ভোলা ট্রাজেডি: শহীদদের উগ্রবাদী আখ্যা ‘ডেইলি স্টার’র

প্রকাশিত: ৪:৫৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০১৯

ভোলার বোরহানউদ্দিনে বিশ্বনবী মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে কটূক্তি করার প্রতিবাদে আয়োজিত সমাবেশে আগত মুসুল্লিদের পুলিশের আক্রমণে নিহত শহীদদের ‘ধর্মীয় উগ্রপন্থী জনতা’ বলে অভিহিত করেছে ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য ডেইলি স্টার’।

ভোলায় নিরস্ত্র উত্তেজিত জনতার ওপর নির্বিচারে গুলি চালানো নিয়ে যখন নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে একের পর এক প্রশ্ন তৈরি হচ্ছে, তখন ডেইলি স্টারের এমন শিরোনামে তাদের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ড সমর্থনের অভিযোগ উঠছে। উগ্রবাদী জনতা বলতে তারা কী বুঝাতে চাচ্ছে তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

নিজেদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে ভোলায় সঘংর্ষের ঘটনায় সোমবার ‘সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ’র ৬ দফা দাবি শিরোনামের সংবাদের ক্যাপশনে লিখেছে, ‘ভোলায় পুলিশের সঙ্গে ধর্মীয় উগ্রপন্থী জনতার সংঘর্ষ ও হতাহতের ঘটনায় প্রশাসনকে দায়ী করেছে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ’।

এ ঘটনায় পুলিশের মামলা দায়েরের অপর একটি সংবাদের ফেসবুক ক্যাপশনে তারা লিখেছে ‘ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে ধর্মীয় উগ্রপন্থী জনতার সংঘর্ষে চারজন নিহতের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে অজ্ঞাতনামা ৪ থেকে ৫ হাজার জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে’।

এছাড়াও তারা ভোলার হৃদয়বিদারক ট্রাজেডির সকল সংবাদে বিক্ষোভকারী সাধারণ মুসুল্লিদেরকে উদ্দেশ্য করে এভাবেই কটাক্ষ করে সংবাদ পরিবেশন করেছে দৈনিক পত্রিকা সমূহের সম্পাদকদের সংগঠন সম্পাদক পরিষদের সেক্রেটারি জেনারেল মাহ্‌ফুজ আনাম সম্পাদিত দেশের প্রথম সারির ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য ডেইলি স্টার’।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তৈরি হয়েছে ব্যাপক সমালোচনা। ধর্মীয় ইস্যুতে দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদেরকে উগ্রবাদী হিসিবে চিহ্নিত করতে চাওয়ার পেছনে দেইলি স্টারের উদ্দেশ্য কী তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। ফেসবুকে অনেকেই এ নিয়ে বিরুপ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

Ibrahim Azad নামে একজন লিখেছেন, ‘ধর্ম অবমাননার প্রতিবাদ করলেই কি উগ্রপন্থী? এমন সাংবাদিকতা আপনাদের শেখায় কে? মেনে নিলাম আইডি হ্যাক হইছে, তাই বলে কি চুপচাপ বসে থাকবে? আমার আইডি হ্যাক করে কেউ অন্য ধর্মকে অবমাননা করলে, ঐ ধর্মের অনুসারীরা কি প্রতিবাদ করবেনা??’

Mohammed Younus Dolon লিখেছেন, ‘ধর্মীয় উষ্কানীদাতাদের উগ্রপন্থি না বলে, উষ্কানীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদিদের বলেন উগ্রপন্থি? আপনাদের মত ফালতু সাংবাদিক ও নিউজপোর্টাল গুলোই আসলে প্রকৃত উষ্কানীদাতা ও উগ্রপন্থি! উষ্কানীমূলক হেডলাইন ব্যবহার করে নিউজ করার কারনে আপনাদের বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত!’

এইচ এম আবু বকর লিখেন, ‘বিষয়টা বড়ই আশ্চর্যের। এদেশের ৯২% জনতার পক্ষের শক্তিকে বলা হয় উগ্রবাদ আর দেশ ও জাতির বিরোধী শক্তিকে বলা হয় পক্ষের শক্তি! সেলুকাস! আসলে এদেশের মিডিয়াগুলি দালাল হয়ে গেছে। ভারতীয় অপশক্তির এই দালালদের এখনই বয়কট করুন’।

JH Lincoln লিখেন, ‘দাবী যৌক্তিক আছে। কিন্তু খবরের ক্যাপশনটা অনুপযোগী, দৃষ্টিকটু, উস্কানীমূলক’।

Jannatul Mawa Sinigdha লিখেছেন, ‘ডেইলি স্টারের মত পত্রিকায় কিভাবে লেখে যে ‘ধর্মীয় উগ্রপন্থী’? আমার বুঝে আসেনা।এটা খুবই দুঃখজনক যে বিশ্বনবী (সা.) কে নিয়ে কুটুক্তি করার প্রতিবাদীদের ধর্মীয় উগ্রপন্থী বলা হয় কোন সাহসে?’

Mohibul Hoque Bhuiyan নামে একজন লিখেছেন, “zealot” synonym is fanatic Meaning: a person filled with excessive and single-minded zeal, especially for an extreme religious or political cause. The Daily Star shouldn’t you be sued for calling Islam a fanatic religion ? This was a clear event where our prophet was insulted;(who ever did this) public had right to protest against it. But to my opinion, police interfered and made it worse.

ডেইলি স্টারের আলোচিত প্রায় সবগুলো সংবাদের কমেন্ট বক্সে লম্বা এক মন্তব্য করেছেন সাংবাদিক শাহনূর শাহীন। তিনি লিখেছেন, ‘বিপ্লব চন্দ্র হোক কিংবা তার আইডি হ্যাকাররা হোক; ওই আইডি থেকে বিশ্বনবী মুহাম্মদ সা. ফাতেমা রা. এমনকি স্বয়ং সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ তাআলা’কে নিয়ে যে ধরনের কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করা হয়েছে তাতে যে কোনো মুসলমানের হৃদয়ে আঘাত লাগবে নিঃসন্দেহে। ক্ষত-বিক্ষত হৃদয়ে ক্ষোভ-বিক্ষোভ দেখানোটা দলমত নির্বিশেষে প্রত্যেক মুসলমানের জন্য স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া। অথচ সেখানে পুলিশের গুলিতে চারজন মানুষ খুন হয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজে এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেছেন, গুলি করার নির্দেশ কে দিয়েছে তা তদন্ত করে বের করতে হবে। এমনকি স্বয়ং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ঘটনায় দেশের জনগণকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। সেখানে আন্দোলনরত  বিশাল জনগোষ্ঠীকে উগ্রপন্থী আখ্যা দিয়ে ‘ডেইলি স্টার’ কী বুঝাতে চাচ্ছে?।

শুধুমাত্র ভোলা নয়, সারা বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা এ ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছে। নো আওয়ামী লীগ, নো বিএনপি, নো ইসলামী আন্দোলন, জামাআত, জাতীয় পার্টি, দলমত নির্বিশেষে দেশের সকল মুসলমান এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ। ডেইলি স্টারের সংবাদ সূত্রে দেশের ৯০ থেকে ৯২ ভাগ মানুষ যদি উগ্রপন্থী হয় তাহলে দেশটা কার? বাংলাদেশকে উগ্রপন্থীদের দেশ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিয়ে ‘ডেইলি স্টার’ কর্তৃপক্ষ কাকে খুশি করতে চাইছে? মাননীয় সম্পাদক সাহেব ভিনদেশি দালালী বন্ধ করুন। আমরা জানি আপনার পত্রিকায় আপনার দৃষ্টিভঙ্গিরই প্রতিফলন ঘটে।

মনে রাখবেন এদেশের মানুষ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাঁধায় না। এদেশের মানুষ ধর্মভেদ ভুলে একই সমাজে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে। এদেশের মসজিদ-মাদরাসার উন্নয়নে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকেরা এগিয়ে আসে; আবার মন্দির পাহাড়ায় মুসলমানরা সৈনিকের ভুমিকা পালন করে।  এই ভোলার ঘটনাতেই চোখ খুললে দেখতে পাবেন, চ্ট্টগ্রামে মুসলমানদের একদল মাদরাসার ছাত্র বিক্ষোভ করতে রাস্তায় বেরিয়েছে আরেকদল মন্দির পাহাড়ায় মানবঢাল তৈরি করে ঘিরে রেখে নিরাপত্তা দিয়েছে ঘন্টার পর ঘন্টা। আমরা জানি আপনিও একজন মুসলমান। কিন্তু নামে নয় পরিচয় আপনার কাজের মাধ্যমে হবে’।

Jomadder Mizan ‘লিখেছেন, এ ধরনের সাংবাদিক ও হেডলাইন করার কারনেই দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশে সৃষ্টি হয়’।

Mijan Bin Saeed লিখেছেন, ‘সাধু পুলিশের সঙ্গে ধর্মীয় উগ্রপন্থী জনতার সংঘর্ষ” এটা লিখলেও পারতে?’

Khan Parbez লিখেছেন, ‘ধর্মীয় উগ্রবাদি কারা স্যার? প্রভুদের খুশি করার জন্য খবরের এমন হেডলাইন করা নাকি?’

Hossain Shazzad লিখেছেন, ‘উগ্রপন্থী, সাম্প্রদায়িক এসব শব্দ এখন দেখি টিস্যু পেপারের মত ব্যবহার শুরু হইছে। ভাষার ব্যবহার না জানলে সাংবাদিকতা ছেড়ে ভাষা শিক্ষা ক্লাসে ভর্তি হন’।

J’ee ARr Kahn লিখেছেন, ‘সাধারণ জনতার সাথে উগ্রপন্থী পুলিশের সংঘর্ষ। মদদদাতা হিসেবে উগ্রপন্থী ভারতীয় দালাল মিডিয়ার বিচার চাই৷ ভারতের দালাল মিড়িয়াও ও সন্ত্রাসী নাশকতাকারী পুলিশ এর বিচার না হওয়া পর্যন্ত এই জনপদে শান্তি ফিরে আসবে না’

/এসএস

মন্তব্য করুন