বাম দলগুলোর মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ে পুলিশের বাধা, আহত ১

প্রকাশিত: ১:৩৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০১৯

বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙ্গে জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের চেষ্টা করেছে বাম দলগুলো। এ সময় একজন নেতা আহত হয়েছেন বলে সংগঠনটি দাবি করেছে।

আজ রোববার দুপুর ১২টার দিকে ৮টি বাম সংগঠনের জোট গণতান্ত্রিক বামমোর্চার নেতৃত্বে দুই শতাধিক নেতা-কর্মী সচিবালয়ের পশ্চিম গেইট দিয়ে জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের চেষ্টা করে। গণতান্ত্রিক বামমোর্চা মিছিল নিয়ে জ্বালানি মন্ত্রণালয় অভিমুখে যেতে চাইলে পুলিশ কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে ব্যারিকেড দেয়। এ সময় উত্তেজিত বামমোর্চার কর্মীরা পুলিশের ব্যারিকেড টেনে-হিচড়ে সরিয়ে ফেলে।

এ সময় ধস্তাধ্বস্তির এক পর্যায়ে পুলিশের লাথিতে ছাত্র ফেডারেশনের ঢাকা মহানগর সম্পাদক সৈকত বিশ্বাস আহত হয় বলে সংগঠনটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।

পুলিশী বাধার মুখে পরে সচিবালয়ের পশ্চিম গেইটে সমাবেশ করে বামমোর্চা। গণতান্ত্রিক বামমোর্চার সমন্বয়ক অধ্যাপক আব্দুস সাত্তারের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ (কনভেনশন প্রস্তুতি কমিটি) সদস্য শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, গণসংহতি আন্দোলনের নেতা ফিরোজ আহমদ প্রমুখ। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে সরকারকে বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহেরর দাবি জানানো হয়।

এদিকে পৃথকভাবে বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বেলা ১১টার দিকে জ্বালানি মন্ত্রণালয় অভিমুখে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে সিপিবি-বাসদ, গণফোরাম ও নাগরিক ঐক্য। এ সমাবেশে বক্তারা বলেন, পল্লী বিদ্যুতের ৯ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ ব্যবহার করে ৫৫ কোটি টাকার। বিনিময়ে তাদের বিল দিতে হয় ৯৫ কোটি টাকা। ধনী মানুষ সোনা কিনে ভ্যাট দেয় আড়াই শতাংশ টাকা। কিন্তু বিদ্যুতের জন্য ভ্যাট দিতে হয় ১৫ শতাংশ।

এ ছাড়া ন্যূনতম বিল, মিটার ভাড়া ও সার্ভিস চার্জের নামেও মানুষের পকেট কাটা হচ্ছে প্রতিনিয়িত। সমাবেশ থেকে এ সব বাতিল করে বিদ্যুতের দাম সর্বসাধারণের অনুকূলে রাখার জন্য দাবি জানানো হয়।

সভাপতির বক্তব্যে সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি অযৌক্তিক। এই বর্ধিত দাম আমরা মেনে নিতে পারি না। তিনি বলেন, কুইক রেন্টাল কুইক চুরির কারখানা। সরকারের আশপাশের লোকজন চুরি করার জন্য এগুলো চালাচ্ছে।

সমাবেশে সেলিম আরো বলেন, এবার জ্বালানি মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি দিয়েছি, যদি আমাদের দাবি মানা না হয় তাহলে সরকারের আসল জায়গা ঘেরাওয়ের কর্মসূচি দেয়া হবে। মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম তার বক্তব্যে দাবি আদায়ের জন্য সকল বাম দলগুলোর ঐক্যের আহ্বান জানান। সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু, সিপিবি সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ জাফর আহমদ, নাগরিক ঐক্যের নেতা ইফতেখার আহমদ বাবু, সিপিবি নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স ও বাসদ নেতা বজলুর রশিদ ফিরোজ প্রমুখ।

জিআরএস/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন