‘লেখালেখি চর্চা করতে হবে সময়ের ভাষায়’ : লেখক ফোরামের কর্মশালায় বক্তারা

প্রকাশিত: ১০:৫২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯

ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের উদ্যোগে এবার দিনব্যাপী লেখালেখির কর্মশালা অনুষ্ঠিত হলো নরসিংদীর মাধবদীতে। স্থানীয় মাদরাসাতুল মদীনা আল ইসলামিয়ায় শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) আয়োজিত এই কর্মশালায় নরসিংদীর বিভিন্ন মাদরাসার তিন শতাধিক তরুণ অংশ নেন।

সকাল ৯টা থেকে শুরু হওয়া এই কর্মশালা চলে মাগরিব পর্যন্ত। এতে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখির প্রশিক্ষণ দেন সময়ের খ্যাতিমান লেখকেরা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মাধবদীর জালপট্টির মসজিদে আকবর কমপ্লেক্সের খতিব মুফতি ইসহাক কামাল। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন মাদরাসাতুল মদীনা আল ইসলামিয়ার প্রিন্সিপাল মুফতি মুহাম্মদ রাকিব হাসান। সহযোগিতায় ছিল আল কাসিম সাহিত্য সংসদ।

প্রধান আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট আলেম লেখক মুহাম্মদ যাইনুল আবিদীন। তিনি লেখালেখিতে আসা তরুণদের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য দেন। ঢাকা টাইমসের বার্তা সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর কী লিখব, কীভাবে লিখব; বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মুনীরুল ইসলাম লেখালেখির ভুলত্রুটি ও ছড়া-কবিতা; দৈনিক সময়ের আলোর বিভাগীয় সম্পাদক আমিন ইকবাল পত্রিকায় লেখালেখি এবং ফোরামের প্রশিক্ষণ সম্পাদক শামসুদ্দীন সাদী অনুবাদ বিষয়ে আলোচনা করেন।

এছাড়া তরুণ লেখক রেজা হাসান, মিযানুর রহমান জামীল বক্তব্য দেন। আরও উপস্থিত ছিলেন হাবীবুল্লাহ সিরাজ, , মাঈনুদ্দীন খান তানভীরসহ মাদরাসাতুল মদীনার শিক্ষক এবং স্থানীয় লেখক-সাহিত্যিকরা। উপস্থিত প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে সেরা ১০ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে মাওলানা যাইনুল আবিদীন বলেন, আমরা যারা লেখালেখি করতে এসেছি তাদের পাঠভ্যাস বাড়াতে হবে। এই সময়ে যারা বাংলা সাহিত্যের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাদের পড়তে হবে। তবে মনে রাখতে হবে, আমাদের কেন্দ্রীয় চর্চার বিষয় হবে ইসলাম।

যাইনুল আবিদীন বলেন, লেখালেখির জন্য পাঠের কোনো বিকল্প নেই। যার পাঠের মাত্রা যত বেশি তার লেখার গভীরতা তত বেশি। আমরা আমাদের জেদ-ভালোবাসা সবই প্রকাশ করি শব্দে। তাই শব্দটা আগে আমাদের আয়ত্ত করতে হবে। আর এই শব্দ আয়ত্তে আসবে পাঠের মাধ্যমে।

তিনি তরুণ লেখকদের সময়ের ভাষায় লেখালেখি চর্চার প্রতি তাগিদ দেন। এই অঙ্গনে অনেক দিন টিকে থাকতে হলে ক্ষেত্র তৈরি করে নিতে হবে বলে মত দেন খ্যাতিমান এই লেখক।

প্রসঙ্গত, তরুণদের লেখালেখিতে আগ্রহী এবং যোগ্য করে গড়ে তুলতে সম্প্রতি উদ্যোগ নেয় লেখকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরাম। ইতোমধ্যে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বেশ কিছু বুনিয়াদি কর্মশালা সম্পন্ন হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে চাহিদা তৈরি হওয়ায় এ ধরনের কর্মশালা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন ফোরামের দায়িত্বশীলেরা।

মন্তব্য করুন