বিশেষ সাক্ষাৎকার : নিক্সন চৌধুরী এম.পি

প্রকাশিত: ৫:১৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৮, ২০১৯
নিক্সন চৌধুরীর অফিসে বিশেষ সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন বাইজিদ আল হাসান

“যুগ যামানা পাল্টে দিতে চাই না অনেক জন, এক মানুষই আনতে পারে জাতির জাগরণ” তেমনি একজন মানুষ জনাব মুজিবুর রহমান চৌধুরী (নিক্সন) এমপি। যিনি নিজের ক্ষমতার বড়াই করে নয় বরং নিজের যোগ্যতা দিয়ে মানুষের ভালবাসা অর্জন করে আজ দেশের একজন জনপ্রিয় সংসদ সদস্য। তার নির্বাচনি আসন ফরিদপুর-৪ এ খোজ নিয়ে জানা যায়, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন নিক্সন চৌধুরীর সময় হয়েছে। মহান জাতীয় সংসদে তার অফিসে একটি সাক্ষাৎকারে তিনি পাবলিক ভয়েসকে বলেন “আমার আসন হবে একটা মডেল আসন এবং সম্পুর্ণ মাদকমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠা করাই আমার মূল লক্ষ্য”


এছাড়াও দীর্ঘদিন যাবত প্রবাসীদের ভিআইপি আইডি কার্ড প্রদান ও এয়ারপোর্টের হয়রানি সহ বিভিন্ন সমস্যা নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন জনাব নিক্সন চৌধুরী। তিনি তার সততা ও সাহসীকতায় ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় সংসদ সদস্য হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করেছেন। তিনি শুধুমাত্র তার নির্বাচনি এলাকার জনগণের জন্য কাজ করেন ব্যাপার টা এমন না। ইতোমধ্যেই তিনি মহান জাতীয় সংসদ সহ দেশের বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল গুলোতে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যা জাতির সামনে তুলে ধরছেন। সেই সাথে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যা নিরসনে বেশ প্রসংসনীয় উদ্যোগ ও নিয়েছেন তিনি। প্রবাসীদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার সাথে কথা বললে তিনি বেশ প্রসংসনীয় উত্তর দিয়েছেন। আমরা তার সাক্ষাৎকারটি হুবহু তুলে ধরলাম।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পাবলিক ভয়েসের ওমান প্রতিনিধি বাইজিদ আল-হাসান।


পাবলিক ভয়েস: আপনি একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েও এলাকায় দুই দুইবার নির্বাচিত হয়েছেন এবং আপনার এলাকার মানুষ আপনাকে অত্যাধিক ভালবাসে_এর পেছনে কী ভূমিকা আছে বলে আপনি মনে করেন?

নিক্সন চৌধুরী: দেখুন আমি একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার একটা দায়িত্ব রয়েছে, আমি যদি মানুষের সেবাই না করতে পারি, তাহলে আমার ক্ষমতা দেখানোর জন্য এমপি হয়ে কোনো লাভ নাই, তাই আমি ক্ষমতার জন্য এমপি হইনি,আমি আমার এলাকার জনগণের সেবা করাই আমার মূল লক্ষ্য, তাদের বিপদে আমি যদি তাদের পাশে না দাড়াতে পারি,তাহলে আমি কিসের জনপ্রতিনিধি?

পাবলিক ভয়েস: আপনি খুব অল্প সময়ে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন দেশে এবং বিদেশে, পাশাপাশি আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী ও রয়েছে অনেক ক্ষমতাধর, এতো হুমকির পরও কোনো প্রটোকল ছাড়াই একাকী স্বাভাবিক চলাফেরা করেন, এভাবে চলাফেরা কি আপনার জন্য নিরাপদ মনে করেন?

নিক্সন চৌধুরী: দেখুন আমার প্রটোকল আমার জনগণ, মৃত্যুর ভয়ে পুলিশের প্রটোকল দিয়ে কেউ বাচতে পারেনি, আর আমার যারা প্রতিদ্বন্দ্বী, তারা সবাই আমার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী, সুতরাং আমি যদি মানুষের কল্যাণে কাজ করতে না পারি, তাহলে বেচে থেকে লাভ কি? যতদিন বাচবো মানুষের জন্য কাজ করেই যাবো ইনশাআল্লাহ।

পাবলিক ভয়েস: আপনার ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নিয়ে অনেক অভিযোগ শুনা যায়, যেমন কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা না পাওয়া, দালালদের দৌরাত্ম, হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা ও নানা অনিয়ম এবং হাসপাতালের মূল গেটের পাশেই রয়েছে একটা ময়লা আবর্জনার স্তূপ, যেখানে হাসপাতালের সব বর্জ ফেলা হচ্ছে, তার পাশেই সম্পুর্ন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে রেস্টুরেন্ট পরিচালিত হচ্ছে এবং হাসপাতালের পাশে ঢাকা বরিশাল মহাসড়ক, অথচ কোনো ফুটওভার ব্রিজ নাই, একটা ফুটওভার ব্রিজের অভাবে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে, এইসব অভিযোগের পর আপনার বক্তব্য কি?

নিক্সন চৌধুরীঃ প্রথমে আমি আপনাকে বলি ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সবসময় আমার লোক লাগানো আছে, যাদের কাজই হচ্ছে আমার আসনের কোনো রুগী স্বাস্থ্যসেবা নিতে হাসপাতালে যেয়ে যেন হয়রানির শিকার না হয় এবং তাদের যথাযথ চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয় কাজ দেখার, শুধুমাত্র ফরিদপুর নয় ঢাকায়ও যদি আমার এলাকার কেউ আসে চিকিৎসা করাতে, তাহলেও আমি নিজের লোক দিয়ে তাদের সব ধরনের সহযোগিতা করি। আর দালালদের বিরুদ্ধে আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান চালাচ্ছি, কিছুদিন আগেও অনেক দালাল গ্রেফতার করা হয়েছে। এরপর আপনি ময়লা আবর্জনার স্তূপ নিয়ে যা বলেছেন, এটা আমি খেয়াল করিনি কখনো, তবে এটা অবশ্যই এখান থেকে সরানো উচিৎ, আমি ডিসি মহদয়কে অনুরোধ করবো এটা সরানোর জন্য, আপনি জানেন আমাদের ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অত্যন্ত ভালো একজন মানুষ, সুতরাং তিনি কখনোই এমন অনিয়ম সাপোর্ট করবেন না এটা আমার বিশ্বাস, আর ফুটওভার ব্রিজ অবশ্যই দরকার, এই বিষয়টি আমি গুরুত্বের সাথে দেখবো।

পাবলিক ভয়েস: মহান জাতীয় সংসদে আপনি প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে কথা বলেছেন এবং দেশের অনেক টেলিভিশনের টকশোতেও বেশ গুরুত্বের সাথে প্রবাসীদের সমস্যার কথা তুলে ধরেছেন, প্রবাসীদের নিয়ে আপনার স্বপ্ন কি?

নিক্সন চৌধুরী: প্রথমত, সরকারের কাছে আমার দাবী, সকল প্রবাসীদের ভিআইপি আইডি কার্ড করে দেওয়া হউক, এবং দেশের সকল সরকারি ও বেসরকারি অফিস আদালতে প্রবাসীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদের সেবা দেওয়া হউক। এয়ারপোর্টের হয়রানি অনেক কমেছে আগের চেয়ে, এরপরও আমি এয়ারপোর্ট কতৃপক্ষকে বলবো “আমার একজন প্রবাসী যেন নিরাপত্তা তল্লাশির নামে হয়রানির শিকার না হয় সেইদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখবেন”।

এছাড়াও প্রবাসীদের জন্য আমার বিশেষ কিছু কার্যপরিকল্পনা রয়েছে: যেমন,

  • ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রবাসী কল্যাণ ডেক্স চালু করবো।
  • প্রবাসীদের জন্য ট্রাভেল ট্যাক্স বন্ধ করার ব্যাপারে মহান সংসদে তুলে ধরবো।
  • প্রবাসীদের বিনা হয়রানিতে এবং দ্রুত সময়ে ভোটার আইডি দেওয়ার ব্যাপারে কাজ করছি এবং আমার এলাকা থেকে কোনো একজন মানুষ যেনো অদক্ষ হয়ে প্রবাসে না যায়, সেইজন্য একটা স্কিল সেন্টার প্রতিষ্ঠা করবো, যেখান থেকে একজন মানুষ কাজের দক্ষতা অর্জন করে বিদেশ যেয়ে বেশি পরিমাণ রেমিটেন্স প্রেরণ করতে পারবে।

পাবলিক ভয়েস: অনেক ধন্যবাদ আপনার মূল্যবান সময় দেওয়ার জন্য।

নিক্সন চৌধুরী: আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ আমার অফিসে কষ্ট করে এসে আমার সাক্ষাৎকার নেওয়ার জন্য, সবশেষে আমি আপনার মাধ্যমে দেশ ও বিদেশের সকলের কাছে দোয়া চাই, যেনো আমি সৎ ও সুন্দরভাবে আমার এলাকা পরিচালনা করতে পারি।

 

নিক্সন চৌধুরীর কিছু ছবি :

এলাকায় রয়েছে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা

স্ত্রী সন্তানের সাথে নিক্সন চৌধুরী

সাধারণ হয়েও অসাধারণ তিনি

প্রবল জনপ্রিয় এমপি নিক্সন চৌধুরী

সমাবেশে নিক্সন চৌধুরী

মন্তব্য করুন