অবাধ শারীরিক সম্পর্কে ছড়াতে পারে করোনা

প্রকাশিত: ১১:২৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০২০

করেনা ভাইরাস নিয়ে সৃষ্ট বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠেছে স্বামী-স্ত্রী বা যে কোন শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হলে কী একজনের শরীর থেকে অন্যজনের শরীরে করোনার সংক্রমণের সম্ভাবনা আছে? এ বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করেছে ইউনিভার্সিটি অব ইস্ট অ্যাঙ্গলিয়ার একদল গবেষক।

মূলত করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বিশ্বজুড়ে এখন সবাইকে নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব এবং একাকী থাকার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। অনেকেই ঘনিষ্ঠ হওয়া থেকেও বিরত থাকারও আহ্বান জানাচ্ছেন। বিশেষ করে যারা ভিন্ন ভিন্ন নারীদের সাথে মিশে থাকেন তাদের জন্য করোনা বয়ে নিয়ে আসতে পারে ভয়াবহ পরিনাম এমনটাই প্রমানিত হয়েছে। কারণ চুম্বন এবং ঘণিষ্ট স্পর্শ করোনা ছড়ানোর অন্যতম মাধ্যম।

ইউনিভার্সিটি অব ইস্ট অ্যাঙ্গলিয়ার অধ্যাপক ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ পল হান্টার এবং অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা একমত হয়েছেন যে, গৃহে নিয়মিত সঙ্গী নয়; এমন কারও সঙ্গে বর্তমানে যৌনতায় লিপ্ত হওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত। তারা মূলত বুঝাতে চেয়েছেন বৈধ এবং নিয়মিত সঙ্গী তথা স্ত্রী ছাড়া কারও সাথে যৌন সম্পর্ক এ মুহুর্তের জন্য বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

তিনি বলেন, যদি আপনি এবং আপনার সঙ্গীর শরীরে কোনো লক্ষণ না দেখা যায়, তাহলে শারীরিক সম্পর্ক এড়ানোর কারণ নেই। তবে শারীরিক দুর্বলতা অনুভব করলে যৌন সম্পর্ক ও অন্যান্য যেকোনও ধরনের ঘনিষ্ঠতা থেকে বিরত থাকাই উত্তম।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যৌনতার মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। কিন্তু আমরা ইতোমধ্যে অবগত হয়েছি, শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত শারীরিক এই অসুস্থতা সংক্রমিত ব্যক্তির নিবিড় সংস্পর্শে এলে অন্য যেকারও শরীরে তা বিস্তার ঘটাতে পারে।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের সরকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা যৌনতার বিষয়ে বেশ কিছু নির্দেশনা প্রকাশ করেছেন। এতে বর্তমান পরিস্থিতিতে কোন ধরনের যৌনতা নিরাপদ এবং অনিরাপদ; সে ব্যাপারে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

অধ্যাপক হান্টার বলেন, করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সহায়তা করার জন্য অন্যদের সঙ্গে অপ্রয়োজনীয় সম্পর্ক থেকে আমাদের সকলের দূরত্ব বজায় রাখা উচিত। আমরা সকলেই জানি চুম্বনের মাধ্যমে এই ভাইরাস সংক্রমণ ঘটাতে পারে।

সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য করুন