আইনের শাসন সূচকে ১২৬ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১১২তম: মিশ্র প্রতিক্রিয়া

প্রকাশিত: ১১:০৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৪, ২০২০

আইনের শাসন সূচকে বাংলাদেশের আরো দু’ধাপ অধঃপতন হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্য ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রজেক্টের (ডব্লিউজেপি) বৈশ্বিক আইনের শাসন সূচকে ১২৬টি দেশের মধ্যে ১১২তম অবস্থান অর্জন করেছে  বাংলাদেশ।

ডব্লিউজেপির প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, গত এক বছরে বিশ্বের ৬১টি দেশের আইনের শাসনের অবনতি হয়েছে। সূচকে বাংলাদেশের নিচে রয়েছে ভেনিজুয়েলা, চীন, তুরস্ক, মিয়ানমার, ইথিওপিয়া ও মিশর। তবে, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান গত বছরের মতোই- চতুর্থ। এ ক্ষেত্রে নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও ভারত বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে আছে। পেছনে রয়েছে পাকিস্তান ও আফগানিস্তান।

সরকারি ক্ষমতার সীমাবদ্ধতা, দুর্নীতির অনুপস্থিতি, উন্মুক্ত সরকার, মৌলিক অধিকার, নিয়ম ও নিরাপত্তা, নিয়ন্ত্রণমূলক ক্ষমতার প্রয়োগ, নাগরিক ন্যায়বিচার এবং ফৌজদারি বিচার- এরকম আটটি সূচকের ভিত্তিতে ১২৬টি দেশের ১ লাখ ২০ হাজার বাড়িতে জরিপ চালিয়ে এবং ৩৮০০ জন বিশেষজ্ঞের মতামত নিয়ে ডব্লিউজেপি এই প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে।

আইনের শাসন সূচকে বাংলাদেশের অধঃপতন প্রসঙ্গে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদশ- এর প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট মনজিদ মোরশেদ রেডিও তেহরানকে বলেন, এ ক্ষেত্রে আইনজীবীদের মধ্যে রাজনৈতিক প্রভাব এবং আদালতের ওপর সরকারের রাজনৈতিক প্রভাবই মূলত দায়ী।

ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রজেক্টের প্রতিবেদন প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘কোন ধরনের তথ্যের ভিত্তিতে ও কীভাবে এই সূচকটি তৈরি হলো, আমাকে খতিয়ে দেখতে হবে। তবে আপাতদৃষ্টে মনে হচ্ছে, এটি একটি পক্ষপাতদুষ্ট প্রতিবেদন। কেননা নেপালের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও শাসনতান্ত্রিক অবস্থান কেমন তা আপনারা ভালো করে জানেন। শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপের অবস্থাও কারও অজানা নয়। তাহলে এসব দেশ কীভাবে বাংলাদেশের চেয়ে আইনের শাসনে ভালো অবস্থানে থাকে।’

এ প্রসঙ্গে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) চেয়ারম্যান সুলতানা কামাল বলেন, ‘আমরা যাঁরা বাংলাদেশের আইনের শাসন, দুর্নীতি প্রতিরোধ ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করছি, তাঁরা ওই প্রতিবেদনটির মতোই একই চিত্র দেখতে পাচ্ছি। সরকার থেকে মনে করা হচ্ছে, বড় বড় সড়ক-সেতু ও অবকাঠামো নির্মাণ করলেই দেশের উন্নতি হয়ে গেল। এসব উন্নতি আমরাও চাই কিন্তু তার সুবিধা দেশের সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হলে দেশে আইনের শাসন নিশ্চিত করতে হবে।

এমএম/

মন্তব্য করুন