পটুয়াখালীতে সাত কোটির বেশী টাকা হাতিয়ে নিয়ে রাতের আধারে পালিয়েছে প্রতারক চক্র

প্রকাশিত: ৬:৫৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২০

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীতে একটি প্রতারক চক্র মোনাভী অল বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ নামে ভুয়া কোম্পানী ব্যবহার করে চাকুরী ও অধিক মুনাফার লোভ দেখিয়ে শত শত যুবক ও মহিলাদের কাছ থেকে সাত কোটির বেশী টাকা হাতিয়ে নিয়ে রাতের আধারে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে ক্ষতিগ্রস্থ দুই শতাধিক যুবক ও মহিলারা।

বৃহষ্পতিবার বেলা ১১টায় প্রেসক্লাবের সামনে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন ক্ষতিগ্রস্থ হাজেরা বেগম, সাবিনা ইয়াসমিন, মেহেদী হাসান, জসিম, কামরুজ্জামান, নুপুর, ইমরান, মাকসুদা বেগম, অাবুল বাসার, ফাহিমা প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, পটুয়াখালী সদর উপজেলার মাদারবুনিয়া ইউনিয়নের বোতলবুনিয়া গ্রামের মোতালেব মৃধার মেয়ে জামাতা জামাল হোসেন মুকুল ও পৌরসভার কলাতলা এলাকার ফজু হাওলাদারের ছেলে দেলোয়ার হোসেন গং দুই বছর অাগে পটুয়াখালীর নতুন বাসস্ট্যান্ড রিয়াজ মৃধার ব্লিডিং এর তৃতীয় তলায় মোনাভী অল বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ (রেজিঃ নং-সি-১০৬৬৫৯/১৩) নামে কোম্পানীর সাইনবোর্ড লাগিয়ে অফিস করে বিভিন্ন এলাকার শত শত শিক্ষিত যুবক, যুব মহিলা ও সাধারনকে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে এক এক জনের কাছ থেকে জামানতের কথা বলে ১ লাখ, ১ লাখ ২০ হাজার, অাবার কারো কাছ থেকে ২ লক্ষ টাকা করে এবং ১ লক্ষ টাকায় মাসে ৮ হাজার টাকা করে মুনাফা দেয়ার কথা বলে শত শত মানুষের কাছ থেকে সাত কোটির বেশী টাকা হাতিয়ে নিয়ে চলতি মাসের ১৩ জানুয়ারী সোমবার রাতে উক্ত প্রতারকগং পালিয়ে যায়।

১৪ জানুয়ারী সকালে স্টাফরা সহ গ্রাহকরা প্রতিদিনের ন্যায় উক্ত অফিসে এসে অফিস তালাবদ্ধ দেখে। পরে স্থানীয়রা তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে সবকিছু ফাকা দেখে তাদের সন্দেহ হয়, ওরা পালিয়েছে। ওইদিন ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাহক হাজেরা বেগম ওরফে হাজেরা মৃধা বাদী হয়ে জামাল হোসেন মুকুল (৪৫), দেলোয়ার হোসেন(৪৫), বিল্লাল হোসেন(২৮), সালেহা বেগম(৫০), অানিছুর রহমান অানিছ(৪৫), উম্মে ফাহমিদা বেগম(৩৫), এনামুল হক অাকাশ, মোঃ বেল্লাল মৃধা, সামীমা অাজাদ, হাবিবুর রহমান ফারুক, রাসেল হোসাইনসহ অজ্ঞাত ১৮/২০ জনকে অাসামী করে সদর থানায় একটি এজাহার দাখিল করেন। মামলা নং-১৬।

এ মামলার অাসামী কোম্পানীর টপ লিডার সালেহা বেগম, হিসাব রক্ষক মোঃ রাসেল, ক্যাশিয়ার উম্মে ফাহমিদা ও ড্রাইভার বেল্লালকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে বলে বাদী হাজেরা বেগম জানান। হাজেরা বেগম জানান, উক্ত জামাল হোসেন মুকুলগং তার কাছ থেকে মিথ্যা প্রলোভন দিয়ে ১১ লক্ষ টাকা, তার মেয়ে সাবিনা ইয়াসমিনের কাছ থেকে ৫লক্ষ ২০ হাজার টাকা নিয়েছে।

এছাড়া মানববন্ধনে অংশগ্রহনকারী কামরুজ্জামান জানান চাকুরী ও বেশী মুনাফা দেয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, জসিমের কাছ থেকে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, নুপুরের কাছ থেকে ১ লক্ষ ১৯ হাজার টাকা, তামান্নার কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা, মেহেদী হাসানের কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা, হাফিজুরের কাছ থেকে ২লক্ষ টাকা, অাউলিয়াপুরের অায়শা অাক্তারের কাছ থেকে ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র।

এ রকম সাত শতাধিক লোকের কাছ থেকে সাত কোটির বেশী টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে বাদী হাজেরা বেগম জানান।

ওয়াইপি/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন