ইবিতে আন্তর্জাতিক সম্মেলন শনিবার শুরু

প্রকাশিত: ৭:৩৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

ইবি প্রতিনিধি: এবারই প্রথম বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সপ্তম ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম ফর স্যোসাল ডেভেলপমেন্ট এশিয়া প্যাসিফিক (আইসিএসডিএপি) দ্বিবার্ষিক আন্তর্জাতিক সম্মেলন।

ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম ফর স্যোসাল ডেভেলপমেন্ট এশিয়া প্যাসিফিক (আইসিএসডিএপি) ব্রাঞ্চ ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যোসাল ওয়েলফেয়ার বিভাগের যৌথ আয়োজনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই দিনব্যাপী “স্যোসাল আনরেস্ট, পিচ এন্ড ডেভেলপমেন্ট” শীর্ষক এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।

আগামী ১৪ ও ১৫ সেপ্টেম্বর এ সম্মেলন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি ভেন্যুতে একযোগে অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নেবেন এশিয়া, ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের ৮ দেশের শতাধিক সামাজিক উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ- গবেষক। দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ে এ ধরনের সর্ববৃহৎ আয়োজন এটিই প্রথম। আন্তর্জাতিক এ সম্মেলন সফল করতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার থেকে শুরু করে ব্যাপক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এ সম্মেলনের মধ্যদিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে আন্তর্জাতিকভাবে কূটনৈতিক সুসম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে বলে আশাবাদী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এ সম্মেলন উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের তৃতীয় তলায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এসময় ড. মিঠুন মোস্তাফিজের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন, উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: শাহীনুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো: সেলিম তোহা, ড. মামুনুর রহমান, আইসিএসডির সভাপতি ও চার্লস স্টুয়ার্ট ইউনিভার্সিটি, অস্ট্রেলিয়া এর সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক মনোহর পাওয়ার।

সম্মেলন পৃষ্ঠপোষক হিসেবে রয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. হারুন উর রশীদ আসকারী, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহিনুর রহমান ও সভাপতি আইসিএসডির সভাপতি ও চার্লস স্টুয়ার্ট ইউনিভার্সিটি, অস্ট্রেলিয়া এর সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক মনোহর পাওয়ার।

প্রসঙ্গত, চলমান বৈশ্বিক সামাজিক সঙ্কট হতে উত্তোরণের পথ খুঁজতে ১.গৃহযুদ্ধ, শরণার্থী ও সামাজিক অস্থিরতা ২. অর্থনৈতিক বৈষম্য এবং শান্তি ও উন্নয়নের ওপর প্রভাব ৩. জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং সামাজিক অস্থিরতা ৪.বিশ্বায়ন, অভিবাসন এবং শান্তি ও উন্নয়নের পথে চ্যালেঞ্জ ৫.লিঙ্গ বৈষম্য, সহিংসতা, শান্তি এবং উন্নয়ন ৬.দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং শান্তি ও উন্নয়নের প্রতিবেশ, ৭. শান্তি, শিক্ষা, সামাজিক উদ্যোগ ও টেকসই উন্নয়ন, ৮. সামাজিক অস্থিরতা, শান্তি এবং রাজনৈতিক প্রক্রিয়া ৯. দ্বন্দ্ব নিরসন, শান্তি ও উন্নয়নে এনজিও ১০. সামাজিক অস্থিরতা দূরীকরণ, স্থানীয় ও জাতীয় উন্নয়নের মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠায় যুব সমাজের ভূমিকা ১১. জাতি-ধার্মিকতা, সামাজিক অস্থিরতা, শান্তি ও উন্নয়ন ১২. আন্তর্জাতিক আদালতে দ্বন্দ্ব নিরসন, শান্তি ও উন্নয়ন ১৩. টেকসই উন্নয়ন অর্জনে ব্যবসায়িক-সামাজিক দায়িত্ববোধ শীর্ষক এসব বিষয়ের উপর আলোচনা করবেন গবেষকগণ।

মন্তব্য করুন