মার্কিন হুমকি এস-৪০০ ক্রয় ঠেকাতে পারবে না : তুরস্ক

প্রকাশিত: ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৮, ২০১৯

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হামি আকসয় বলেছেন, মার্কিন হুমকিতে রাশিয়া থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয় থেকে বিরত থাকব না। সরকার যদি রাশিয়ার কাছ থেকে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয় করে, তবে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান হস্তান্তর বন্ধ রাখার হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

শুক্রবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ঘটনা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র এফ-৩৫ ইস্যুটি হুমকি হিসেবে প্রকাশ করেছে। কিন্তু কোনোভাবেই তা জোট-সম্পর্ক কিংবা আমাদের স্বার্থের অনুকূলে না।

যুক্তরাষ্ট্রকে তুরস্কের কর্তৃপক্ষ বলছে, এস-৪০০ ব্যবস্থার সঙ্গে এফ-৩৫ গুলিয়ে ফেলাটা ভ্রান্তি। আমরা নিয়মিত অর্থ পরিশোধ করে যাচ্ছি। আমাদের পাইলটরা যুক্তরাষ্ট্রে প্রশিক্ষণ নিয়েছে। কাজেই আমরা এখান থেকে পেছনে সরতে পারবো না।

চলতি মাসে ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে তুরস্ককে নিয়ে মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে আকসয় বলেন, আমরা দেখছি, যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসন আমাদের বারবার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু আগেও এমনটা দেখেছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।

মাইক পেন্স বলেছেন, তুরস্কের এস-৪০০ ক্রয় ন্যাটোর জন্য হুমকি তৈরি করবে। কিন্তু এসব কিছু আরোপ করে কোনো ফল পাওয়া যাবে না। অপর এক খবরে বলা হয়, মার্কিন কনস্যুলেটের তৃতীয় এক কর্মী ও তার স্ত্রীকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্য হিসেবে অভিযুক্ত করেছে তুরস্ক।

অভিযোগপত্রের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন তথ্য দিয়েছে। এতে দুই ন্যাটো মিত্রের মধ্যে নতুন করে সম্পর্কের টানাপোড়েন দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ইস্তাম্বুলের মার্কিন কনস্যুলেটের নিরাপত্তা কর্মকর্তা নাজমি মেট চানটুর্ক, তার স্ত্রী ও কন্যার বিরুদ্ধে ফেতুল্লাহ গুলেন নেটওয়ার্কের সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগ আনা হয়েছে।

২০১৬ সালের তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানকে হটাতে ব্যর্থ অভ্যুত্থানের জন্য দায়ী করা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছায় নির্বাসিত ফেতুল্লাহ গুলেনকে।

অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, একটি সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্য হওয়ার অভিযোগে তাদের কারাদণ্ড চেয়েছেন তুরস্কের এক কৌঁসুলি। গত ৮ মার্চ অভিযোগপত্র শেষ করা হলেও তা এখনো প্রকাশ করা হয়নি। সূত্র: হুররিয়াত ডেইলি নিউজ, রয়টার্স।

আইএ/পাবলিক ভয়েস

 

 

মন্তব্য করুন