কাশ্মীর ভারতের ছিল, আছে এবং থাকবে: জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ

প্রকাশিত: ৬:১২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

ইসমাঈল আযহার: ‘কাশ্মীর আমাদের ছিল, আছে এবং থাকবে। আর যেখানে ভারত থাকবে সেখানেই আমরা আছি।’ অত্যন্ত স্পষ্ট করে এ কথা জানিয়ে দিলেন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ মাদানি। বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় এ কথা বলেন মাহমুদ মাদানি। ভারতসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ খবর উঠে এসেছে। কাশ্মীরকে ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলেও মন্তব্য করেছেন জমিয়তের এই নেতা।

আজ নয়াদিল্লিতে আয়োজিত বৈঠকে এ সংক্রান্ত এক প্রস্তাব পাস করা হয়েছে। সেখানে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ বলেছে, যেকোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন কেবল দেশ নয় বরং কাশ্মীরের মানুষের জন্যও ক্ষতিকর। আমরা মনে করি যে কাশ্মীরি জনগণের গণতান্ত্রিক ও মানবাধিকার রক্ষা করা আমাদের জাতীয় কর্তব্য। তা সত্ত্বেও, আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস যে তাদের মঙ্গল ভারতের সাথে থাকার মধ্যেই রয়েছে। বিরোধী শক্তি ও প্রতিবেশি দেশ কাশ্মীরকে ধ্বংস করার দিকে ঝুঁকেছে।

জমিয়তের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়, ভারত আমাদের দেশ এবং আমরা এর পাশে দাঁড়িয়েছি। পাকিস্তান আন্তর্জাতিক মঞ্চে দেখানোর চেষ্টা করছে যে ভারতের মুসলিমরা দেশের বিরুদ্ধে। আমরা পাকিস্তানের ওই পদক্ষেপের নিন্দা জানাচ্ছি।’ সম্প্রতি জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি মাওলানা আরশাদ মাদানী ও আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবতের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়। এসময় উভয় নেতার মধ্যে দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা হয়।

উভয়পক্ষ থেকে ওই বৈঠককে ঐতিহাসিক ও অত্যন্ত ফলপ্রসূ বলে অভিহিত করা হয়। গত ৩০ আগস্ট দিল্লীতে আরএসএসের কার্যালয় কেশবকুঞ্জের ওই বৈঠক মাত্র ৩০ মিনিটের জন্য নির্ধারিত থাকলেও উভয়ের মধ্যে সংলাপ শুরু হলে তা দেড় ঘণ্টা পর্যন্ত চলে। মাওলানা মাদানি রাত দশটায় কেশবকুঞ্জে পৌঁছন। রাত পৌনে বারোটা পর্যন্ত উভয়ের মধ্যে কথাবার্তা হয়।

আজ হিন্দি টিভি চ্যানেল ‘আজতক’ মাদাদি-ভাগবতের মধ্যে বৈঠকের কথা উল্লেখ করে বলেছে, সম্প্রতি কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়েছে। এর বিরোধিতায় বিভিন্ন দল ও মুসলিম সংগঠনের বিবৃতি এসেছে। পাকিস্তানও প্রকাশ্যে বিরোধিতায় নেমেছে। এরকম পরিস্থিতিতে কাশ্মীর ইস্যুতে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের বিবৃতি কেন্দ্রীয় সরকারের জন্য বড় স্বস্তির বিষয় হতে পারে।

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন