ইমামদের কর্মচারী মনে করা বিত্তশালীদের চরম বেয়াদবি: ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ

প্রকাশিত: ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০১৯

ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহের প্রধান ইমাম ও বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেছেন, সমাজে সবথেকে সম্মানিত হলেন মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন। তাদের কর্মচারী মনে করা বিত্তশালী মানুষদের একটা বড় বোকামী ও চরম বেয়াদবির শামিল। সবার হৃদয় দিয়ে তাদের প্রতি ভালোবাসা রাখা উচিত। গতকাল শুক্রবার (২৬ অক্টোবর) রাজধানীর জামি’আ ইকরা বাংলাদেশ সংলগ্ন ঝিল মসজিদে জুমার বয়ানে তিনি এসব কথা বলেন।

মুসল্লিদের নামাজের ওয়াক্ত সম্পর্কে অবগত থাকা অপরিহার্য উল্লেখ করে আল্লামা মাসঊদ বলেন,আযানের দেওয়া হয় জামাতের সময় ঘোষণার জন্য ওয়াক্ত ঘোষণার জন্য নয়। অধিকাংশ মুসল্লি নামাজের ওয়াক্ত সম্পর্কে অবগত নয়। মুয়াজ্জিনের আযানের উপর নির্ভর করে মসজিদে আসে। নামাজের ওয়াক্ত সম্পর্কে অবগত হওয়ার জন্য তিনি মুসল্লিদের চিরস্থায়ী নামাজের ক্যালেন্ডার ব্যবহারের পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, আজ আমাদের সমাজের মসজিদগুলোতে নামাজের জামাত ও আযানের সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। রাসূল সা. ও খোলাফায়ে কেরামের যুগে জামাতের সময় নির্ধারিত ছিলো না।ওয়াক্ত হওয়ার সাথে সাথে মুসল্লিরা মসজিদে চলে এসে নামাজের অপেক্ষা করতে থাকতো। ইমাম সাহেব তার ইচ্ছেমতো সময়ে এসে জামাত আদায় করতেন। বর্তমানে কিছু লোক মসজিদে এসে নির্ধারিত সময়ে জামাত শুরু হতে বিলম্ব হলে ইমাম-মুয়াজ্জিনদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে থাকে।

তিনি আরও বলেন, মুসল্লিদের উচিৎ নামাজের ওয়াক্ত হওয়ার সাথেসাথে মসজিদে এসে জামাতের জন্য অপেক্ষা করতে থাকা। মসজিদে এসে জামাতের জন্য অপেক্ষা করলে জামাতের সওয়াব লেখা হতে থাকে। আজ মানুষ চায়ের দোকানে বসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় নষ্ট করে অথচ,মসজিদে এসে কিছুক্ষণ সময় বসে থাকতে চায় না। মমসজিদে এসে অপেক্ষা করতে হলে মসজিদের প্রতি ভালবাসা ও প্রীতি থাকতে হবে বলে আমি মনে করছি।

আল্লামা মাসঊদ বলেন, মসজিদে এসে জামাতের সাথে নামাজ আদায়ের চেয়ে ঘরে বসে একাকী নামাজ পড়লে মহিলাদের বেশী সাওয়াব হয়। মসজিদে আসার চেয়ে মহিলাদের ঘরে বসে একাকী নামাজ পড়াই উত্তম। এছাড়াও আল্লামা মাসঊদ মসজিদের আদব রক্ষায় সবাইকে সযত্ন থাকার আহ্বান জানান।

আই.এ/

মন্তব্য করুন