জর্দান তীর দখলের আগ্রাসী ঘোষণার তীব্র নিন্দা জানালো ইরান

প্রকাশিত: ৮:৪৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯
বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও আব্বাস মুসাভি

ইহুদিবাদী ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু অধিকৃত জর্দান নদীর পশ্চিম তীরের একটি উপত্যকাকে ইসরাইলের অংশ করে নেওয়ার যে ঘোষণা দিয়েছেন তার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইরান। তেহরান বলেছে, ইসরাইলের আসন্ন নির্বাচনে জয়লাভ করে ক্ষমতায় টিকে থাকার অশুভ লক্ষ্যে নেতানিয়াহু এই ন্যক্কারজনক ঘোষণা দিয়েছেন।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি গতরাতে (বুধবার রাতে) তেহরানে এক বিবৃতিতে বলেন, “নেতানিয়াহু ভোটে জেতার জন্য আগ্রাসী ও দখলদার মানসিকতার বিকৃত বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছেন। একদিন তিনি ইরানের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ উত্থাপন করছেন তো আরেকদিন ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডকে অবৈধ এই রাষ্ট্রের অংশ করে নেয়ার হুমকি দিচ্ছেন।” মুসাভি আরো বলেন, যেসব আরব দেশ নিজেদেরকে আরব বিশ্বের নেতা বলে দাবি করে তারা মুসলিম বিশ্বের প্রধান সমস্যা ফিলিস্তিন সংকটকে বাদ দিয়ে অন্যান্য ইস্যুতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

এসব দেশ ইয়েমেনে সামরিক আগ্রাসনে ব্যস্ত রয়েছে এবং ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে।সুনির্দিষ্ট এসব আরব দেশের কারণে তেল আবিব তার অশুভ ও বিকৃত মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ ঘটানোর সুযোগ পাচ্ছে বলে ইরানের এই মুখপাত্র উল্লেখ করেন। মুসাভি বলেন, নেতানিয়াহু যে ঘোষণা দিয়েছেন তা প্রতিহত করার জন্য মুসলিম দেশগুলো সম্মিলিত কোনো প্রচেষ্টা নিলে তেহরান তাকে স্বাগত জানাবে।

ইহুদিবাদী প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু মঙ্গলবার এক নির্বাচনি জনসভায় ঘোষণা করেন, আসন্ন আগাম নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে আবার সরকার গঠন করতে পারলে তিনি জর্দান নদীর পশ্চিম তীরের ‘জর্দান উপত্যকা’কে ইসরাইলের অংশ হিসেবে ঘোষণা করবেন এবং সেখানে ইহুদি বসতি নির্মাণের লক্ষ্যে ইসরাইলি পার্লামেন্টে বিল উত্থাপন করবেন।

তিনি বলেছেন, ১৭ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে জয়লাভের পরপরই জর্দান উপত্যকা এবং ডেড সি বা মৃত সাগরের উত্তরাঞ্চলে ইসরাইলের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা করা হবে। আরব লীগের মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক থেকে বুধবার নেতানিয়াহুর এ ঘোষণার নিন্দা জানানো হয়েছে। মিশরের রাজধানী কায়রোতে অনুষ্ঠিত আরব লীগের বৈঠকে অংশগ্রহণকারী মন্ত্রীরা বলেছেন, নেতানিয়াহু আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করবেন বলে ঘোষণা দিয়ে নয়া আগ্রাসনের বার্তা দিয়েছেন এবং এটি বিপজ্জনক অভিব্যক্তি।

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন