মসজিদ খুলে দেয়া প্রসংশার তবে সতর্ক থাকতে হবে : পীর সাহেব চরমোনাই

প্রকাশিত: ৪:৪৩ অপরাহ্ণ, মে ৬, ২০২০

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, সরকার ধীরে ধীরে সবকিছু খুলে দিচ্ছে। এ মুহুর্তে মসজিদগুলো বন্ধ রাখার কোন যৌক্তিকতা নেই। রমযান মাসের সাথে মসজিদের সম্পর্ক খুবই গভীর। মসজিদগুলো খুলে দেয়া অবশ্যই প্রসংশানীয় সিদ্ধান্ত। তবে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

আজ এক বিবৃতিতে পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, যে মুহুর্তে দেশব্যাপী করোনা মহামারী আকার ধারণ করেছে এবং ক্রমেই তা মারাত্মক রূপ নিচ্ছে, এমতাবস্থায় মুসল্লিদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সতর্কতার সাথে মসজিদে যেতে হবে। বাসা থেকে উযূ করে মসজিদে যেতে হবে এবং ফরয নামাজ ও তারাবি পড়ে বাসায় ফিরে যেতে হবে।

স্বাভাবিকের চেয়ে একটু ফাঁকা ফাঁকা হয়ে কাতারবন্দী হতে হবে। অসুস্থ ব্যক্তি, বেশি বয়স্ক ও নাবালেগ বাচ্চারা মসজিদে যাবে না।

পীর সাহেব মসজিদ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, পাঁচওয়াক্ত নামাজের পূর্বে মসজিদকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে হবে এবং জীবানুনাশক দিয়ে জীবানুমুক্ত করার ব্যবস্থা করতে হবে।

পীর সাহেব চরমোনাই করোনা মহামারী থেকে পরিত্রাণের জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে সবাইকে বেশি বেশি কান্নাকাটি করার আহ্বান জানান।

প্রসঙ্গত : আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৭ মে) জোহরের নামাজের পর থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে মসজিদগুলোতে জামাতে নামাজ পড়া যাবে বলে নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রনালয়। তবে নামাজ পড়ার জন্য স্বাস্থ্যবিধিসহ কিছু নির্দেশাবলী বাধ্যতামূলকভাবে মেনে চলতে হবে বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ জায়েদ।

তিনি বলেন, ‘আগামীকাল জোহরের নামাজের পর থেকে সারাদেশের মসজিদে মুসল্লিরা নামাজ পড়ার সুযোগ পাবেন। তবে মসজিদে নামাজ পড়ার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য অধিদফতর নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে সুনির্দিষ্ট কিছু শর্তাবলী থাকবে। এসব শর্তাবলির কথা সারাদেশের মসজিদ পরিচালনা কমিটিকে জানিয়ে দেয়া হবে।

মন্তব্য করুন