রাজনীতিতে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত ছিলেন সৈয়দ আশরাফ: কাদের

প্রকাশিত: ১১:৩০ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২০

প্রয়াত আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বাংলাদেশের রাজনীতির জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত ছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন ওবায়দুল কাদের। দলটির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বলেন, ৭৫ পরবর্তী সময়ে সৈয়দ আশরাফ অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবেশে তিনি (আশরাফ) একজন পারফেক্ট ম্যান ছিলেন।

প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে শুক্রবার সকালে বনানী কবরস্থানে সৈয়দ আশরাফের কবরে শ্রদ্ধা জানানোর পর এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশের একজন বিরল রাজনীতিবিদ সৈয়দ আশরাফ। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহযোগী সৈয়দ নজরুল ইসলাম এর এই সুযোগ্যপুত্র আমাদের পার্টির পরপর দুইবারের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ৭৫ পরবর্তী সময়ে তিনি অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবেশে একজন পারফেক্ট ম্যান ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, তার থেকে আমাদের সকলেরই শিক্ষা নেওয়ার আছে। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নম্রতা, সততা ও বিনয় ভবিষ্যত রাজনীতিকদের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। ‘আমি মনে করি তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী তখনই সার্থক হবে যদি আমরা তার মতো আচরণে বিনয়ী, নম্র এবং বাস্তব জীবনে তার মতো সৎ হতে পারি। আজ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে, এখান থেকে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শিক্ষা নিতে পারবে।’

শ্রদ্ধা জানানোর পর দোয়া ও মোনাজাত করেন আওয়ামী লীগের নেতারা। এ সময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন তার বোন কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে আশরাফ ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থার মধ্যে শেখ হাসিনা গ্রেপ্তার হওয়ার পর দলের হাল ধরেন। পরে দলের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আসেন তিনি।

দুই মেয়াদে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের পর ২০১৬ সালের কাউন্সিলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হন সৈয়দ আশরাফ। জনপ্রশাসনের আগে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সামলেছেন সৈয়দ আশরাফ। এর আগে ১৯৯৬ সালের আওয়ামী লীগ সরকারে বেসামরিক বিমান পরিবহন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন।

কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ আশরাফ। হাসপাতালে থেকেই ২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত হন। ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি না ফেরার দেশে চলে যান বরেণ্য এই রাজনীতিক।

আই.এ/

মন্তব্য করুন