর হাজী ইবরাহীম

প্রকাশিত: ৫:০৯ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২০

এইচ এম আবু বকর : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ ফয়জুল করীমকে নিজের আদর্শ উল্লেখ করে আজ নিজের ফেইসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্টাটাস দেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৬৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাজী ইবরাহীম। তিনি তাতে শায়খে চরমোনাইকে একজন বিপ্লবী নেতা, মুসলিম উম্মাহর দরদী অভিভাবক, কল্যাণ রাষ্ট্রের স্বপ্নদ্রষ্টা ও তরুণদের অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে উপস্থাপন করেন।

পাঠকের জন্য আমরা তার ফেইসবুক স্টাটাসটি হুবহু তুলে ধরছি,

শায়খে চরমোনাই এক বিপ্লবী মহাপুরুষ। আমার জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপেই রয়েছে যার প্রভাব, বলা যায় বর্তমান সময়ে যে মানুষটি গোটা মুসলিম উম্মাহর জন্যে এক রহমত স্বরূপ।

যিনি সমগ্র মানুষের কল্যানের কথাই ভাবেন এবং যিনি এই উম্মত [ নবী মোহাম্মদুর রসুলুল্লাহ সাঃ উম্মত ] এর ব্যাথায় মানবতার মুক্তির জন্যে বাংলার টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া পর্যন্ত বিরামহীন ভাবে মানুষের দ্বারে দ্বারে ছুটে চলেন।

হৃদয় ভর্তি দরদ নিয়ে যিনি মানুষকে বোঝান, মানুষকে মুক্তির পথ দেখান, এবং গুনাহ [ অন্যায়-পাপাচার, হোক সেটা ব্যাক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক কিংবা রাষ্ট্রীয় ] ছেড়ে দেবার কথা বলেন।

যিনি একটি কল্যানকামী রাষ্ট্রের চিন্তা করেন, যিনি চান রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট থেকে পিয়ন পর্যন্ত সকলেই আল্লাহভীরু হোন, সকল শ্রেণি পেশার মানুষ গুলো যেন স্রষ্টামুখি হোন।

কারণ, তিনি বিশ্বাস করেন যে কোন সৃষ্টিই যদি তার স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞ না হয় তাহলে তিনি বান্দার [ জনগনের ] প্রতি কৃতজ্ঞ হবেন কি ভাবে?

সে জন্যে রাষ্ট্রের উচিত দেশের এই মহামারি থেকে মুক্তি পেতে অতীতের সমস্ত গুনাহ [ যেমন রাষ্ট্রীয় ভাবে সুদ ভিত্তিক ব্যাবস্থা কে পরিহার করে জাকাত ভিত্তিক সুদ মুক্ত ঋণ ব্যবস্থা কে চালু করা, রাষ্ট্রীয় ভাবে সব ধরনের অশ্লীলতাকে পরিহার করা, মদ জুয়াকে নিষিদ্ধ করা, সকল প্রকার জুলুম নির্যাতন কে রাষ্ট্রেীয় ভাবে বন্ধ করা, সর্বোপরি একটি ইনসাফ ও ন্যায় ভিত্তিক রাষ্ট্র গঠন করা] কে ত্যাগ করে জাতীয় ভাবে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে মানব রচিত সংবিধান তথা গনতন্ত্র কে পরিহার করে কুরআনুল কারীম কে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করা।

তাহলেই কেবল আমাদের মুক্তি মিলবে এবং মদিনার সেই শান্তির সু বাতাস বইবে আমাদের মাঝে। আমরা তখন সমাজে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারবো।

শায়খের এই নববী চিন্তা গুলোই আমাকে বেশি প্রভাবিত করে, যিনি নববী আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে সর্বদাই একটি ইসলামি আদর্শ সমাজ বিপ্লবের স্বপ্ন দেখেন এবং আমাদেরকেও দেখান।

যার প্রতিটা বক্তব্যই আমাদের মধ্যে একটি কল্যানকামী ইসলামি সমাজ বিপ্লবের স্বপ্নকে জাগ্রত করে তোলে, সেই সাথে এই দেশের আপামর তৌহিদি জনতাকেও উজ্জীবিত করে।

প্রিয় শায়েখ! লক্ষ তরুণদের অনুপ্রেরণার বাতিঘর আপনি! আপনার কোন ভয় নেই, কোন দুশ্চিন্তা নেই, আপনি বুকে সাহস রেখে সমস্ত রক্তচক্ষু কে উপেক্ষা করে সমস্ত বাঁধার পাহার কে ডিঙিয়ে সামনে এগিয়ে চলেন ইনশাআল্লাহ দেখবেন একদিন না একদিন আমরা আমাদের মঞ্জিলে মকসুদ পৌঁছুবোই।

দোয়া করি আল্লাহ তায়ালা আপনার হায়াতকে আমাদের উপর দীর্ঘায়িত করুক। নাছরুম মিনাল্লাহি ও ফাতহুন ক্বারীব ও বাশ্বিরীল মুমিনীন।

মুফতী সৈয়দ ফয়জুল করীম নিয়ে আরও কিছু মূল্যায়ন পড়ুন –

মুফতী ফয়জুল করীম সম্পর্কে হাবিবুর রহমান মিছবাহর মূল্যায়ন

মুফতী ফয়জুল করিমকে নিছক বক্তা ভাবা বেমানান

মুফতী ফয়জুল করিম : সংসদে প্রয়োজন এই বজ্রকন্ঠের

মুফতী ফয়জুল করিম : আপনাকে সালাম!

মুফতী সৈয়দ ফয়জুল করীম : নেতৃত্বগুনে অনন্য

সৈয়দ ফয়জুল করীম : একজন নিরহংকারী শায়খ

#এইচআরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন