দেশটা বেইচা দেন: ব্যারিস্টার সুমনের লাইভ

প্রকাশিত: ৮:০৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯

ইসমাঈল আযহার
পাবলিক ভয়েস

দীর্ঘদিন ধরে সোনারগাঁও রোডে পড়ে আছে একটি অকেজো-নষ্ট গাড়ি। গুরুত্বপূর্ণ এই রোডে এমন একটি গাড়ি পড়ে থাকায় যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে চরম দুর্ভোগে। মাসকে মাস পড়ে থাকা গাড়িটির দিকে সড়ক কর্তৃপক্ষের নজর না গেলেও সম্প্রতি সেদিকে নজর পড়েছে ব্যারিস্টার সায়্যেদ সাইদুল হক সুমনের। বিষয়টি নিয়ে তিনি লাইভে আসেন এবং গাড়িটার মালিক খোঁজ করেন। এ লাইভে তিনি আক্ষেপ করে দেশটা বেচে দিতেও বলেন।

গতকাল রোববার  ‘এই গাড়ির মালিক খুঁজে কেউ দিবেন কি?’ এমন একটি ক্যাপশন দিয়ে সাড়ে ৩ মিনিটের একটি ফেসবুক লাইভ করেন ব্যারিস্টার সুমন। লাইভে তিনি বলেন, আমি একটি গাড়ির মালিক খুঁজতেছি কিন্তু কোনোভাবেই গাড়ির মালিক খুঁজে পাচ্ছি না। বুঝতে পারতেছি না। অনেকদিন যাবৎ এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি জায়গায় একটি গাড়ি পড়ে আছে কিন্তু কেউ মালিক খুঁজে পাচ্ছেন না। আমি এটার মালিক খোঁজার চেষ্টা করছি। তিনি ভিডিও লাইভে গাড়িটি ভাল করে দেখান দর্শকদের। সময় টিভি এবং বাংলা ভিশনের অফিস এই জায়গা থেকে একটু দূরে সেটাও লাইভে মনে করিয়ে দেন সুমন।

কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে সাইদুল হক সুমন বলেন, যারা কর্তৃপক্ষ আছেন তারা যদি আল্লাহর ওয়াস্তে মালিক বের করে গাড়িটাকে সরিয়ে দিতেন তাহলে খুব ভাল হতো। সুমনের এই লাইভ কেন্দ্র করে আশপাশে জড়ো হয় অনেক মানুষ। একজন লোককে ডেকে সুমন জানতে চান, গাড়িটি কতোদিন ধরে পড়ে আছে। লোকটি জানায়, এই রাস্তা দিয়ে তিনি নিয়মিত যাতায়াত করেন এবং তিনি গাড়িটি ২০১৮ সালের অক্টবর থেকে গাড়িটি পড়ে থাকতে দেখছেন।

লাইভে সুমন বলেন, যারা ট্রাফিক বিভাগে কাজ করেন তাদের কাজ কী! সিটি কর্পরেশনের কাজ কী! এই জিনিস যদি আপনাদের চোখে না পড়ে দেশটাকে বেইচা দেন, আর লাগে না। এক বছরে যদি এই জিনিসটা চোখে না পড়ে তাহলে ট্রাফিক জ্যাম ছুটাবেন কীভাবে? ঘন্টার পর ঘন্টা এইসব জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের মানুষ ৫০ বছর বাঁচে না  আর এইসব কারণে জ্যামে বসে থাকতে হয় ১০ বছর। এই মানুষ দিয়ে আপনি কী উৎপাদন করবেন এই দেশে। আমি আল্লাহর ওয়াস্তে বলছি এই গাড়ির মালিক খুঁজে বের করেন। তাকে জিজ্ঞেস করেন, কেন সে এক বছর ধরে এই জায়গায় গাড়িটি ফেলে রাখলো। গাড়ির মালিক কি  আপনাদের এমন কোনো আত্মীয় যাকে জিজ্ঞেস করা যাবে না। আর না হয় আমাকে বলেন, আমি জিজ্ঞিস করি এই গাড়ির মালিক কে!

লাইভের শেষ দিকে ফের ট্রাফিক বিভাগ  এবং কর্তৃপক্ষকে সুমন অনুরোধ জানান। বলেন, আল্লাহর ওয়াস্তে এই গাড়িটি সরান। আর কতো অভিশাপ নেবেন। অভিশাপ দেওয়া লাগবে না নিয়তিই আপনাদের ওই জায়গায় নিয়ে যাবে। সুমনের এই শেষ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে জড়ো হওয়া মানুষের করতালি দেন এবং ঠিক বলে চিল্লিয়ে ওঠেন।

এই লাইভ ভিডিওতে অনেকেই কমেন্ট করেছেন। পাবলিক ভয়েসের পাঠকদের জন্য কয়েকটি কমেন্ট উল্লেখ করা হল। লাইভ দেখতে ক্লিক করুন ( গাড়ির মালিক খুঁজছি)

জাহির তালুকদার নামের এক ব্যক্তি লিখেছেন, এতিমের রান্না ঘর নিয়ে গেলো পার্কে বানানোর জন্য সেখানে কি লাইভ করা যায়? নীল আকাশ নামের আরেকজন লিখেন, এতিমদের রান্নাঘর ভাঙ্গার সময় কোথায় ছিলেন স্যার?

রনি আহমেদ লিখেছেন, খুবই অবাক লাগে, এতো গুরুত্বপূর্ণ একটা জায়গায় এতো দিন ধরে একটা ভাঙ্গা গাড়ি পড়ে রইলো তা কোনো কতৃপক্ষের নজরে পড়লো না, কেয়ামতের এক সেকেন্ড আগেও এ দেশের মানুষ ঠিক হবে না।

আরেকজন লিখেছেন, ‘ভারতের সাম্রাজ্যবাদী নীতিতে আমাদের নতজানু সরকার’ এ বিষয়ে কিছু বলুন স্যার।

নাসিমা আক্তার লিখেছেন,  ভালো কাজ, জনগণের উপকার করছেন। রাস্তায় জ্যাম এরপরে রাস্তায় পাশে গাড়ি। খুব খারাপ । খুব সুন্দর মনের মানুষ। আপনার জীবনটা ধন্য আল্লাহ আপনার প্রতি সহায় হোক।

শারিফ মোহাম্মাদ  লিখেছেন, নামের মার্কেট পাবার জন্য লাইভ করেন ভাই আপনি । আজ পর্যন্ত দেখলাম না দুর্নীতির হত্যার শেয়ার বাজার নিয়ে একটা ও লাইভ করলেন না আপনি।

আই.এ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন