সাঈদীমুক্তি ইস্যুতে বাবুনগরী! : বাংলাদেশ প্রতিদিনকে ১০ লক্ষ টাকার চ্যালেঞ্জ

প্রকাশিত: ২:৪৭ পূর্বাহ্ণ, মে ১৩, ২০২০

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদ্রাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে জামায়াতের নায়েবে আমীর মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর মুক্তি ইস্যুতে জড়িয়ে প্রকাশ করা সংবাদকে মিথ্যা দাবি করে দৈনিক পত্রিকা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বাবুনগরীর পক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকার চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে।

সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে বাবুনগরীর পক্ষে দশ লক্ষ টাকার চ্যালেঞ্জ করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ হাটহাজারী থানার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জী।

চ্যালেঞ্জ বিষয়ে তিনি বলেন, সাঈদির মুক্তি বা অন্য কোন বিষয়ে জামায়াতে ইসলামীর সাথে আল্লামা বাবুনগরীর রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছেন মর্মে বাংলাদেশ প্রতিদিনে যেই রিপোর্ট করা হয়েছে তা নির্জলা মিথ্যাচার। আমরা এ নির্জলা মিথ্যাচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

আরও পড়ুন : রক্তে রাঙানো ৫ ই মে : শাপলা চত্বর ও আল্লামা বাবুনগরী

তিনি বলেন- জামায়াতে ইসলামীর সাথে আল্লামা বাবুনগরীর নূন্যতম সম্পর্ক নেই। বরং সর্ব সময় আল্লামা বাবুনগরী তার বয়ান বক্তৃতা ও লেখনীর মাধ্যমে সর্ব সময় জামায়াতে ইসলামীর ভ্রান্ত আকিদা জাতির সামনে তুলে ধরে জাতিকে সতর্ক করে আসছেন। সাঈদীর মুক্তির বিষয়ে জামায়াতের কোনো নেতা কর্মীর সাথে আল্লামা বাবুনগরী কোনো বৈঠক করেছে তা যদি কেহ প্রমাণ করতে পারে তাহলে তাকে দশ লক্ষ টাকা দেওয়া হবে।

অপরদিকে এই সংবাদ বিষয়ে জোড়ালো প্রতিবাদ ব্যক্ত করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলদেশের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী।

তিনি এক বিবৃতিতে বলেছেন, সাম্প্রতিকালে কতিপয় অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়া নানা কল্পকাহিনী তৈরী করে, মিথ্যা ও ভিত্তিহীন রিপোর্ট সাজিয়ে দেশের শীর্ষ আলেম, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব, প্রখ্যাত শায়খুল হাদীস, দারুল উলুম হাটহাজারীর মুঈনে মুহতামিম আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীকে বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ করার গভীর ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, আজ ১৩ মে বুধবার বাংলাদেশ প্রতিদিনের অনলাইন সংস্করণে “সাঈদীর পুত্রের সাথে বৈঠক করা বিতর্কিত সেই রকি বড়ুয়া গ্রেফতার” শীর্ষক খবরে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের যে অংশ জড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তহীন ও বিভ্রান্তকর। আমরা এই মিথ্যা রিপোর্টের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তিনি জোর দিয়ে বলেন- মাসুদ সঈদী নামে কারো সাথে আল্লামা বাবুনগরীর পরিচয়ও নেই।

এছাড়াও গ্রেফতার হওয়া রকি বড়ুয়াকে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর এজেন্ট দাবি করে আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন- এমন একজনের সাথে দেশের সর্বজন শ্রদ্বেয় আপসহীন সংগ্রামী মুরব্বী আলেম আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীকে জড়ানো চরম অন্যায় ও মানহানিকর।

মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী আরো বলেন – বস্তুনিষ্ঠ রিপোর্ট করে সংবাদ প্রচার করা একজন সাংবাদিকের নৈতিক দায়িত্ব। অথচ আমরা লক্ষ্য করছি যে, কতিপয় সংবাদকর্মী উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে একটি কুচক্রীমহলের ইন্দনে কোন ধরণের সত্যতা যাছাই না করে হেফাজত মহাসচিবের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক রিপোর্ট করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার চক্রান্ত করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, এই মিথ্যা রিপোর্ট করে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীকে বিতর্কিত করার চক্রান্ত করায় অবিলম্বে বাংলাদেশ প্রতিদিন কর্তৃপক্ষকে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় বাংলাদেশ প্রতিদিনের বিরুদ্ধে মানহানি মামলাসহ দেশের তৌহদী জনতা দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে।

অপরদিকে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে ১০ লক্ষ টাকার চ্যালেঞ্জ দেওয়া হেফাজতে ইসলামেল বাংলাদেশ হাটহাজারী থানার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জী পাবলিক ভয়েসকে বলেন, দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম আল্লামা বাবুনগরীর নামে নির্জলা মিথ্যাচার করে বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকা তার মানহানি করেছে। অনতিবিলম্বে এই মিথ্যা রিপোর্টের জন্য যদি কর্তৃপক্ষ ক্ষমা না চায় তাহলে এই পত্রিকার বিরুদ্ধে কোটি টাকার মানহানী মামলা করব। এই নির্জলা মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে এ দেশের লক্ষ কোটি তৌহিদি জনতা দূর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে বলেও বলেন তিনি।

প্রসঙ্গত : গতকাল ১২ মে বাংলাদেশের বহুল প্রচারিত দৈনিক ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’র অনলাইন সংস্করণে “সাঈদী পুত্রের সাথে বৈঠক করা বিতর্কিত সেই রকি বড়ুয়া গ্রেফতার” শীর্ষক একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। যে সংবাদে দাবি করা হয় – রকি বড়ুয়ার কাছ থেকে হেফাজতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মহাসচিব জুনাইদ বাবুনগরীর সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের ছবি উদ্ধার করা হয়েছে।

বাংলাদেশ প্রতিদিনের সংবাদে বিস্তারিত বর্ণনায় লেখা হয় “মঙ্গলবার (১২ এপ্রিল) সেহেরির সময় চট্টগ্রাম নগরের পাঁচলাইশ থানাধীন একটি বাড়ি থেকে র‌্যাবের একটি দল তাকে গ্রেফতার করেছে বলে র‌্যাব ও গোয়েন্দা সূত্র নিশ্চিত করেছে। জানা যায়, এসময় রকি বড়ুয়ার আরও চার সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার করা হয় বাংলাদেশ ও ভারতের রাজনৈতিক নেতা, মন্ত্রী-এমপিসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে তার অসংখ্য ছবি, তাদের সিল, প্যাড এবং সাঈদীপুত্র মাসুদ সাঈদী, তারেক মনোয়ার ছাড়াও হেফাজতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মহাসচিব জুনাইদ বাবুনগরীর সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের ছবি।”

আরও পড়ুন : 

জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে আল্লামা বাবুনগরীর দৃষ্টিভঙ্গি

জামায়াত-শিবির আমাকে গুলি করেছিলো, আমি সাঈদীর মুক্তি চাইনি : মুহিববুল্লাহ বাবুনগরী

করোনা রোগীদের সেবা দেওয়া ইবাদত হিসেবে গণ্য হবে : আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

#এইচআরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন