আমিরাতে ভিসা জটিলতায় বিপাকে প্রাবাসীরা

পাসপোর্ট অফিসের অবহেলার কারনে বিপর্যস্ত আমিরাত

প্রকাশিত: ১০:৪২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৪, ২০১৮
প্রবাস সংবাদ

পুলিশ ভেরিফিকেশন ও ডেমুতে আটকে গিয়ে আমিরাতে প্রায় ২ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশীর বৈধ হওয়ার স্বপ্ন নষ্ট হতে চলেছে। আগামি ২৮  নভেম্বরের মধ্যে তাদের পাসপোর্ট পাওয়া না গেলে এ সব অবৈধ প্রবাসীরা বৈধ হওয়ার সুযোগ পেয়েও আবারো তাদেরকে অবৈধ হয়ে দিন কাটাতে হবে।

এ নিয়ে স্বয়ং মিশন কর্মকর্তারাও রয়েছে বিপাকে। ৪ মাস শেষ হতে চললেও আগারগাঁও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের ঘুম ভাঙ্গেনি এখনো। হাজারো প্রবাসীর আর্তনাদ পাসপোর্ট অধিদপ্তর ও পুলিশ বিভাগের বিশেষ শাখার (এস বি) কানে পৌছালেও তারা যেন নির্বিকার।

জানা যায়, শত শত প্রবাসীরা পাসপোর্ট না পেয়ে প্রতিদিন ধর্ণা দিচ্ছে আবুধাবী বাংলাদেশ  দূতাবাস ও দুবাইস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে। মিশন কর্মকর্তাদের কাছ থেকে  কোন আশ্বাস না পেয়ে তারা হতাশ হয়ে পরেছেন।  প্রবাসীদের কেউ কেউ নিকটস্থ কাউকে পাঠিয়ে  আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিস ও পুলিশের কাছে ধর্না দিয়ে কিছু পাসপোর্ট নিয়ে আসতে পারলেও বাকিরা উপায়ান্তর না পেয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে দূতাবাস ও কনস্যুলেট বারান্দায়। মিশন কর্মকর্তারা ও বিষয়টি সুরাহার জন্য প্রতিনিয়ত চিঠি পাঠাচ্ছেন বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরে। কিন্তু এখনো আশানুরুপ ফলাফল না পাওয়ায় তারাও উদ্বিগ্ন।

 

অপরদিকে আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান পরিস্থিতি সামাল দিতে আরো এক মাস সময় চেয়ে আমিরাত সরকারের নিকট চিঠি দিয়ে রেখেছেন। তবে এ আবেদন আমিরাত সরকার কতটুকু গ্রহণ করবে তা জানা যায়নি।

দুবাইস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে বাংলাদেশে পুলিশ ভেরিফিকেশনে আটকে থাকা ৭৮৫ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। এ তালিকায় সবচেয়ে বেশী আটকে থাকা পাসপোর্টের সংখ্যা চট্টগ্রামের প্রবাসীদের।

পরিসংখ্যানে দেখা যায়:

চট্টগ্রাম ১৭৩), কুমিল্লা ১৪৭), কক্সবাজার ৬৪), হবিগন্জ ৪১),  সিলেট ৪০), লক্ষীপুর ২৭), মৌলভীবাজার ২৪), ঢাকা ২৬), ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২২), ময়মনসিং ১৬), নোয়াখালী ১৫), গাজীপুর ১৫), মানিকগঞ্জ ১৪), নারায়নগঞ্জ ১৩), ফরিদপুর ১২), সুনামগঞ্জ ৮), টাঙ্গাইল ৯), শ্রীপুর ২), শরিয়তপুর ৬), রাজশাহী ২), পটুয়াখালী৫), পাবনা২), নাটোর ২), নওগা ১), মেহেরপুর ১), মাগুরা ১), মাদারীপুর ১), কুষ্টিয়া৩), কিশোরগঞ্জ ৬), খুলনা২), জয়পুরহাট ১), ঝিনাইদাহ ৩), ঝালকাঠি ২), যশোর ৬), গোপালগঞ্জ ৩),  গাইবান্ধা১), ফরিদপুর৬), দিনাজপুর ১), চুয়াডাঙ্গা ৮), চাপাইনবাবগঞ্জ ৭), চাঁদপুর ৯), বগুরা১), ভোলা১), বরিশাল ৯), বরগুনা ৩), বান্দরবান ১), বাগেরহাট২) ।

এ পরিসংখ্যান শুধু যারা কনস্যুলেটে এসে অভিযোগ করেছেন তাদের। এর বাইরেও আবুধাবি দূতাবাসের পরিসংখ্যান  এবং অন্যান্য মিলে বিপর্যয়ে পড়া প্রবাসীর সংখ্যা প্রায় ২০ হাজারেরও বেশি।

দুবাই কনস্যুলেটের সামনে অপেক্ষারত প্রবাসীদের সাথে কথা বলে জানা যায় তারা একেক জন সাধারণ ক্ষমার আওতায় বৈধ হতে গিয়ে এম আর পি পাসপোর্টের জন্য কনসুলেট পাসপোর্ট বিভাগে  আবেদন করার পর প্রায় ৩ মাস অতিবাহিত হয়ে গেছে। কেউ কেউ পুলিশের কাছে গিয়েও চেষ্টা তদবির করেছে। কারো কারো ক্ষেত্রে পুলিশ রিপোর্ট আগারগাঁয়ে পাঠানো হয়েছে কিন্তু অনলাইন সিস্টেমে পুলিশ অ্যাপ্রুভাল দেখানো হলেও এ পাসপোর্টের হদিস কোথায় তা যেন কারো জানা নেই।

 

আমিরাতে বাংলাদেশ দূতাবাস।

বাংলাদেশ মিশনের কর্মকর্তাদের কর্তকর্তাদের সাথে আলাপ করলে তারা বলেন, আমাদের কাজ আমরা সম্পন্ন করেছি। এরপর আর কী করার আছে আমাদের।

সচেতন প্রবাসীরা মনে করেন পাসপোর্ট অধিদপ্তর ও থানা পুলিশের অবহেলার কারণে এসব প্রবাসীদের অবৈধ থাকতে হবে। যেটার দায়ভার অবশ্যই প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সরকারকে নিতে হবে। সরকারের অবহেলার কারণে এসব প্রবাসীদের জীবনে যেমন অন্ধকার নেমে এসেছে তেমনি আমিরাত সরকারের কাছেও বাংলাদেশের ইমেজ নষ্ট হচ্ছে।

 

এইচ/আর

মন্তব্য করুন