করোনায় মৃত্যু অবধারিত নয়, আতঙ্কিত না হবার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের (ভিডিও)

প্রকাশিত: ১২:৪২ অপরাহ্ণ, মার্চ ১১, ২০২০

করোনায় এ পর্যন্ত আক্রান্তের পর অর্ধেকের বেশি মানুষ সুস্থ্য হয়েছেন, ফিরেছেন নিজ বাড়িতে। চিকিৎসকরা বলছেন, কোভিড-নাইনটিনে আক্রান্ত হলেই মৃত্যু অবধারিত নয়। বয়স্কদের ঝুঁকি থাকলেও সচেতনতাই সবচেয়ে জরুরি। তাই মাস্ক ব্যবহার জরুরি নয়, এমনকি হেন্ডস্যানিটাইজার ছাড়া শুধু সাবান দিয়ে হাত ধুলে ভাইরাসমুক্ত হওয়া সম্ভব। তাই আতঙ্কি না হবার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

বিশ্বব্যাপী এখন আতঙ্কের নাম নভেল করোনা ভাইরাস বা কোভিড-নাইটিন। এতে আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্বের ১০০ টি বেশি দেশের ১ লাখের বেশি মানুষ।

এরই মধ্যে বাংলাদেশেও আক্রান্ত হয়েছেন তিনজন। তাদের অবস্থা স্থিতিশীল আছে। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের পর অর্ধেকের বেশি মানুষ সুস্থ্য হয়েছেন। প্রাণ হারিয়েছেন ৩ হাজারের ৮শ বেশি মানুষ।

চিকিৎসকরা বলছেন, কোভিড-নাইনটিনে আক্রান্ত হলেই মৃত্যু অবধারিত নয়। যাদের বয়স ৬০ এর বেশি এবং অন্যান্য রোগে ভুগছেন তাদের মধ্যেই মৃত্যু হার বেশি।

তাঁরা জানান, তরুণদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি থাকায় সহজেই করোনাভাইরাস ঠেকাতে পারেন। অন্যদিকে বৃদ্ধদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল। আবার যাদের অন্যান্য শারিরিক সমস্যা রয়েছে যেমন, আগে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক করেছে, ডায়াবেটিস, বা শ্বাসযন্ত্রের অন্যান্য অসুখ আছে সেসমস্ত মানুষের সংক্রমণ প্রবণতা বেশি। তাই বৃদ্ধ ও এই ধরণের রোগ আছে যাদের তাদেরকে সতর্ক থাকতে বলা হচ্ছে।

এই ভাইরাসটি শরীরের আবরন জেলীয় মতো। তাই হেন্ডস্যানিটাইজার ছাড়াও সাবান দিয়ে হাত ধুলে ভাইরাসমুক্ত হওয়া সম্ভব। আইইডিসিআর এর প্রধান বৈজ্ঞিানিক কর্মকতা বলেন, স্যানিটাইজারটা হল অ্যালকোহল, যা ভাইরাসে গাসে লাগলে ফেটে যাবে। তাই হেন্ডস্যানিটাইজার, সাবান, হেক্সাসল, মাটি বা ছাই দিয়ে হাত বার বার ধুয়ে নিলেই হবে।

এছাড়া এখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার মতো সময় হয়নি বলে জানালেন, আইইডিসিআর এর প্রধান বৈজ্ঞিানিক কর্মকতা।

সার্স এবং মার্সের চেয়েও কোভিড নাইনটিনে মৃত্যু হার কম। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, করোনায় এখন পর্যন্ত মৃত্যু হার ৩ দশমিক ৪ শতাংশ। তাই আতঙ্কি না হবার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।সৌজন্যেঃ চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের

এমএম/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন