টোকাইরাও হতে পারতো বঙ্গবন্ধু কিংবা মোহাম্মাদুল্লাহ হাফেজ্জী

প্রকাশিত: ৬:০২ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৯
ছবিঃ ডেস্ক এডিট

সম্পাদকীয় :

বাংলাদেশের প্রায় প্রত্যেকটি জেলা শহরে অসংখ্য টোকাই বসবাস করে। যাদের নেই নির্দিষ্ট কোনো ঠিকানা, নেই কর্মসংস্থান। ঠিকানা বা নির্দিষ্ট কর্ম না থাকলেও ঢাকাশহর টোকাইদের জন্য আদর্শ শহর। কেননা— এই শহরে তাদের মতো করে একটি জগত তৈরী করে নিতে পারে তারা। রেলস্টেশন, বাসস্ট্যান্ড, বসতি এলাকা কিংবা পরিত্যাক্ত জায়গাগুলোই টোকাইদের আবাস্থল। পলিথিনের চাল, পাটেরবস্তার বেড়া আর ছেঁড়া কাপড়ের বিছানা— এই তিন মিলে ওদের অট্টালিকা৷ রোদ-বৃষ্টি, ঝড়-তুফানের মাঝেও ঐটাই ওদের আশ্রয়ের শেষ ভরসা। এর বাইরে ওদের জন্য বসবাসের উপযুক্ত জায়গা নেই।

এই সমাজ টোকাইদের মনুষ্যসমাজের মাঝে গননা করে না। মনে করে— টোকাইদের পরিচয় ওরা শুধুই টোকাই। অথচ, ওরাও অন্যদের মতো বাঁচার স্বপ্ন দেখে। আছে স্বাদ-আহ্লাদও। ওদেরও মা-বাবা আছে। আছে বন্ধুজনও। ওরা টোকাই হয়ে জন্মায়নি। ওদেরকে টোকাই বানানো হয়েছে। অব্যবস্থাপনাময় সমাজ ওদের টোকাই বানিয়েছে।

ডাস্টবিন আর ময়লাস্তুপ ওদের উপার্জনের প্রধান মাধ্যম! ওরা সমাজের কথিত ভদ্র মানুষদের ডিস্টার্ব করে না। ক্ষুধা বা অভাবের তাড়নায় ছোটখাটো চুরি করে মাঝেমধ্যে। যদিও চুরি ছিনতাই কোনো অবস্থায়ই সমর্থন করার সুযোগ নেই— তবে অবস্থার পেরিক্ষিতে শাস্তির দিকটা কমবেশি হতে পারে। কিন্তু, ভদ্রসমাজের কথিত ভদ্রলোকেরা মাঝে মাঝে ছোটখাটো চুরির দায়ে ওদের পেটাতে পেটাতে মেরেই ফেলে!

সমাজের অভিভাবক দাবিদাররা কখনও কি ওদের কথা ভেবেছে? কীভাবে ওদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনা যায়, ওদের চাওয়া-পাওয়া আছে কী না, ওরা কী চায়, ওদের এই অবস্থার জন্য কারা দায়ী, তা কি একবারও চিন্তা করেছে সমাজপতিরা? করেনি। আমি মনে করি ওদের এই পরিণতির জন্য কথিত সমাজপতি ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনা দায়ী।

ওরা এই দেশেরই সন্তান। এই দেশের মাটিতেই ওদের সমাধি হবে। এই দেশেরই নাগরিক ওরা। আর দশজনের মতো ওরাও একদিন মা-বাবার কোল আলো করে পৃথিবীতে আগমন করেছিল। তখন ওদের গায়ে টোকাই ট্যাগ লাগানো ছিল না। ওদের নিয়েও ওদের মা-বাবা বুকভরা স্বপ্ন দেখেছিলেন। আজ সে স্বপ্ন কখনও বৃষ্টির পানিতে ড্রেনে প্রবাহমান! কখনও প্রখর রোদের তাপে ঘামের সঙ্গে ময়লা গামছায় মিলিয়ে যায়, কখনও কনকনের শীতের বরফঢালা ঠান্ডায় হিম হয়ে যায়।

রাষ্ট্রীয় অব্যবস্থাপনা, মনুষ্যসমাজের অবহেলা আর সমাজপতিতের ঘৃণ্যদৃষ্টি__ওদেরকে টোকাই থেকে চোর বানাচ্ছে। বানাচ্ছে ডাকাত, ছিনতাইকারী এমনকি খুনিও! মাদক-নেশার কথা না-ই বা বললাম!

ওদের। পাশে দাঁড়ানো উচিৎ। ওদের প্রচুর পরিচর্যা প্রয়োজন। প্রয়োজন সুষ্ঠু পরিবেশ, বাঁচার মতো অবলম্বন। সঠিক তদারকি পেলে— হয়তো ওদের মধ্য হতেই বেরিয়ে আসবে বঙ্গবন্ধু, ভাষানী, মোহাম্মাদুল্লাহ হাফেজ্জী কিংবা সৈয়দ ফজলুল করীমদের মতো কিংবদন্তি।

একজন টোকাইর জবানবন্দী:

https://www.facebook.com/publicvoice24/videos/759801907719948/

মন্তব্য করুন