হামলা সংঘর্ষ ভাঙচুর ও গ্রেফতারে শুরু নির্বাচনী প্রচারণা

নোয়াখালী ও ফরিদপুরে দুইজন নিহত, ঠাকুরগাঁওয়ে ফখরুলের গাড়িবহরে হামলা, বিভিন্ন স্থানে আহত ১০০, গ্রেফতার ৫০, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাসহ ঢাকায় গ্রেপ্তার ৬১

প্রকাশিত: ২:২৬ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮

জাতীয় নির্বাচনের প্রচারণা শুরুর এক দিন পরই ভোটের সহিংসতায় নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কর্মীদের সংঘর্ষে যুবলীগের এক নেতা নিহত হয়েছেন। গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নের নুরু পাটোয়ারীর হাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম মো. হানিফ (২৪)। এ সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন।

অন্যদিকে ফরিদপুরে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে এ ছাড়া ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ঠাকুরগাঁওয়ে ধানের শীষের পক্ষে প্রচারণা শুরু করলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলা করে দুর্বৃত্তরা।

এ ছাড়া নোয়াখালীর কবিরহাটে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের পথসভা পণ্ড করে দেওয়া হয়েছে। নরসিংদীর সদর উপজেলার আমদিয়া ইউনিয়নে বিএনপির স্থায়ী কমিটির অপর সদস্য ড. আবদুল মঈন খানের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় বিএনপি নেত্রী আফরোজা খান রিতার গাড়িবহরেও হামলা করা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী সংঘর্ষে দুই শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। গ্রেফতার করা হয়েছে শতাধিক। এ ছাড়া বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও পুলিশের ত্রিমুখী ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

নোয়াখালী: নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কর্মীদের সংঘর্ষে যুবলীগের এক নেতা নিহত হয়েছেন। গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নের নুরু পাটোয়ারীর হাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম মো. হানিফ (২৪)। সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী একরামুল করিম চৌধুরী বলেন, মো. হানিফ যুবলীগ নেতা। তিনি এওজবালিয়া ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বিকালে নুরু পাটোয়ারীর হাট-সংলগ্ন একটি বাড়িতে বিএনপি-জামায়াত ও তাদের সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা বৈঠকে বসেন। এ সময় একই এলাকার আওয়ামী লীগ ও তাদের সহযোগী সংগঠনের একদল কর্মী নৌকার পক্ষে স্লোগান নিয়ে বের হয়। মিছিলটি ওই বাড়ির দিকে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ, সংঘর্ষ ও গুলিবিনিময়ের ঘটনা ঘটে। একাধিক বাড়িতে হামলা-ভাঙচুর হয়। নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিত্সা কর্মকর্তা সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম বলেন, নিহত হানিফের এক পায়ে গুলির চিহ্ন রয়েছে। এ ছাড়া তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়। সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কর্মীদের মধ্যকার সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা মো. হানিফ মারা গেছেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’ এ বিষয়ে বিএনপির নেতৃস্থানীয় কোনো ব্যক্তির বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এদিকে নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায় নির্বাচনী সভা আহ্বানকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে। অপরদিকে নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনে ২০ নং আন্ডারচর ইউনিয়নে হাতপাখার নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর করে তালা লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ছাড়াও বিভিন্নস্থানে হাতপাখার প্রচারণায় বাধা, কর্মীদের হুমকি ও পোস্টার ছেঁড়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নারায়ণগঞ্জে হাতপাখার পোস্টারের ওপর অন্য প্রার্থির পোস্টার লাগানোর অভিযোগও আছে। নারায়ণগঞ্জে পোস্টারের ওপর পোস্টার লাগানোয় ইসলামী আন্দোলনের নেতা মুফতী মাসুম বিল্লাহ বলেন, জুলুম করে বেশিদিন টেকা যায় না। হাতপাখার পেস্টারের ওপর যারা পোস্টার লাগিয়েছে, ৩০ তারিখ ব্যালটের মাধমে তাদের উচিত জবাব দেওয়া হবে।

ফরিদপুর : ভোটের প্রচারের দ্বিতীয় দিন গতকাল ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে প্রতিপক্ষের হামলায় খুন হয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতা ইউসুফ আল মামুন (৪০)। তিনি সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক। রাতে ফরিদপুর সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের গোয়ালডাঙ্গি এলাকায় একটি চায়ের দোকানে এ হত্যার ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা আফসার উদ্দিন জানান, রাত সাড়ে ৮টার দিকে নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের গোয়ালডাঙ্গি এলাকার একটি চায়ের দোকানে আওয়ামী লীগ নেতা ইউসুফের সঙ্গে স্থানীয় বিএনপির সমর্থক মজিদ ও আজিজের কথাকাটাকাটি হয়। এ সময় মজিদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করেন। ইউসুফ প্রতিবাদ করলে তাকে কিল-ঘুষি মারেন তারা। দোকানের ঝাপের লাঠি দিয়ে আঘাত করলে ইউসুফ মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান ইউসুফ। এ ঘটনায় স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি লালন ফকির গুরুতর আহত হলে তাকে সদর হাসপাতলে ভর্তি করা হয়। এ বিষয়ে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. লোকমান হোসেন মৃধা অভিযোগ করে বলেন, হামলাকারীরা বিএনপির প্রার্থী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের সমর্থক। এদিকে ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন) আসনের ভাঙ্গা উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরীর সমর্থকরা আওয়ামী লীগের তিনটি নির্বাচনী কার্যালয় এবং আওয়ামী লীগের সমর্থকরা নিক্সন চৌধুরীর দুটি কার্যালয় ভাঙচুর করেছে। সোমবার রাতে প্রচারণার প্রথম দিন ভাঙ্গা উপজেলার কাউলীবেড়া ইউনিয়নের লোচনগঞ্জ বাজার, খাটরা, আজিমনগর ইউনিয়নের ব্রাহ্মণপাড়া গ্রামের মুন্সির বাজার, কালামৃধা ইউনিয়নের সাওথার গ্রামে এসব ঘটনা ঘটে। কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ১০ জন আহত হয়েছেন। গতকাল বেলা ১টার দিকে সদর উপজেলার বেগুনবাড়ী ইউনিয়নের দানারহাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ হামলার খবর নিশ্চিত করলেও কারা গাড়িতে হামলা করেছে সে বিষয়ে কিছু বলতে পারেনি। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ওই এলাকায় নির্বাচনী পথসভা করছিলেন। এ সময় একদল লোক হামলা চালিয়ে ছয়-সাতটি গাড়ির কাচ ভাঙে। আওয়ামী লীগের লোকজন এ হামলা চালিয়েছে অভিযোগ করা হয়েছে। তবে হামলাকারীর নাম বলতে পারেননি বিএনপি। জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, মির্জা ফখরুল দানারহাট এলাকায় নির্বাচনী গণসংযোগে গেলে তার গাড়িবহরে এই হামলা হয়। এ সময় ছয়টি গাড়ির গ্লাস ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনায় মির্জা ফখরুলের সফরসঙ্গী অন্তত ১০ জন আহত হন বলে দাবি করেছেন তিনি।

নরসিংদী : নরসিংদী-২ (পলাশ ও সদরের একাংশ) আসনের বিএনপির প্রার্থী, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খানের নির্বাচনী প্রচারণায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের হামলার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সন্ধ্যায় নির্বাচনী এলাকা সদর উপজেলা আমদিয়া ইউনিয়নের বেলাবোতে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় হামলাকারীরা বিএনপি নেতা-কর্মীদের ১০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও চারটি মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ছাড়া এ ঘটনায় ছাত্রদল ও যুবদলের ১০ জন নেতা-কর্মী আহত হন। মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জ-৩ আসনে সাটুরিয়া উপজেলায় বিএনপি প্রার্থী আফরোজা খান রিতার নির্বাচনী প্রচারণায় প্রতিপক্ষ হামলা করেছে। হামলায় ১৫ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ জানিয়েছে জেলা বিএনপি। গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সাটুরিয়া  কালুশাহ (রহ.)-এর মাজার জিয়ারত ও নির্বাচনী  জনসংযোগ করতে গেলে প্রতিপক্ষরা তার গাড়িবহর ঘিরে ধরে। এ সময় তিনি ও তার কর্মী-সমর্থকরা কিছু সময়ের জন্য মাজারের  ভিতর আত্মরক্ষার্থে অবস্থান নেন। সেখান  থেকে বের হলে ‘জয়বাংলা’ স্লোগান দিয়ে তাদের বহরে লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায় প্রতিপক্ষরা। এ সময় ছাত্রদলের ফরিদ হোসেন, আবু হামজা  যুবদল নেতা মহসীন মিয়াসহ ১৫ কর্মী-সমর্থক আহত হয়।

