কান্নাজড়িত কণ্ঠে ইসলামে ফিরে আসার গল্প শুনালেন সাংবাদিক তাসের মাহমুদ

প্রকাশিত: ৯:০৭ অপরাহ্ণ, মে ১৪, ২০২০

নিউইয়র্কে বসবাসরত প্রতিথযশা সাংবাদিক তাসের মাহমুদ। কিছুদিন আগেও যিনি ছিলেন একজন অবিশ্বাসী নাস্তিক। ধর্ম বা ইসলামে তার কোন বিশ্বাস ছিলো না। ফেসবুকসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন লেখালেখিতেও তিনি নিজেকে অবলীলায় নাস্তিক পরিচয় দিতেন এবং বিজ্ঞানমনস্ক একজন মানুষ বলেই নিজেকে প্রকাশ করতেন।

নিউইয়র্কে করোনা প্রভাব সৃষ্টিরর পর গত ৪ এপ্রিল করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েন বিশিষ্ট এ সাংবাদিক। এমনকি একপর্যায়ে তাকে যেতে হয় ভেন্টিলেশনে। অনেকটাই তিনি নিজের জীবনের আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু করোনার প্রকোপ থেকে মুক্ত হয়ে ভেন্টিলেশন থেকে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন তিনি। সুস্থ হয়ে ফিরেছেন তাঁর স্ত্রীও।

কেবল করোনো থেকে সুস্থ হয়ে ফেরেননি বরং একইসাথে তিনি ফিরে এসেছেন তার নাস্তিকতার জীবন থেকেও। এবং অকপটেই তিনি এখন নিজেকে একজন পাক্কা ধার্মিক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ছেন এবং ধর্মের খুটিনাটি প্রত্যেকটি বিষয়ও তিনি মেনে চলছেন।

কিভাবে তিনি তার এই নাস্তিকতার জীবন থেকে ধার্মিক জীবনে ফিরে এলেন এ বিষয়ে বেশ কয়েকটি ভিডিও সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তিনি। সেখানে তিনি বলেছেন, করোনা আক্রান্ত হয়ে ভেন্টিলেশনে যাওয়ার পর পবিত্র কুরআনের বেশ কিছু আয়াত তিনি অচেতন অবস্থায় বিড়বিড় করে পড়েছেন। এমনটাই তাকে জানিয়েছেন তার চিকিতসায় থাকা নার্স এবং ডাক্তাররা। তিনি সুস্থ হওয়ার পর এক ইহুদী নার্স তাকে এ বিষয়ে জানিয়েছে।

সাক্ষাৎকারে সাংবাদিক তাসের মাহমুদ আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, এ কথা শোনার পরে আমার মনে হয়েছে আমার আসলে প্রভুর দিকে ফিরে যাওয়া উচিত এবং আমার বিশ্বাসী হওয়া উচিত। “আই হ্যাভ টু বি ফেইথফুল টু মাই গড”।

তিনি বলেন – আমার বয়স ৬৭ বছর। করোনা আক্রান্ত হয়ে এ বয়সে সাধারণত কেউ ফেরে না। ডাক্তাররা আমাকে এতটুকু বলেছেন যে, আমি ধুমপান করি না সেজন্যই হয়ত আমার রিকভার হওয়াটা সম্ভব হয়েছে। তবে আমি আমার প্রভুর কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করি যে তিনি আমাকে সুস্থ করে ফিরিয়ে এনেছেন এবং বিশ্বাসীদের অন্তর্ভূক্ত করেছেন।

করোনা বিষয়ে লোকদের উদ্দেশ্যে কোন বার্তা আছে কি না জানতে চাইলে তাসের মাহমুদ আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নাভেজা কন্ঠে বলেন- দেখুন আমি সুস্থ হয়ে ফিরেছি কিন্তু এমন অনেককে আমি হারিয়ে ফেলেছি যাদের সাথে নিয়মিত উঠাবসা ছিল যাদের সাথে ভালোবাসার বিনিময় ছিল তাদেরকে আমি আর ফিরে পাইনি। আমি ভালো করেই জানি আমি কিভাবে আক্রান্ত হয়েছি এবং আমি মনে করি যে আমি ঠিকমত সোশ্যাল ডিসটেন্স মেইনটেন করিনি তাই করোনা আক্রান্ত হয়েছি। আমি সবার প্রতি অনুরোধ জানাবো আপনারা নিয়ম মেনে চলুন এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন।

একইসাথে তিনি বলেন, করোনা আসলে কাকে কিভাবে আক্রান্ত করবে এটা বোঝার কোন উপায় নাই। তাই সবচেয়ে ভালো মনে হয় ঘরে থাকাটাই হলো করোনা থেকে প্রতিরক্ষা পাওয়ার সবচেয়ে পরিপূরক দিক। তাই, আপনারা সবাই ঘরে থাকুন এবং নিজেদেরকে সুস্থ রাখুন।

এছাড়াও তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়ে বলেন, আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন আমি যেন পরিপূর্ণভাবে সুস্থ হয়ে আবার আপনাদের মাঝে ফিরে আসতে পারি।

প্রসঙ্গত: সাংবাদিক তাসের মাহমুদ দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে নিউইয়র্কে বসবাস করে আসছেন। তিনি একই সাথে সাংবাদিক সমাজসেবক। তিনি সাপ্তাহিক রানার-এর প্রধান সম্পাদক ও নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি ছিলেন।

#আরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন