তসলিমা কী শিবলিঙ্গে চুমু দেওয়া প্রেমিক পেয়েছিলেন : প্রশ্ন পিনাকী ভট্টাচার্যের

প্রকাশিত: ৬:৩৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

বিতর্কিত, ছন্নছাড়া ও তথাকথিত মুক্তমনা লেখিকা তসলিমা নাসরিন বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদের খুনিদের পক্ষ নিয়ে ফেসবুকে এক পোস্ট করেছেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে তাকে নিয়ে ঘৃণা উদগীরণ করে চলছেন সোশ্যাল মিডিয়ার নেটিজেনরা। পরিচিত অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট ও মানবাধিকার কর্মী পিনাকী ভট্টাচার্য তসলিমাকে ব্যাঙ্গ করে তার একটি পোস্ট শেয়ার করে লিখেছেন, আচ্ছা, বিজ্ঞানমনস্ক তসলিমা নাসরীন কি শিবলিঙ্গে পানি থুক্কু জল ঢেলে উনার আই লাভ ইউ আর চুমু টুমু খেতে পারে এমন প্রেমিক পেয়েছিলেন? কেউ জানেন? ওই পোস্টে তসলিমা তার জন্য প্রেমিক খুজতে শিবলিঙ্গে জল ঢালার ছবি শেয়ার করেছিলেন। পিনাকী ভট্টাচার্য তসলিমাকে উদ্দিশ্য করে আরও লেখেন, “হিন্দুত্ববাদকে এদের দলই বাংলাদেশে নাস্তিকতা বলে চালিয়েছে। এই উন্মাদ মহিলা বিদেশে মানবাধিকার কর্মী বলে পরিচিত। এই অপদার্থের ভাগ্য নেহাত ভাল যে সে ইংরেজিতে লিখতে পারে না। তাই সে যে কী বালছাল লিখে বালের মানবতাবাদী হইছে সেইটা কেউ বুঝতে পারেনা। এইবার খোঁজ নেন কারা তসলিমাকে এই জায়গায় আনছে? বাংলাদেশের বাম আর আওয়ামী পন্থী সেক্যুলার এস্টাবলিশমেন্টের লোকেরাই তো? ঠিক কিনা বলেন”।

এদিকে আবরার হত্যাকান্ড নিয়ে তসলিমার লেখা বিতর্কিত ওই পোস্টে সে লিখেছে, আরবাব অফিসিয়ালি শিবির না করলেও শিবিরের মতো চাল চলন আর চিন্তা ভাবনা বানিয়েছিল । তাতে কী! শিবিরদেরও বাঁচার অধিকার আছে। তাকে যারা পিটিয়েছিল, আমার বিশ্বাস, মেরে ফেলার উদ্দেশে পেটায়নি। কিন্তু মাথায় আঘাত লেগেছে, মরে গেছে। যারা পিটিয়েছিল, তাদের শাস্তি অবশ্যই হতে হবে। এর মধ্যেই কয়েকটাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এছাড়াও আবরার ফাহাদ নিয়মিত নামাজ পড়তো এই বিষয়টিও মেনে নিতে পারছে না তসলিমা। যদিও নিয়মিত তসলিমা হিন্দুদের মন্দিরে যায় তারপরও ইসলাম ধর্ম নিয়ে তার বরাবরই বিরুপ প্রতিক্রিয়া থাকে। কথিত মত প্রকাশের স্বাধীনতার নামে বাংলাদেশ থেকে বিতারিত ও ভারতে হিন্দুত্ববাদের আশ্রয়ে থাকা এই নারী এর আগেও অনেকবার ইসলাম নিয়ে কটুক্তি করে মত প্রকাশ করেছেন। তবে অনেকেই মনে করছে এগুলো তসলিমার আলোচনায় থাকার কৌশল। এ বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় একজন মন্তব্য করেছেন, যেহেতু তার জীবনধারণ হয় বিভিন্ন পুরুষের বিছানায় গিয়ে তাই আলোচনায় থাকতে তিনি এ ধরণের নিয়ম ফলো করে থাকেন। এছাড়াও তসলিমাকে নিয়ে ঘৃণা প্রকাশ করে অনেকেই ফেসবুক পোস্ট করছেন।

মন্তব্য করুন