ঢাকা : জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মহাজোটের ঢাকা-৪ আসনের প্রার্থী সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার প্রচারণা মিছিলে ককটেল হামলা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রাত পৌনে ৯টার দিকে রাজধানীর শ্যামপুরে এ ঘটনা ঘটে। মিছিলে অংশগ্রহণকারী স্থানীয় জাতীয় পার্টি ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বলেন, শ্যামপুর থানার মহাজোটের প্রধান কার্যালয় থেকে প্রচারণা মিছিল বের করা হয়। শ্যামপুর থেকে ঢাকা মেসের দিকে যাওয়ার সময় মিছিলকে লক্ষ্য করে তিনটি ককটেল ছোড়া হয়। মিছিলে থাকা জাতীয় পার্টির কদমতলী থানার সাধারণ সম্পাদক শেখ মাসুক রহমান ও থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজ আহমেদ অভিযোগ করে বলেন, বিএনপির প্রার্থী মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন আহমেদেনর বাড়ির দিক থেকে এসব ককটেল ছোড়া হয়েছে। তবে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের বিএনপির প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামান গতকাল তার গ্রামের বাড়ি রুপসীদের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। পরে তিনি রূপগঞ্জ প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, প্রচারণা চালানোর সময় তার গাড়িবহরে হামলা করা হয়। এতে বেশ কয়েকজন আহত হন। বরিশাল : বরিশাল বিমানবন্দরে ঝালকাঠি-২ (সদর-নলছিটি) আসনের বিএনপি প্রার্থী জিবা আমিন খানের কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল দুপুরে জেবা আমিনকে বিমানবন্দরে এগিয়ে নিতে আসা ঝালকাঠির নেতা-কর্মীরা স্থানীয় ক্ষমতাসীনদের হামলার শিকার হন।

সিরাজগঞ্জ : প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে হামলা-সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। সংঘর্ষে উভয় দলের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। বগুড়া : জেলার ধুনট উপজেলায় বিএনপি প্রার্থী জি এম সিরাজের শোডাউনে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা হামলা চালিয়ে জিপগাড়ি ও মোটরসাইকেল ভাঙচুর এবং যুবদল নেতার বাড়িতে পেট্রল ঢেলে দিয়ে অগ্নিসংযোগ করেছে। মেহেরপুর : জেলার গাংনীতে গতকাল সকালে ৮-১০ জন যুবক অতর্কিত হামলা চালিয়ে বিএনপির নির্বাচনী অফিসের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে ও তাঁবু ছিঁড়ে ফেলে।

ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহ-১ (শৈলকুপা) আসনে বিএনপি প্রার্থী অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদের গাড়িবহরে হামলা চালিয়েছে প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন। গতকাল সন্ধ্যায় উপজেলার ১ নম্বর ত্রিবেণী ইউনিয়নের শেখপাড়া বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

নড়াইল : নড়াইল-২ আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী এনপিপির কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান এ জেড এম ফরিদুজ্জামানের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে ব্যাপক ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বিকালে লোহাগড়া বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর); বিএনপির মনোনীত প্রার্থী এম এ হান্নান জেলা রির্টানিং অফিস থেকে প্রতীক পাওয়ার পর দলীয় নেতা-কর্মী নিয়ে ফরিদগঞ্জ উপজেলা সদরে শো-ডাউনকালে পুলিশের সাথে মুখমুখি সংর্ঘষ ঘটে। এই সময় পুলিশসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়। পুলিশ আরিফ হোসেন ও ইমাম হোসেন নামে ২জনকে আটক করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে লাঠিচার্জ ও ৬ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুড়ে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত সোমবার বিএনপি প্রার্থী এম এ হান্নান প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে শোডাউনের জন্য স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডে সমবেত হয়। পরে বিএনপি প্রার্থী এম এ হান্নানের নেতৃত্বে ধানের শীষের একটি বিশাল মিছিল উপজেলা সদরে মিছিল করার সময়ে মধ্য বাজারে পুলিশ প্রথমে বাঁধা প্রদান ও পরে লাঠিচার্জ শুরু করে। এসময় পুরো এলাকা রনক্ষেত্রে পরিনত হয়। মূর্হূতের মধ্যে নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। পুলিশের হামলায় উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শরীফ মো. ইউনুছ, পৌর বিএনপির সম্পাদক আমানত গাজী, যুবদলের যুগ্মআহ্বায়ক আমির বেপারী, শ্রমিক দলের সভাপতি আজিম খাঁ, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা বেগমসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুড়ে।
পুলিশের হামলায় উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শরীফ মো. ইউনুছ, পৌর বিএনপির সম্পাদক আমানত গাজী, যুবদলের যুগ্মআহ্বায়ক আমির বেপারী, শ্রমিক দলের সভাপতি আজিম খাঁ, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা বেগমসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়। অন্যদিকে বিএনপির কর্মীদের হামলায় পুলিশের এস আই ওমর ফারুক, সুমন্ত মজুমদার, সাজু বড়–য়া, গোলাম রসুল, আবুল কালাম আহত হয়েছে।

ঢাকায় বিএনপির ৬১ নেতা-কর্মী গ্রেফতার : নাশকতার পুরনো মামলায় ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহসভাপতি আবদুল আলীম নকিসহ বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের ৬১ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল তাদের ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। পুলিশ ও আদালত জানায়, নাশকতার মামলায় বিএনপি নেতা আশরাফুর রহমান আশরাফসহ আট নেতা-কর্মীকে সোমবার গ্রেফতার করে মিরপুর থানা পুলিশ। গতকাল তাদের আদালতে হাজির করে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। আদালত এসব আসামিকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন নাকচ করে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের  নির্দেশ দেয়।

মন্তব্য করুন