৩৪ জনের পুনঃপরীক্ষায় ৩০ জনেরই নেগেটিভ!

প্রকাশিত: ১০:১২ অপরাহ্ণ, মে ১, ২০২০

কুষ্টিয়া ও যশোরে নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ ধরা পড়া ৩৪ জনের মধ্যে ৩০ জনই করোনা আক্রান্ত নন। বৃহস্পতিবার রাতে পুনঃপরীক্ষার পর আইইডিসিআর এমন প্রতিবেদন দিয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গার সিভিল সার্জন ডা. এএসএম মারুফ হাসান। তবে তিনি আগের পজিটিভ আসা রিপোর্ট নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষের এমন কাণ্ডজ্ঞানহীন কাজ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে চুয়াডাঙ্গা জেলাজুড়ে। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয়েছে তুমুল সমালোচনা ও বিতর্ক।

অনেকে এ ঘটনায় জড়িতদের বিচারের দাবি তুলছেন। গোটা বিষয়টি নিয়ে বিব্রত চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগও।

চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর গ্রামের একজন কিডনি রোগী গত ৬ থেকে ১০ এপ্রিল পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি ঢাকাতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হন।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. এএসএম মারুফ হাসান বলেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা পজেটিভ আসা ৬ জন ও কুষ্টিয়া মেডিকেলের ২৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ফের পরীক্ষার জন্য আইইডিসিআরে পাঠানো হয়। সেখান থেকে পাঠানো রিপোর্টে যশোরের ৬ জনের মধ্যে ৩ জন ও কুষ্টিয়ার ২৮ জনের মধ্যে ২৭ জনেরই করোনা নেগেটিভ আসে।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশের এমন সংকটময় মুহূর্তে জনগণের একমাত্র নির্ভরতার জায়গা স্বাস্থ্য বিভাগ। অথচ তাদের এমন তামাশা কেউই প্রত্যাশা করেনি।

কুষ্টিয়া জেলা সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এমন ঘটনায় নিজেরাই বিব্রত। তবে করোনা পরীক্ষার সময় ল্যাবের দায়িত্বরতদের কোনো ত্রুুটি বা পরীক্ষার যন্ত্রপাতিতে কোনো সমস্যা ছিল কি না তা খতিয়ে দেখতে আইইডিসিআর থেকে উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল এসেছে। খোঁজখবর শেষেই প্রকৃত তথ্য জানা যাবে।

এমএম/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন