খাশোগি ইস্যু: আমিরাতের ২ ‘গুপ্তচর’ আটক করেছে তুরস্ক

প্রকাশিত: ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০১৯

সংযুক্ত আরব আমিরাতের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে দুই সন্দেহভাজনকে আটক করেছে তুরস্ক। সেইসঙ্গে সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডে এ দুই ব্যক্তির কোনো যোগসাজশ রয়েছে কি-না, তা-ও খতিয়ে দেখছে তুরস্ক।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) এ তথ্য জানিয়েছে তুরস্কের সংবাদ সংস্থা আনাদোলু। কিন্তু আটককৃতদের কখন তাদের আটক করা হয়েছে, সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি। মূলত আরব আমিরাতের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়েই তাদের আটক করা হয়েছে বলে আনাদোলুর খবরে বলা হয়েছে।

২০১৮ সালের ২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে ব্যক্তিগত কাগজপত্র আনার প্রয়োজনে গেলে নিখোঁজ হন সৌদি সাংবাদিক খাশোগি। ঘটনার পর থেকে তুরস্ক দাবি করছিল- সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরেই তাকে হত্যা করা হয়েছে।

প্রথমদিকে অস্বীকার করে নানা রকম কথা বললেও অবশেষে কনস্যুলেট ভবনের ভেতরে খাশোগি নিহত হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে সৌদি। তবে তারা দাবি করে, কনস্যুলেটের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মারামারি করে নিহত হন এ সাংবাদিক।

সবশেষ সৌদি অ্যাটর্নি জেনারেল সৌদ আল মোজেব দেশটির রাজধানী রিয়াদে এক সংবাদ সম্মেলনে খাশোগির মরদেহ টুকরো টুকরো করার কথা স্বীকার করেছিলেন।

তখন তিনি বলেছিলেন, খাশোগির শরীরে ড্রাগ ইনজেকশন দেওয়া হয়। এরপর তাকে টুকরো টুকরো করা হয়। টুকরো করা দেহ কনস্যুলেটের বাইরে এক এজেন্টকে হস্তান্তর করা হয়।

হত্যাকাণ্ডে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সম্পৃক্ততার কথা উঠলেও তা অস্বীকার করছে সৌদি আরব। যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা-নির্বাসিত খাশোগি ছিলেন বাদশাহ-যুবরাজসহ সৌদি রাজপরিবারের কট্টর সমালোচক। এ হত্যাকাণ্ডের দায়ে ১১ জনকে অভিযুক্ত করেছে দেশটির পাবলিক প্রসিকউটর।

এদিকে, এ হত্যাকাণ্ডের তদন্তে সৌদি কর্তৃপক্ষের যথাযথ সহায়তা পাচ্ছেন না বলে তাদের প্রতি নিন্দা জানিয়ে আসছেন তুর্কী প্রেসিডেন্ট রজব তইয়্যেব এরদোয়ান। তবে তুরস্ক এ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে তদন্ত চালিয়ে যাবে বলেই ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

 

আইএ/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন