এখনও আতঙ্কে দিন কাটছে সেই উহানের বাসিন্দাদের

প্রকাশিত: ১২:২৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৭, ২০২০

করোনার থাবা এখন অনেকটাই গুটিয়ে গেছে চীনের উহানে। সীমিত আকারে তুলে নেয়া হয়েছে শহরটি থেকে লকডাউন। নগরবাসীকে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরিয়ে দিতে সব চেষ্টাই করছে কর্তৃপক্ষ। তবে আতঙ্কে বাড়িতেই বেশির ভাগ সময় কাটছে তাদের।

দেড় মাসের বেশি সময় লকডাউনে থাকার পর, আস্তে আস্তে প্রাণ ফিরে আসছে করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল উহান শহরে। খুলছে দোকানপাট, স্বাভাবিক সময়ের মতোই রাস্তায় বেরোচ্ছে মানুষ। সীমিত আকারে খুলে দেয়ার পর ঐতিহ্যবাহীেএই শহরটি ফিরে পাচ্ছে তার আগেরা চেহারা। কিন্তু শঙ্কা আর ভয়ে ১০ লাখ বাসিন্দার এই শহরে বাইরে বেরোচ্ছেন খুব কম লোকই। কর্তৃপক্ষও বলছে, শহরবাসীকে সাবধানে থাকতে হবে আরো কিছুদিন।

মাছ-মাংস আর সবজির বাজারে সেই পরিচিত ভিড় আর নেই। সবচেয়ে বিপদে আছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। দিনের পর দিন দোকান ক্রেতাশূন্য থাকায় ব্যবসা বন্ধ হওয়ার উপক্রম তাদের।

দেখতেই পাচ্ছেন, দোকান খুলেছি ঠিকই, কিন্তু কেউই আর আগের মতো কিনতে আসছে না। কারণ সবাই আসতে ভয় পাচ্ছে। এরকম চলতে থাকলে হয়তো দোকান বন্ধ করে দেয়া ছাড়া উপায় থাকবে না।

তবে কেউ কেউ আশা করছেন, শিগগিরই হয়তো দিন বদলাবে।

একদিন হয়তো সব ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু জীবন বাঁচানোর কথা সবার আগে ভাবতে হবে। কিছুদিন ক্ষতি মেনে নিতে রাজি আছি আমি।

বেশ কিছুদিন ধরে চীনে করোনায় মৃত্যুর হার একদম কম। নতুন করে আক্রান্তও নেই বললেই চলে। তাই উহানবাসীর আশা হয়তো শিগগিরই পূরণ হবে।

এমএম/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন