কওমি ছাত্র-শিক্ষকদের ‘ফেসবুক গ্রুপ’ থেকে বন্যার্তদের জন্য ত্রাণ বিতরণ

প্রকাশিত: ১১:০৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২, ২০১৯

“আর্তের সেবায় মানবতার টানে” স্লোগান নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কওমি মাদরাসা ছাত্র শিক্ষকদের ফেসবুক গ্রুপ ‘আসহাবে কাহাফ’ এক নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। গণমাধ্যমে ও বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করে বন্যা পরিস্থিতির চিত্র ও বনবাসি মানুষের দুর্দশা অনুধাবন করে পাশে দাঁড়ানোরর উদ্যোগ নেয় এক ঝাক তরুণ আলেম পরিচালিত এই ফেসবুক গ্রুপ ‘আসহাবে কাহাফ’।

‘বন্যার্তদের জন্য ভালোবাসা-২০১৯’ নামে ইভেন্ট খুলে গ্রুপের সবার কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়ে সুহৃদ বন্ধুদের কাছ থেকে সহযোগীতা নিয়ে তারা এই ইভেন্ট পরিচালনা করেছে। আয়োজকদের সাথে কথা বললে তারা জানান, জীবন যেখানে বিপন্ন সেখানে কওমের আলেমদের দায়িত্বই সবচেয়ে বেশী।

প্রথম পর্বে গত ২৬ জুলাই ২০১৯ শুক্রবার বন্যাকবলিত গাইবান্ধা জেলাধীন সদর উপজেলার সুন্দরগঞ্জ এলাকায় ও কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার টেলিপাড়া পাচগ্রাম ও আসেপাশে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসহাবে কাহাফের সদস্যরা । এসময় পাচশত পরিবারের মধ্যে শুকনো খাবার, আর্থিক সহায়তা ও সুপেয় পানির জন্য তিনটি গভীর নলকূপ স্থাপনের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র স্থানীয় দায়ীত্বশীল ও জনপ্রতিনিধিদের হাতে তোলে দেয়া হয়। এরপর ১ আগষ্ট পুনরায় আরও কিছু পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

আয়োজকরা এ বিষয়ে বলেন, বন্যাকবলিত মানুষগুলো অমানুষের জীবন যাপন করছে। ওরাও আমাদের ভাই-বন্ধু, বাবা-ছেলে বা অন্যকিছু। আমরাও তাদের আপনজন। কেমন আছে ওরা,কী খাচ্ছে,কোথায় থাকছে,কখনো খবর নিয়েছি আমরা? না, ওরা ভালো নেই। আমাদের মা-বোনেরা স্বস্তিতে নেই। থাকা খাওয়ার জায়গা নেই। আমাদের উচিত তাদের পাশে দাঁড়ানো। সাধ্যমতো তাদের সাহায্য করা। অন্তত মানবতার খাতিরে। আমরা অবশ্যই পারি, আমাদের প্রয়োজনের অতিরিক্ত থেকে তাদের জন্য কিছু বরাদ্দ করা। দু’মুঠো খাবারের ব্যবস্হা করা। বাড়তি পোষাক দান করা। আমরা অবশ্যই পারি। আমাদের সেই শক্তি আছে।

আইএ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন