দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে আজ দেশে ফিরছে হতভাগা ওমান প্রবাসী সাদেক সরকারের মরদেহ

প্রকাশিত: ৭:৪৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০১৮
হাসান আল বায়জীদ, ওমান থেকে : ওমানে বসবাসের বৈধ কাগজপত্র না থাকায় তার মরদেহ দেশে পাঠাতে চরম বিপাকে পরতে হয় দূতাবাস সহ আমাদের ওমান প্রতিনিধি বাইজিদ আল-হাসানের। মৃত্যু সাদেক সরকারের ওমানে কোনো আপনজন না থাকায় তার মরদেহ দেশে পাঠাতে উদ্যোগ নেন আমাদের ওমান প্রতিনিধি হাসান।
গত ১৫ ই নভেম্বর প্রতিদিনের ন্যায় সকালে কাজে যেয়ে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পরেন সাদেক সরকার। আশিক খান ও স্থানীয় কয়েকজন বাংলাদেশী তাকে স্থানীয় লাইফ লাইন হসপিটালে নিয়ে যায়। হসপিটালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
তার ওমানে কোনো আত্মীয় স্বজন না থাকায় এবং ওমানে বসবাসের কোনো বৈধ কাগজপত্র না থাকায় লাশ টি দেশে পাঠানো অনিশ্চিত হয়ে পরে। এমতাবস্থায় আমাদের ওমান প্রতিনিধি প্রিয়জনের মুখটি শেষ বারের মতো দেখতে দেশে পাঠানোর উদ্যোগ নেন।
দূতাবাসের সহযোগিতায় মরদেহটি দেশে পাঠানোর সকল কাগজপত্র তৈরি করা হয়। কাগজপত্র ঠিক হওয়ার পর শুরু হয় ফ্লাইট বিড়ম্বনা, বাংলাদেশ বিমান মরদেহ নেওয়া বন্ধ করে দেওয়ায় চরম বিপাকে পরেন ওমান প্রবাসীরা। প্রতিদিন প্রায় ৩ থেকে ৪টা মরদেহ ওমান থেকে দেশে আসে, বিগত দিনে বাংলাদেশ বিমান ও রিজেন্ট এয়ারে মরদেহ গুলো ফ্রিতে দেশে পাঠানো যেতো।
কিন্তু হঠাৎ করে বিমানের মরদেহ নেওয়া বন্ধ করে দেওয়ায় হতাশ বাংলাদেশ দূতাবাস ওমান। ইতিমধ্যে বিমানের এমন সিদ্ধান্তের কারনে কান্ট্রি ম্যানেজার ইরতেজা কামাল চৌধুরী কে দূতাবাসে ডেকে জরুরী মিটিং করেছে রাস্ট্রদূত মোঃ গোলাম সরওয়ার। বিমানের কান্ট্রি ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন “বাংলাদেশ থেকে এখন বড় বিমানের ফ্লাইট বন্ধ হওয়ার কারনে এই সমস্যা দেখা দিয়েছে,সেইক্ষেত্রে এই সমস্যা সমাধান হতে আগামী ফেব্রুয়ারী নাগাদ সময় লাগবে” এদিকে এই বিষয়ে দূতাবাসে যোগাযোগ করলে দূতাবাসের লেবার কাউন্সিলর সুজাউল হক তাৎক্ষনিক রিজেন্ট এয়ারের কান্ট্রি ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করেন৷
রিজেন্ট এয়ারের পক্ষথেকে জানানো হয় তারা আগামী সপ্তাহ থেকে পুনরায় মরদেহ নেওয়া শুরু করবে, এবং সেইসাথে বিমানে মরদেহ পাঠানোর ব্যবস্থা নিতে খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিবে বলে আশ্বাস দেন।
দেশের কোনো বিমানের টিকিট না পাওয়াতে সম্পুর্ণ খরচ দিয়ে সাদেক সরকারের মরদেহটি দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়, এমতাবস্থায় আর্থিক সহযোগিতা করেন বাংলাদেশ দূতাবাস, চট্টগ্রাম সমিতি ওমান, বরকত আলী, আবুল হাসান ও নাসির হোসেন, বাংলাদেশী টাকায় ১লক্ষ টাকা ব্যয়ের মাধ্যমে অবশেষে সাদেক সরকারের মরদেহটি আজ দেশে ফিরছে।
প্রবাসীদের এমন করুণ অবস্থা থেকে বাচার জন্য বিশিষ্টজনরা কিছু পরামর্শ দিয়েছেন, এর ভিতর হচ্ছে ১, ফ্রি ভিসায় বিদেশ না যাওয়া, ২, বিদেশ এসে অবৈধ না হওয়া। ৩, বৈধ কাগজপত্র সবসময় সাথে রাখা। ৪, অবৈধ কাজ থেকে সম্পুর্ণ দূরে থাকা। ৫, প্রতিটা প্রবাসীর ইন্স্যুরেন্স এর ব্যবস্থা করা। ৬, অতিরিক্ত মানুষিক চাপ না নেওয়া। ৭, পরিবারের পক্ষথেকে টাকার জন্য বেশি চাপ প্রয়োগ না করা ইত্যাদি।

 

 

মন্তব্য করুন