কালক্ষেপণ না করে সকল নির্বাচন বন্ধ করুন : ইসিকে ব্যারিস্টার সুমন

প্রকাশিত: ৫:৪৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০২০

করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় ঢাকা-১০ আসনসহ আগামী ২১ মার্চ অনুষ্ঠেয় তিনটি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন ও ২৯ মার্চের চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনতিবিলম্বে বন্ধ করার আহবান জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাক্টিভিস্ট ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

এর আগে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিশেষ করে ইভিএম মেশিনে অনুষ্ঠেয় ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনে বেশি ঝুঁকির কথা জানিয়েছেন তারা।

এদিকে দেশে এপর্যন্ত করোনা ভাইরাসে ১০ আক্রান্তসহ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হলেও নির্বাচন কমিশন (ইসি) এসব নির্বাচন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্তে অটল রয়েছে। কমিশন বলেছে, করোনার শঙ্কা রয়েছে, তবে আমরা আগামী ২১ মার্চ নির্দিষ্ট দিনে ভোট করতে চাই।

এ বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক ভিডিওতে নির্বাচন কমিশনের সমালোচনায় কড়া প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘কোন নির্বাচন কমিশনের আন্ডারে এই বাংলাদেশে আছে আমি জানতে চাই। এই নির্বাচন কমিশন কি মানুষের প্রয়োজনে না শুধু নির্বাচনের প্রয়োজনে। নির্বাচন কমিশন এই যে আগামী ২১ তারিখে ঢাকা ১০ আসনসহ সবগুলো উপনির্বাচনের আসনে নির্বাচন হবে বলে সিদ্ধান্তে আছেন। এটা কী মোটেও যৌক্তিক বিষয় হতে পারে।

ইভিএম ভোটে ঝুঁকি আছে এমনটা বর্ণনা করে সুমন বলেন, তারা কি চিন্তা করছেন যে, ইভিএমে ভোট দেওয়ার বিষয়টি কতটা ঝুঁকিপূর্ন। যেখানে করোনাভাইরাস হাতের স্পর্শেই ছড়ায় সেখানে ইভিএমে ফিঙ্গারপ্রিন্টে ভোট নেওয়ার বিষয়টি অনেকটাই ভয়াবহ বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

সুমন বলেন, সরকার বিভিন্নভাবে বলছেন যে কোনভাবে কোন ধরণের গন জমায়েত কখনো মেনে নেয়া হবে না সেখানে ঢাকার মতো একটি ঘনবসতিপূর্ণ এরিয়ায় নির্বাচনের মতো গন জমায়েত পূর্ণ একটি প্রোগ্রাম কিভাবে চালু রাখতে চায় নির্বাচন কমিশন।

তিনি নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে আরও বলেন কয়েকজন এমপি বানানো আপনাদের কি এতই প্রয়োজন এমন একটি বিপর্যয় এর মুহূর্তে অবশ্যই নির্বাচন বন্ধ রাখার আহ্বান জানাই।

গত ১৬ মার্চ ঢাকা-১০ আসনের নির্বাচন সম্পর্কে সিইসি কে এম নুরুল হুদা বলেছিলেন, করোনাভাইরাস নিয়ে আমরা অত্যন্ত শঙ্কিত। আমরা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত আছি। যেহেতু নির্বাচনের আর মাত্র কয়েক দিন বাকি, সুতরাং এ নির্বাচনে আমরা স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিতে পারবো না। আল্লাহর রহমতে ঠিক হয়ে যাবে হয়তো। ২১ মার্চ ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনটা পেছাতে চাচ্ছি না। এর মধ্যেই আমাদের কাজ করতে হবে। তবে যারা নির্বাচনে কাজ করবেন তাদের সতর্ক অবস্থায়, স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা যদি মেনে না চলা হয়, তা হলে নির্বাচনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে।

ঢাকা-১০ আসনে মূলত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন আর ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপির প্রার্থী শেখ রবিউল আলম।

(ভিডিও)

মন্তব্য করুন