কাশ্মীরিদের অধিকার কেড়ে নেওয়ার প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল কাল

প্রকাশিত: ৯:৫৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৫, ২০১৯

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরকে সাংবিধানিক সন্ত্রাসের মাধ্যমে তাদের আলাদা মর্যাদা খর্ব করে কাশ্মীরের অধিকার কেড়ে নেওয়ার প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বিক্ষোভ-মিছিলের ডাক দেওয়া হয়েছে।

সাংগঠনিক বিবৃতিতে জানানো হয় ভারতের বিজেপি সরকার কর্তৃক সংবিধান পরিবর্তন করে কাশ্মীরীদের ন্যায্য অধিকার কেড়ে নেয়ার প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর উদ্যোগে আগামীকাল ৬ আগষ্ট মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের দক্ষিণ গেটে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করবেন দলের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম। এতে অন্যান্য সাংগঠনিক নেতাকর্মীরাসহ জাতীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, ওলামা-মাশায়েখ, ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য রাখবেন।

এর আগে দলের পক্ষ থেকে বিবৃতিতে কাশ্মীর সংকট নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে সংকট নিরসনে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানিয়েছেন দলের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করীম।

তিনি চলমান কাশ্মীর সংকটে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, কাশ্মীর সাতচল্লিশের পর থেকে অগ্নিগর্ভ। বারবার রক্ত ঝরছে সাধারণ মানুষের। কাশ্মীরের আপামর জনতার মতামতকে উপেক্ষা করে ভারতের সংবিধান পরিবর্তনের মাধ্যমে নতুন সংকট তৈরি হলো। এই সংকট নিরসনে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।

আজ সোমবার বিকাল ৩টায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর এক জরুরী সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ডা. মোখতার হুসাইন, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, উত্তর সভাপতি মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ুম, সহকারী প্রচার সম্পাদক মুফতি দেলাওয়ার হোসাইন সাকী ও কেন্দ্রীয় সদস্য অধ্যাপক সৈয়দ বেলায়েত হোসেন প্রমুখ।

মুফতি ফয়জুল করীম আরও বলেন, রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেফতার, গৃহবন্দি, সৈন্য সমাবেশের মাধ্যমে কাশ্মীরে মারাত্মক ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে। হাজার হাজার মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। জনগণের মৌলিক অধিকার চরম হুমকির মুখে। মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। এ ব্যাপারে বিশ্বনেতাদের উদ্যোগ গ্রহণ করা প্রয়োজন।

মন্তব্য করুন