স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে দেশের ২ কোটি শিশু

প্রকাশিত: ৮:৩২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৯

দেশের প্রায় ২ কোটি শিশু স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। প্রতি বছর শিশুরা কোনো না কোনোভাবে ডায়রিয়া, কলেরা, টাইফয়েডের মতো মারাত্মক জীবাণুবাহিত রোগে ভুগছে। শুধু পরিষ্কার টয়লেট ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এসব সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব বলে জানিয়েছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

প্রায় ২০ মিলিয়ন শিশু তাদের স্কুলে স্বাস্থ্যকর টয়লেট ব্যবহার করতে পারে না। তাছাড়া সারা দেশে শুধু এ কারণে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে প্রায় ২ কোটি শিশু। শিশু বিশেষজ্ঞদের মতে, সাধারণত স্কুলে শিশুরা হাত ধোয়ার ক্ষেত্রে একেবারে উদাসীন থাকে। ঘরে বাবা-মাদের সচেতনতার কারণে তারা হাত ধুতে পারে। তাছাড়া গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্যকর টয়লেট না থাকায় জীবাণুর সংক্রমণ হয়।

সম্প্রতি ইউনিসেফ পরিচালিত এক গবেষণা থেকে দেখা যায়, বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে ৫৬ মিলিয়ন মানুষ অস্বাস্থ্যকর টয়লেট ব্যবহারের কারণে বিভিন্ন রোগে ভুগে। এর মধ্যে দরিদ্র ২১ মিলিয়ন মানুষ এখনও স্বাস্থ্যকর টয়লেট ব্যবহার করেন না।

গবেষণায় আরও জানা যায়, বড়দের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি থাকায় তারা এ ধরনের ঝুঁকিতে কিছুটা কম থাকলেও শিশুরা থাকছে মারাত্মক ঝুঁকিতে। যে কারণে শিশুদের রোগ সম্প্রতি বেড়ে গেছে। শহরে রয়েছে পানিজনিত সমস্যা। গ্রামাঞ্চলের এ সমস্যা ছাড়াও রাজধানীতে পানিতেও রয়েছে ব্যাপক ঝুঁকি।

সম্প্রতি বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের এক গবেষণায় রাজধানীর বিভিন্ন অংশে সরবরাহ করা জারের পানির ৯৭ ভাগ পানিতে মানুষ ও প্রাণীর মলের জীবাণু (কলিফর্ম) পাওয়া গেছে। টোটাল কলিফর্মের বেলায় ১০০ মিলিলিটার পানিতে সর্বোচ্চ ১৬০০ ও সর্বনিু ১৭ এমপিএন (মোস্ট প্রোবাবল নম্বর) এবং ফেকাল কলিফর্মের বেলায় সর্বোচ্চ ২৪০ ও সর্বনিু ১১ এমপিএন পাওয়া গেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই পানিতে এক ধরনের শৈবাল থাকে- যা কলেরা সৃষ্টির জন্য মোক্ষম উপাদান। আবার গরমে রান্না করা খাবারগুলো বেশিক্ষণ ভালো থাকে না। এগুলো না বুঝে খেয়েও ফুড পয়জনিং হচ্ছে। সবচেয়ে বড় বিষয়, রাস্তায় চলাফেরা করার সময় আখের রস, বিভিন্ন রকম ফলের জুস পান- যা চূড়ান্ত মাত্রার ক্ষতিকর। কেন না, এগুলোর পুরো প্রক্রিয়াটাই অপরিষ্কার।

সর্বোপরি রাজধানীর ওয়াসার দূষিত পানি যা কোনোভাবেই পরিষ্কার করা সম্ভব হয় না। এই দূষিত পানি ও অস্বাস্থ্যকর টয়লেট সব মিলিয়েই ব্যাপক ঝুঁকিতে পড়ছে শিশুরা। কেন না, তাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কোনোভাবেই এ ধরনের জীবাণুর আক্রমণকে প্রতিহত করতে পারছে না।

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন