ভারতীয় টিভিতে কট্টরপন্থী আখ্যা দিয়ে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ নিয়ে প্রতিবেদন

কাশ্মীর

প্রকাশিত: ২:০৫ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৯, ২০১৯

সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে কাশ্মীরের স্বায়ত্ব শাসন বাতিল এবং রাজ্য মর্যাদা বিলুপ্ত করে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের অধিনে নেওয়ার ঘটনায় ঢাকায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর বিক্ষোভ নিয়ে কট্টরপন্থী আখ্যায়িত করে প্রতিবেন করেছে ভারতের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ‘জি নিউজ’। বুধবার ৭ আগস্ট ‘জি নিউজ’র অনলানে বাংলা ভার্সনে ‘সুযোগ পেলে বাংলাদেশ দখল করবে মোদী, ঢাকায় বিক্ষোভে আশঙ্কা কট্টরপন্থীদের’ শিরোনমে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনটি হুবহু তুলে ধরা হলো:

জম্মু-কাশ্মীরে ভারতের ৩৭০ ধারা রদ করার প্রতিবাদে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ। ভারতের বিরুদ্ধে রীতিমতো জেহাদের হুঙ্কার দিয়েছেন ওই সংগঠনের নেতা আমির (মূলত নায়েবে আমীর হবে) ফয়জুল করীম চরমোনাই। মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে কাশ্মীরের জন্য প্রয়োজনীয় সময় ও জীবন দেওয়ার ঘোষণা করেছেন তিনি।

রীতিমতো ভারতের বিরুদ্ধে বিষোদগারও করা হয়েছে বিক্ষোভ মিছিলে। আমির (মূলত নায়েবে আমীর হবে) ফয়জুল করীম চরমোনাই বলেন,‘নেহরু সাহবে সংবিধানে কাশ্মীরকে স্বতন্ত্র মর্যাদা দিয়েছিলেন। কাশ্মীরের জনগণই শুধু ব্যবসা, সরকারি চাকরি ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারেন। বহিরাগতরা, ভারতীয় নাগরিক হলেও জমি ক্রয় বা ব্যবসা করতে পারতেন না। মোদী সরকার অবৈধভাবে ৩৭০ ধারা পরিবর্তন করেছে। সংবিধানের শর্ত মানেনি ভারত সরকার’।

তবে কাশ্মীরের মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বড় বড় ভাষণ দিতে গিয়ে মনের ভয় লুকোতে পারেননি করীম। মোদীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে গিয়ে বলে ফেলেন, ‘ভারতের সংবিধান লঙ্ঘন করে আগ্রাসন চালাচ্ছে মোদী সরকার। আমাদের ভয় ষড়যন্ত্রের নজর পড়তে পারে বাংলাদেশে। অবৈধভাবে দেশ দখলের চক্রান্ত করছে মোদী সরকার। আমি মনে করি, যদি মোদীকে সুযোগ দেওয়া হয় তাহলে সেই সুযোগ পেয়ে সে বাংলাদেশ দখল করার চক্রান্ত করবে’।

ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে বন্ধু রাষ্ট্র বাংলাদেশে এমন বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। কারণ, কাশ্মীর একেবারেই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। সে নিয়ে কেউ নাক গলাতে পারে না বলে ইতিমধ্যেই স্পষ্ট করেছে ভারত সরকার।

মুফতী সৈয়দ ফয়জুল করীমের ব্যাখ্যা

এদিকে এ বিষেয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ ফয়জুল করীম। পাবলিক ভয়েসকে দেওয়া এক বিশেষ প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, ‘কাশ্মীর শুধু ভারতের অভ্যন্তরীণ ইস্যু নয়; এটা আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিক ইস্যু। বাংলাদেশের প্রতিবেশি রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশে সরকার এবং দেশের নাগরিকের জন্য এটা চিন্তার বিষয়। কারণ আঞ্চলিক নিরাপত্তার সাথে আমাদের দেশের স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্বের প্রশ্ন জড়িয়ে আছে’।

মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, ‘কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাকিস্তানে আপত্তি আছে জাতিসংঘে। বিষয়টা জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে যাওয়ার পর ভারতের একঘেয়েমির কারণে অমিমাংসিত রয়ে গেছে। ইতোমধ্যে জাতিসংঘও এনিয়ে বিবৃতি দিয়েছে। সুতরাং এটা ভারতের অভ্যন্তরিণ বিষয় নয়। বর‌ং স্বাধীনতাকমাী কাশ্মীরি জনগণের অধিকার খর্ব করে ভারতই কারো অভ্যন্তরিণ বিষয়ে নাক গলিয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে স্বাধীনতাকামী মাজলুম নিপিড়িত মানুষকে সমর্থন দেওয়া কথা বলা হয়েছে। আমরা আশা করবো সরকারও বিষয়টা সেভাবেই দেখবে। সরকারে উচ্চ মহল থেকে কাশ্মীরি জনগণের পক্ষে সমর্থন দিতে আমরা সরকারকে আহ্বান করছি’।

/এসএস

মন্তব্য করুন