দক্ষিণ কোরিয়ার বিখ্যাত ইউটিউবার ‘জে কিমে’র ইসলাম গ্রহণ

প্রকাশিত: ৮:৫৪ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০১৯
ইসলাম গ্রহণ করছেন ‘জে কিম’।

ইসলাম গ্রহণ করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার বিখ্যাত ইউটিউবার ‘জে কিম’। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে গত ২৫ সেপ্টেম্বর বুধবার ইসলাম গ্রহণকালে ধারণকৃত একটি ভিডিও আপলোডের মাধ্যমে মুসলমান হওয়ার ঘোষণা দেন ‘জে কিম’। এর আগে গত ২০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার স্থানীয় মসজিদের ইমামের কাছে গিয়ে ইসলাম কবুল করেন ‘জে কিম’।

ভিডিওতে দেখা যায়, মুসলমান পন্ডিতের হাতে কালেমা পড়ে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করেন কিম। মুসলাম হয়ে নিজের নাম পরিবর্তন করে রাখেন দাউদ কিম। মুসলিম পন্ডিত ইসলামের বিভিন্ন বাণী তার সামনে তুলে ধরেন।

এসময় জে কিম বলেন, ‘আমি স্বতোস্ফুর্তভাবে নিজের ইচ্ছায় ইসলাম গ্রহণ করলাম। আমি ওয়াদা করছি ইসলামের অনুসঙ্গ পরিপূর্ণভাবে পালন করবো। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি আল্লাহ আমার রব এবং মোহাম্মদ সা. তার রাসূল।  এবং কোরআন আমার পথ নির্দেশিকা। আমি বিশ্বাস করি আল্লাহ এক ও অদ্বিতীয়। আমি বিশ্বাস করি তার ফেরেশতা ও ঐশীগ্রন্থ। তিনিই বিচার দিনের মালিক’।

jay-kim-daud-kim_জে কিম-দাউদ কিম

মুসলমান হওয়ার পর নিজের ইনস্ট্রগ্রামে এই ছবি আপলোড করেন দাউদ কিম (জে কিম)

ইসলাম গ্রহণের পর ‘জে কিম’ শুধু নামই পরিবর্তন করেননি; তার ইউটিউব চ্যানেলের কভার ফটোতেও এনেছেন পরিবর্তন। কভার ফটোতে একটি মসজিদের মিনারে দৃশ্যে আলহামদুলিল্লাহ লিখে আপলোড করেছেন।

এরপর গত ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার নিজের ইউ টিউব চ্যানেলে আরেকটি ভিডিও আপলোড করেন দাউদ কিম। সেখানে একজনকে প্রশ্ন করতে শুনা যায়। প্রশ্নকারী তাকে ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে জানতে চায় এবং তাকে ‘পাগল হলে নাকি’ বলে বিস্ময় প্রকাশ করেন। এছাড়াও তার পরিবার সম্পর্কেও জানতে চান অজ্ঞাত ওই প্রশ্নকারী। জবাবে দাউদ কিম নিজের ইসলাম গ্রহণের অনুভুতি বলেন। তিনি জানান, তার পিতা মাতাকেও ইসলামের দাওয়াত দিবেন। তিনি বলেছেন, আমি আমার মাকে বলেছি, কারণ আমি মুসলমান।

দাউদ কিম বলেন, ‘ইসলাম ধর্মের প্রতি যখন থেকে আমি আগ্রহী হলাম, তখন থেকে আমার জীবনের অনেক কিছুই বদলাতে শুরু করলো। আমি এখনো পুরোপুরি প্রস্তুত নই, তবুও একটু একটু করে ভালো মুসলিম হয়ে উঠব। যদিও আমি আগে অনেক পাপ করেছি, এখন তওবা করে শুদ্ধ হতে চাই’।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালের ২২ আগস্ট ইউটিউবে জয়েন করেন জে কিম। তার চ্যানেলে প্রায় ৬ লক্ষ ৭০ হাজারেরও বেশি সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। মোট ভিউ রয়েছে প্রায় ৩ কোটি ৫২ লক্ষ ৪ হাজার ১শ’ চৌরানব্বই। ইউটিউবে তিনি বিভিন্ন ধরণের ভিডিও বানিয়ে আপলোড করতেন। ইসলাম ও মুসলমানদের বিভিন্ন কৃষ্টি-কালচার নিয়েও তিনি ভিডিও বানিয়েছেন। মুসলমানদের নিয়ে কাজ করতে গিয়েই মূলত তিনি ইসলামের প্রতি অনুপ্রাণিত হন।

/এসএস

মন্তব্য করুন