জেনবিয়াত মিলিশিয়াদের মুখোশ উন্মচন করল জাতিসংঘ

প্রকাশিত: ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২০

ইসমাঈল আযহার
সহ-সম্পাদক

সম্প্রতি ইরান-সমর্থিত ইয়েমেনের ‘হুথি মিলিশিয়া’ কর্তৃক পরিচালিত গোষ্ঠি ‘জেনবিয়াত মিলিশিয়া’র বিরুদ্ধে “জঙ্গি” অভিযোগ এনেছে এবং তাদের মুখোশ উন্মোচন করেছে জাতিসংঘ। শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) কাতারভিত্তিক বার্তা সংস্থা আল আরাবিয়া এখবর দিয়েছে।

জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হুথির জেনবিয়াত মিলিশিয়া ইরান সমর্থিত বিদ্রোহীদের আরেকটি ভয়ংকর রুপ। এটি একটি গোয়েন্দা এবং গুপ্তচর সংস্থা। যারা নিজেদের বিরোধী মহিলাদের নির্যাতন, যৌন হয়রানি, শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতনের মতো অপরাধের সাথে জড়িত।

 

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ইয়েমেনের সাংবিধানিক সরকারকে সমর্থনকারী মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা করছে হুথি সমর্থিত মহিলা গোষ্ঠিটি। এই গোষ্ঠিটি মহিলাদের বিরুদ্ধে যৌন সহিংসতার মতো অপরাধেও জড়িত। গোষ্ঠিটি বর্তমানে ইমেয়েনের রাজধানী সানার সামরিক বিষয়ক সংস্থার প্রধান সুলতান জাবিনের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে।

আল আরাবিয়ার প্রতিবেদনে জানানো হয়, জাতিসংঘের প্রতিবেদনটি সুরক্ষা কাউন্সিলে জমা দেওয়া হয়েছে এবং গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য ইয়েমেনকে দায়ী করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিদ্রোহী মহিলারা তাদের বিরোধী নারীদের গ্রেফতার, তাদের বাড়িঘর ছিনতাই, যৌন নিপীড়ন, মারধর ও গোপন কারাগারে বন্দি মহিলাদের লাঞ্ছিত করে।

‘হুথি মিলিশিয়াদের জেনবিয়াত গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত মহিলাদের কাঁধে রকেট লঞ্চার, কালাশনিকভ এবং মেশিনগান সহ অন্যান্য অস্ত্র বহন করতে দেখা যায়। এমনকি তাদের কিছু ছবিতে বাচ্চা তোলাতেও দেখা যেতে পারে। তিন বছর আগে জেনবিয়াত গোষ্ঠিটির জন্ম হয়। যা ‘উইমেন উইং’ নামে পরিচিত।

জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, অনুগত হুথি মিলিশিয়া, জেনবিয়াতকে বেশ কয়েকটি দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে  যা পালন করা তাদের নৈতিকতা বলে অভিহিত করা হয়। তাদেরকে গোয়েন্দাগিরি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে গোষ্ঠিটির সঙ্গে জড়িত যোদ্ধা নারীদের বিরোধী মহিলাদের গুপ্তচর।

এছাড়াও, বাড়ি বাড়ি অভিযানের সময় মহিলাদের সন্ধান করা, ঘর অনুসন্ধান করা, গোষ্ঠিটির দৃষ্টিভঙ্গি প্রচার-প্রসার এবং কারাগারে শৃঙ্খলা বজায় রাখার কাজগুলো তাদেরকে হস্তান্তর করা হয়।

জেনবিয়েত মিলিশিয়া আটককৃত মহিলাদের  ইজ্জত রক্ষা  করতে ভূমিকা রাখে। এছাড়া এই গোষ্ঠিটি মহিলাদের অপহরণ এবং তাদের জোরপূর্বক অপহরণ, বেশ্যাবৃত্তি ও ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত অভিজুক্ত মহিলাদের গ্রেফতার করে।

আল আরাবিয়া থেকে ইসমাঈল আযহারের অনুবাদ

আই.এ/

মন্তব্য করুন