মুসলমানদের রক্ষায় বিশ্ব নেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান খেলাফত আন্দোলনের

প্রকাশিত: ৯:৩৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০১৯

ভারতে মুসলমান হত্যা-নিপীড়ন, নারী ধর্ষন, বাড়ি-ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়ার ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে রাজপথে মিছিল করেছে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন। বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশে সভাপতির ভাষণে দলের আমীরে মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী বলেন, ধর্ম নিরপেক্ষতার ধ্বজাধারী গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র নামে পরিচিত ভারতে রাষ্ট্রীয় ইন্দনে চরমপন্থী হিন্দুরা সে দেশের সংখ্যালঘু মুসলমানদের হত্যা-নির্যাতন, নারী ধর্ষন ও মুসলমানদের বাড়ীঘর জালিয়ে দিচ্ছে। সে দেশে মুসলমানদেরকে ইবাদতসহ ধর্মীয় রীতি-নীতি পালনে বাধা দেয়া হচ্ছে। গরু জাবাই ও গোস্ত খাওয়ার কারনে পিটিয়ে হত্যা করে উল্লাস করছে।

তিনি বলেন, মুসলমানদেরকে হিন্দু দেবতার নামে জয় শ্রীরাম বলে শ্লোগান দিতে বাধ্য করা হচ্ছে। যা কোন ধর্ম, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আইন সমর্থন করে না। ভারতের মুসলমানদের রক্ষায় বাংলাদেশ সরকারসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দকে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি। আজ শুক্রবার বিকালে ঢাকার কামরাঙ্গীরচরে ভারতে মুসলমান হত্যা,নিপীড়ন, নারী ধর্ষন, বাড়ি-ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়ার প্রতিবাদে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশে সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।

মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী বলেন, কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসার পরপরই ভারতে মুসলিম বিরোধী সাম্প্রদায়িক সহিংস ঘটনা ব্যপকভাবে বেড়ে গেছে। উগ্রপন্থি বিজেপি নেতাদের উস্কানিমূলক বক্তব্যের কারণেই মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর সাম্প্রদায়িক জুলুম-নির্যাতন বহুগুনে বৃদ্ধি পেয়েছে। মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, উলামায়ে কেরামদের নেতৃত্বে জেহাদের মাধ্যমে ভারতবর্ষকে ইংরেজ শাসন মুক্ত করেছে। ভারত শুধু হিন্দুদের দেশ নয়, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলেই সে দেশের নাগরিক। সংখ্যালঘু মুসলমানদের নাগরিক ও ধর্মীয় অধিকার খর্বকরে সংখ্যাগরিষ্টদের স্বেচ্ছাচারী শাসন বিশবাসি মেনে নিতে পারে না।

মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন বলেন, ভারতে মুসলমানরা ভেসে আসেনি। মুসলমানরাই শত শত বছর যাবত ভারত শাসন করেছে। ধর্ম-কর্মে বাধা দেওয়ার কারও অধিকার নেই। নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় মুসলমানরা ঐক্যবদ্ধ ভাবে গর্জে উঠলে হিন্দুরা পালাবার পথ খুঁজে পাবে না।সভায় আরও বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, নায়েবে আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন, মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজী, মাওলানা সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী, মুফতি আফম আকরাম হুসাইন ও ইবরাহিম খলিল নোমানী প্রমুখ।

আইএ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন