ইহুদিবাদীদের হামলায় পুড়ছে গাজা উপাত্যকা : দু’দিনে শহীদ ২৪ জন

প্রকাশিত: ৩:০৩ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৯

ফের ভয়াবহ অবস্থায় রুপ নিয়েছে ফিলিস্তিনের গাজা উপাত্যকার পরিস্থিতি। ইহুদীবাদী ইসরায়েলের মুহুর্মুহু বিমান ও ক্ষেপনাস্ত্র হামলায় নিরস্ত্র ও অসহায় ফিলিস্তিনিরা শহীদ হচ্ছেন। শিশু, বৃদ্ধ, নারীসহ কেহই রেহাই পাচ্ছে না তাদের হামলা থেকে। ইসলামী যোদ্ধাদের শহীদ করছে দাবি করে তারা বেসামরিক মানুষদের নির্বিচারে হত্যা করে যাচ্ছে।

বার্তা সংস্থা আনাদুলু ও পার্সটুডে জানিয়েছে, ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের বিমান হামলায় আরও আট ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে গত দু’দিনে গাজার ২৪ ফিলিস্তিনির প্রাণহানি ঘটলো। নিহতদের মধ্যে ফিলিস্তিন মুক্তি আন্দোলনে জিহাদরত দু’জন শীর্ষ পর্যায়ের কমান্ডার রয়েছেন বলে জানা গেছে।

মূলত অবরুদ্ধ ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে গুপ্তহত্যা চালিয়ে ইসলামিক জিহাদের এক জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তাকে হত্যার পর উপত্যকাটিতে অব্যাহত হামলা চালিয়ে যাচ্ছে দখলদার রাষ্ট্র ইসরাইল।

নিহতদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক বলেও খবরে জানিয়েছে। স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য সূত্র বলেছে, উত্তর গাজায় ইন্দোনেশিয়ান হাসপাতালে তিনটি মরদেহ নিয়ে আসা হয়েছে। ইসরাইলি বিমান হামলায় তারা নিহত হয়েছেন।

তবে এক টুইটবার্তায় ইসরাইলি দখলদার বাহিনী দাবি করেছে, নিহত তিন ব্যক্তিই ইসলামী জিহাদের যোদ্ধা। তারা গাজা থেকে রকেট নিক্ষেপ করছিলেন। তবে ইন্দোনেশিয়ান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া তিনটি মরদেহই এই তিন ব্যক্তি কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ফিলিস্তিন মুক্তি আন্দোলনের সশস্ত্র শাখা আল-কুদস ব্রিগেড বুধবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইহুদীবাদী ইসরায়েলের বিমান হামলায় খালিদ মাবাজ নামে ৩৮ বছর বয়সী আরও একজন কমান্ডার নিহত হয়েছেন। ইসরায়েলের সেনাবাহিনী বলেছে, ইসরায়েলের বিরুদ্ধে রকেট উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি নেয়ার সময় মাভাজের ওপর হামলা চালানো হয়।

এর একদিন আগে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর বিমান হামলায় আন্দোলনের শীর্ষ পর্যায়ের কমান্ডার বাহা আবু আল-আতা ও তার স্ত্রীর নিহত হয়েছেন।

গতকাল (মঙ্গলবার) ইহুদিবাদী ইসরাইল গাজা উপত্যকায় বাহা আবু আল-আতার বাড়িতে বিমান হামলা চালিয়ে তাকে সস্ত্রীক হত্যা করে। ওই হামলায় তার দুই সন্তানসহ তিনজন আহত হন।

জিহাদ আন্দোলনের এ কমান্ডারকে হত্যা করার পর সংগঠনের পক্ষ থেকে ইসরাইলের ওপর ব্যাপকভাবে রকেট হামলা চালানো হয় এবং এই হামলায় কয়েকজন ইহুদিবাদী আহত হয়েছে বলে ইসরাইলি গণমাধ্যম জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে- তেল আবিব, আসকালোন ও সিদরোতসহ বেশ কয়েকটি ইহুদি উপশহরে ক্ষণে ক্ষণে সাইরেন বেজে ওঠে। রকেট হামলার ভয়ে আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ভিড় জমেছে। তাড়াহুড়ো করে আশ্রয়কেন্দ্রে ঢুকতে গিয়ে আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন ইহুদিবাদী।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, ইসরায়েলের দু’দিনের হামলায় ৪৫ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২৩ শিশু রয়েছে। অপরদিকে ইসরায়েলি হামলার জবাবে জিহাদ আন্দোলন এ পর্যন্ত গাজা উপত্যকা থেকে ২০০’র বেশি ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়েছে।

ইসরায়েলের জাতীয় জরুরি বিভাগ বলছে, এ পর্যন্ত তারা ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় আহত ৪৬ জনকে চিকিৎসা দিয়েছে। ইহুদিবাদী এই রাষ্ট্রটির গণমাধ্যমের খবর জানিয়েছে, গাজা সীমান্তে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করে শক্তি বাড়াচ্ছে তারা। এসব সেনাদের মধ্যে রয়েছে, আয়রন ডোম ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ইউনিটস, সামরিক গোয়েন্দা ও হোম ফ্রন্ট কমান্ডের সদস্যরা।

এইচআরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন