গোসলের ভুলেও হয় ত্বকের সমস্যা

প্রকাশিত: ৬:১৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

তাড়াহুড়োর কারণে অনেক সময় গোসল যত্ন সহকারে হয় না। তড়িঘড়ি গোসল করলে যেমন তৈলাক্ত ত্বকের ঘাম–ময়লা পরিষ্কার হয় না, তেমনই জীবাণু বেড়ে সূত্রপাত হতে পারে চর্মরোগের। তাই গোসলের মূল যত্নটুকু বাদ দিয়ে শুধুই জীবাণুনাশক সাবান মেখে গোসল করলে বাড়ে বিপদ।

ত্বক রুক্ষ হলে বার বার গোসল করলেও সমস্যা ৷ সমস্যা হয় গায়ের জোরে ঘষে ঘষে ময়লা, জীবাণু দূর করলে।কারণ অপকারীদের সঙ্গে কিছু উপকারী জীবাণু ধুয়ে গেলে সংক্রমণের আশঙ্কা বাড়ে। খুব রগড়ে গোসল করলে, গায়ে যে সূক্ষ্ম আঁচড় পড়ে, জীবাণু সেই ছিদ্রপথে ঢুকে সংক্রমণ ঘটাতে পারে। বেশি ঘষাঘষিতে ত্বকে পড়ে অকাল বলিরেখাও।

‘মধ্যম পন্থা ছাড়া গতি নেই। শুষ্ক থেকে স্বাভাবিক ত্বকে দিনে দু’–এক বার গা ধুতেই পারেন। ঠান্ডার ধাত না থাকলে গোসল করুন। তৈলাক্ত ত্বকে আর এক–আধবার বাড়ানোও যেতে পারে। শরীরকে যে ভাবেই পরিষ্কার করুন না কেন, গোসলের কিছু নিয়মকানুন না মানলে কিন্তু সমস্যা বাড়ে।’— জানালেন ত্বকবিশেষজ্ঞ কৌশিক লাহিড়ী।

বেশি গরম জলে করলে ত্বক–চুল শুকিয়ে যায়। কম বয়সে বলিরেখাও পড়তে পারে। কাজেই সামান্ন গরম পানি  দিয়ে গোসল করুন। হালকা গরমে রক্তসঞ্চালন ভাল হবে। তরতাজা লাগবে।

গরম পানিতে গোসল করলে চুল লালচে, নির্জীব হয়ে যেতে পারে। ত্বকে আসতে পারে কালচে ভাব। সে ক্ষেত্রে পানিতে বাথ সল্ট মেশান। পানি মৃদু হবে, ত্বকও পরিষ্কার হয়ে ত্বকের আর্দ্রতা থাকবে ঠিকঠাক। তবে নিয়মিত ব্যবহারে স্পর্শকাতর ত্বকে লাল ছোপ পড়তে পারে। ত্বক রুক্ষ হয়ে ফেটে যেতে পারে। রং–গন্ধে অ্যালার্জিও হয় অনেকের। বাথ অয়েলও তাই। এমনিতে ভাল। তবে রং–গন্ধ ও ডিটারজেন্ট থেকে স্পর্শকাতর ত্বকে অ্যালার্জি হতে পারে। তাই বাথ সল্ট বা বাথ অয়েল ব্যবহারের আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

স্পর্শকাতর ত্বকে রং–গন্ধওয়ালা সাবানে সমস্যা হতে পারে। বেবি সোপেও অনেক সময় হয়। সে ক্ষেত্রে মাখুন গ্লিসারিন সাবান বা সোপ ফ্রি সোপ। তরল সাবানে অ্যালার্জি হলে সেটাফিল ক্লিনজিং লোশন বা অ্যাকোয়াডার্ম লিকুইড সোপ মেখে দেখুন। শাওয়ার জেলের মধ্যে সোপ ফ্রি জেল মোটামুটি নিরাপদ।

ঘামাচি, ঘামের গন্ধ বা ত্বকের সমস্যায় দিন কয়েক মেডিকেটেড সোপ মাখতে পারেন। নিয়মিত মাখলে অ্যালার্জি বাড়তে পারে। ব্রণ হলে জীবাণুনাশক সাবানে বার বার মুখ ধুলে ব্রণ কমার বদলে বাড়ে। অন্য চামড়ার রোগেও সাবান কম মাখা ভাল।

দিনে দু’বারের বেশি সাবান মাখবেন না। হালকা করে ঘষে মাখুন। ময়লা–তেল–কালির সঙ্গে মরা কোষ দূর হয়ে ত্বক উজ্জ্বল হবে।

ফোম বাথের শখ হলে সোডিয়াম লরিল সালফেট রাসায়নিকের দু’-এক ছিপি দিয়ে বাথটবে পানি ভরুন। তাতে গা ডোবালে তেল–কালি–জীবাণু যেমন ধুয়ে যাবে। দূর হবে স্ট্রেস৷ এর পর পরিষ্কার পানি দিয়ে গা ধুয়ে নিন। তবে ফোম বাথের ফেনা থেকে সামান্য কিছু ক্ষেত্রে মেয়েদের যৌনাঙ্গে বা মূত্রনালীতে সমস্যা হতে পারে।

তৈলাক্ত ত্বকে দরকার নেই৷ শুষ্ক বা সাধারণ ত্বক হলে শীতকালে লাগবে তেলের ছোঁয়াচ। তবে আবহাওয়া উষ্ণ ও বায়ুতে আর্দ্রতা বেশি হলে তেল মাখার কারণে ঘামাচি বা ফোড়া হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

তেল লাগান গোসলের পর। ত্বক বহু ক্ষণ সজীব থাকবে এতে। মালিশের সময় না থাকলে গোসলের পানিতে মিশিয়ে নিন। তারপর নরম তোয়ালে দিয়ে হালকা করে মুছে নিলেই হবে।

স্পর্শকাতর ত্বকে গন্ধহীন নারকেল তেল বা অলিভ অয়েল মাখুন। ভিটামিন মেশানো বা ওষধি তেল মেখে কোনও লাভ নেই। তেল মেখে রোদে বসে থাকলে ত্বক পুড়ে যেতে পারে৷ জন্ম হতে পারে অকাল বলিরেখারও। তাই এই বিষয়টি এড়িয়ে চলুন।

গোসলের সময় এ ক’টা বিষয় মাথায় রাখলেই শরীর পরিষ্কার হওয়ার সঙ্গে ত্বকের সমস্যাও মিটবে, জীবাণুর হানা রুখে দেওয়াও আরও সহজ হবে।

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন