মায়ের নিঃস্বার্থ ভালবাসা

প্রকাশিত: ১০:১৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৯

সাইদুর রহমান সাদী

মা শব্দটি অনেক ছোট হলেও সেটিতে লুকিয়ে আছে অকৃপণ ও নিঃস্বার্থ ভালোবাসা, অসীম ও আশ্চর্য রকমের এক শক্তি-বল । সন্তানের জন্য মায়ের আত্মত্যাগের কথা কে না জানে? কে না বুঝে? এ নশ্বর ভুবনে একমাত্র মা-ই সন্তানের জন্য নিজের জীবন বাজি রাখতে পারে। কিন্তু বড় হতে হতে অনেক সময় আমরা ভুলে যাই মায়ের নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগ আর ভালবাসা। বাস্তব জীবনে সন্তানের প্রতি মায়ের তীব্র ভালোবাসার নিদর্শনও আমরা দেখি, হাজারো প্রমান আমরা জানি।

গতবছরের বর্ষাকাল। লঞ্চে পদ্মানদী পার হচ্ছিলো মা। তার সাথে নবজাতক সন্তান। হঠাত মায়ের কোল থেকে নবজাতক নদীতে পরে যায়। আর সঙ্গে সঙ্গে মা উত্তল ঢেউয়ে নিজের জীবনের চিন্তা না করে পানিতে ঝাপ দেয়। দুজনেই নিখোঁজ হয়। এরপরের দিন দুজনেরই মরাদেহ উদ্ধার করা হয়। খবরের কাগজ,  টিভি, মিডিয়া ও সোশাল মিডিয়ার প্রায়ই চোখে পড়ে -সন্তানকে বাঁচাতে জীবন দিচ্ছেন মা। মায়ের ভালোবাসার নিদর্শন শুধু মানুষের জন্যই প্রযোজ্য এমন নয়, সমগ্র প্রাণিজগতের জন্যও রয়েছে।

মানুষের মতো প্রাণিজগতেও রয়েছে অবাক করা মাতৃত্ব ও ভালবাসা। পশুরাও মায়ের কোলকে সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয় বলে মনে করে। নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়ে নিজ সন্তানকে বাঁচিয়ে রাখার অপূর্ব নজির মানুষ ছাড়াও অন্য কিছু প্রাণীর মধ্যেও রয়েছে। যেমনটা বেশিরভাগ ডিসকোভারি চ্যানেলে দেখা যায়।

মায়ের আত্মত্যাগের কথা আমরা ভুলে যাই বলেই কিছু বীভৎস খবর প্রকাশিত হয়, ‘সন্তানের হাতে মা খুন’ কিংবা ‘বৃদ্ধ মাকে রাস্তায় ফেলে রেখে সন্তানের পলায়ন’। যাদের অবস্থা কিছুটা সচ্ছল তারা মাকে আবার বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসে! পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধনগুলো শিথিল হচ্ছে বলেই পশ্চিমাদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বৃদ্ধাশ্রমের কদর বাড়ছে আমাদের দেশেও। আর সন্তানকে মা-বাবার ভরণপোষণে বাধ্য করতে সরকারকে আইন করতে হচ্ছে। অথচ মায়ের মাঝেই লুকিয়ে আছে স্বর্গীয় সুখ ও শেষ আশ্রয়।

লেখক, শিক্ষক মারকাযুত তাকওয়া ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার, যাত্রাবাড়ী, ঢাকা

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন