আগামী শুক্রবার মুসুল্লিরা মসজিদ খুলে নিবে: মুফতী ফয়জুল করীমের হুশিয়ারি

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি

প্রকাশিত: ১২:০২ অপরাহ্ণ, মে ৫, ২০২০

সরকার যদি মসজিদ খুলে না দেয় তাহালে আগামী শুক্রবার জুমার নামাজে মুসুল্লিরা মসজিদে খুলে নিবে বলে সরকারকে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম।

সোমবার (৪ মে) মুফতী ফয়জুল করীম তার একান্ত সহকারী আবু বকর সিদ্দিক এর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তায় এ হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

ভিডিও বার্তায় তিনি- ‘গার্মেন্টস খোলা, শপিংমল খোলা, বাজার খোলা কিন্তু মসজিদ কেন বন্ধ থাকবে’ এমন প্রশ্ন তুলে সরকারের কঠোর সামলোচনা করেন। এছাড়াও কওমী মাদরাসায় সরকারের নামমাত্র অনুদানেরও সমালোচনা করেন তিনি।

একেকটা মাদরাসায় মাত্র ১৫ হাজার (প্রায়) টাকার মতো বরাদ্দ দিয়ে সরকার কওমী মাদরাসাকে হেয় প্রতিপন্ন করেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন এসময়।

ভিডিও বার্তায় মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, আমাকে অনেকেই প্রশ্ন করেছেন শপিংমল খোলা হয়েছে, এর আগে গার্মেন্টস খোলা হয়েছে, দোকানপাট খোলার অনুমতি দিচ্ছে তাহলে মসজিদ কেন খুলে দিচ্ছে না। আমি বলবো, ইসলাম বিদ্বেষীরা মসজিদ খোলার অনুমতি দিবে না বরং মুসলমানদেরকে মসজিদ খুলতে হবে।

ফয়জুল করীম বলেন, মসজিদ খোলার অনুমতি দিবে না বরং মুসলমানদেরকেই মসজিদ খুলতে হবে। যদি সরকার খুলে তো ভালো কথা, যদি না খুলে তবে আগামী জুম্মার মসজিদে আমরা সকল মুসলমান একত্রিত হয়ে মসজিদে নামাজ পড়বো।

‘শনাক্ত করবেন কিভাবে মসজিদ থেকে সংক্রমণ হয়েছে?’ এমন প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, এখনো শপিং মল খোলা, বাজার-ঘাট খোলা, গার্মেন্টস খোলা হয়েছে আগেই। নির্বিঘ্নে মানুষ যাতায়াত করতেছে, ঘুরতেছে, একত্রিত হচ্ছে। সেখানে মসজিদ থেকে সংক্রমণে হবে এই যুক্তি খোড়া যুক্তি, এটা অযৌক্তি যুক্তি- এটা কোনো মুমিন মুসলমান মানতে পারে না।

কাজেই আমি সরকারকে বলবো যদি আপনি আপনার সম্মান ইজ্জত, আপনার অবস্থান আপনি ঠিক রাখতে চান; তাহলে ঘোষণা দিন যে, আগামী শুক্রবার সমস্ত মুসল্লীরা পাক-পবিত্র হয়ে এবং সর্তকতা অবলম্বন করে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করবে। যদি ব্যর্থ হন তাহলে মুসলমানরা তাদের সিদ্ধান্ত তারা নিয়ে নিবে।

কওমী মাদরাসায় নামমাত্র বরাদ্দের সমালোচনা করে মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, কওমী মাদরাসার নামে যে তামাশা করেছে সরকার; আমি মনে করি এই হয় প্রতিপন্ন করা ঠিক হয়নি। যেখানে অনেক মাদরাসায় প্রতি মাসে ঝাড়ু ক্রয় করার জন্য কিংবা হারপিক ক্রয় করার জন্য হাজার হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয় সেখানে মাত্র ১৫ হাজার টাকা করে সরকার একটি বরাদ্দ দিয়েছে, এটা বরাদ্দ না- এটা কওমী মাদরাসাকে হেয় করা।

তিনি আরো বলেন, আপনারা জানেন কওমী মাদরাসা সরকারি অনুদান কিংবা অনুকম্পায় চলে না। কোনো সরকারি অনুগ্রহ গ্রহণ করে না। আল্লাহর উপর ভরসা করে কওমী মাদরাসা আগেও চলছে সামনেও চলবে ইনশাআল্লাহ।

বিভিন্ন এলাকায় ত্রাণের টাকা ও খাদ্রসামগ্রী আত্মসাতের সমালোচনা করে মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, আজকে ত্রাণ নিয়ে যে লুটপাট, যে চুরি চলতেছে। আমরা হতাশ হয়ে গেছি। এরকম যদি হয় দেশ উন্নয়ন হবে কিভাবে? আমি সরকারকে বলবো, চুরি বন্ধ করুন। যাদের মাধ্যমে ত্রাণ প্রাপ্য এমন ব্যক্তিদের কাছে পৌঁছানো যায় এমন ব্যক্তিদের মাধ্যমে প্রাণ পৌঁছানোর ব্যবস্থা করুন। যদি আপনি ব্যর্থ হন তাহলে আমি মনে করব সরকারের এই চেয়ারে থাকার অধিকার আপনার নেই।

ভিডিও বার্তায় সবশেষে তিনি সামর্থবানদের প্রতি এলাকার দূর্গত, অসহায়, দারিদ্রপীড়িত ও ইমাম-উলামাদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানানা। তিনি বলেন, অনেক আলেম ইমামতি করতেন, মক্তবে পড়াতেন। দীর্ঘদিন পর্যন্ত তাদের কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকার কারণে তারা হতদরিদ্র অবস্থায় জীবন কাটাচ্ছে।

সেহেতু আমি সকল মুমিনদেরকে বলবো এরকম দরিদ্র আলেমদের পাশে আমরা দাঁড়াই। গরীব দুখী মেহনতী মানুষের পাশে আমরা দাঁড়াই। যেন কোনো অবস্থাতেই কোনো মানুষ না খেয়ে থাকে না।

এরকম পরিস্থিতি যেন সৃষ্টি না হয়, যেখানে যে ব্যক্তি দুরবস্থায় আছে আমরা খোঁজ নিয়ে তার পাশে দাঁড়াই। আর খাস করে যারা ত্রাণ বিতরণ করতেছেন। যে সংগঠন-সংস্থাই হোক না কেন আমি সকলকে ধন্যবাদ জানাই।

খাস করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রথম থেকে এ পর্যন্ত যেসব কাজ করতেছে আল্লাহ পাক তাদেরকে কবুল করেন এবং করোনায় মৃত ব্যক্তিকে যেভাবে কাফন দাফনের ব্যবস্থা করতেছে আমি মনে করি আজীবন এদেরকে এদেশের মানুষ স্মরণ রাখবে। আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন আমাদেরকে আরো বেশি খেদমত করার তৌফিক দান করেন। আমিন।

এটিও পড়ুন: মসজিদ সরকারি ফয়সালায় চলে না: মুফতী ফয়জুল করীম

পূর্ণাঙ্গ ভিডিও বক্তব্য

মন্তব্য করুন